Bangladesh Pratidin

ঢাকা, রবিবার, ১৭ ডিসেম্বর, ২০১৭

ঢাকা, রবিবার, ১৭ ডিসেম্বর, ২০১৭
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ২৩:২২
যানবাহন জনবল আবাসনসহ নানা সংকটে ডিএমপি
৪২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী
নিজস্ব প্রতিবেদক

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) ৪২তম প্রতিষ্ঠা দিবসের অনুষ্ঠান আজ। কালের বিবর্তনে সময়ের প্রয়োজনে ডিএমপি এগিয়ে গেলেও এখনো বেশির ভাগ থানার কার্যক্রম ভাড়া বাসায় পরিচালিত হচ্ছে। রয়েছে যানবাহন, জনবল ও আবাসন সংকট। ফলে কাঙ্ক্ষিত সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে নগরবাসী। তবে সমস্যা থাকার পরও কাঙ্ক্ষিত সেবা দেওয়ার চেষ্টা করছে ডিএমপি। গত বছরে এ ইউনিট জঙ্গি দমনে ব্যাপক সফলতা পায়। জঙ্গি ও অপরাধীদের দমনে ‘হ্যালো সিটি’ নামে একটি অ্যাপসও চালু করে।

রাজধানীবাসীকে আধুনিক ও উন্নত পুলিশিং সেবাদানের লক্ষ্যে ১৯৭৬ সালের ১ ফেব্রুয়ারি ডিএমপির যাত্রা শুরু হয়। সেদিন থেকেই ঢাকার রমনায় শহীদ ক্যাপ্টেন মনসুর আলী সরণির ৩৬ নম্বর ভবনে ডিএমপির কার্যক্রম পরিচালিত হয়ে আসছে। ৬ হাজার পুলিশ সদস্য, ৭টি বিভাগ আর ১২টি থানা নিয়ে ডিএমপির যাত্রা শুরু হলেও বর্তমানে থানার সংখ্যা ৪৯টি। যেখানে মোট জনবল ৩৩ হাজার ৮৮০ ও মৌলিক ইউনিট রয়েছে ৪২টি।

ডিএমপির বেশ কয়েকজন পুলিশ সদস্য জানান, থানায় যানবাহন ও আগ্নেয়াস্ত্রের সংখ্যা অপ্রতুল, উন্নত প্রশিক্ষণেরও অভাব। যানবাহন যা আছে তার তিন ভাগের দুই ভাগই নষ্ট। যা আছে তাও লক্কড়ঝক্কড়। এগুলো নিয়ে অভিযানে গিয়ে প্রায়ই মার খেয়ে ফিরতে হয়। খাবার, খাকি ড্রেস, জুতা এবং ডিউটির চাপে অনেকে অসুস্থ হয়ে পড়ছেন। আর বেতন-ভাতা যা পান তা দিয়ে পরিবার-পরিজনের ভরণপোষণ চলে না। তাই বাধ্য হয়ে অসৎ পথে পা বাড়াচ্ছে। তারা জানান, তারা যে বেতন পান তা দিয়ে সংসার চালানো যায় না। তবে রেশন পাওয়া যায় ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের মতোই। এসি থেকে কনস্টেবল পর্যন্ত যে আবাসন চাহিদা রয়েছে এর বিপরীতে আবাসন খুবই অপ্রতুল। সবার পক্ষে বাড়ি ভাড়া করে থাকা সম্ভব নয়। সন্তানদের পড়ালেখা চালাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে। বেতন কম হওয়ার কারণে অনেক পুলিশ সদস্য দুর্নীতি করে থাকেন। গত বছর এসব অপরাধে ডিএমপির ৪০০ জন সদস্যকে শাস্তি দেওয়া হয়েছে। ডিএমপির ঊর্ধ্বতন একজন কর্মকর্তা জানান, পুলিশের সমস্যার অন্ত নেই। অনেকে ‘মানবেতর’ জীবন-যাপনও করছে। আবাসন সংকট এতই প্রকট যে সারা দিন ডিউটির পর বিশ্রামের জন্য ব্যারাকে ফিরে দেখতে হয়, নিজের জন্য বরাদ্দ সিটে বিশ্রাম নিচ্ছেন আরেকজন। অনেক থানা ও পুলিশ ফাঁড়ির ভবন পুরাতন এবং জরাজীর্ণ। জনবল কম হওয়ায় নির্ধারিত ডিউটির বেশি ডিউটি করছে। এরপরও নাগরিক সেবা নিশ্চিত করতে সর্বাত্মক চেষ্টা চলছে। ইউএনডিপির এক গবেষণায় বলা হয়, বাসস্থান, চিকিৎসা সুবিধা, পদোন্নতি, বেতন-ভাতা নিয়ে পুলিশ সদস্যরা নাখোশ। রাজারবাগ পুলিশ ব্যারাকে চার কনস্টেবল মিলে একটি সিট পাচ্ছেন। ডিউটি করে আসার পর তারা বিশ্রাম নেওয়ার সুযোগ পাচ্ছেন না। স্বাস্থ্য খাতে পুলিশের বাজেট নেই বললেই চলে। চিকিৎসা বাবদ একজন কনস্টেবল মাসে পান ৪৪ টাকা। এ ছাড়া যানবাহন, অস্ত্র, অন্যান্য প্রয়োজনীয় সরঞ্জামের অভাব রয়েছে, নিয়োগ প্রক্রিয়ায় দুর্নীতি তো আছেই। পুলিশকে ঝুঁকিভাতা কম দেওয়া হচ্ছে। বেতন-ভাতার প্রায় পুরোটাই খরচ হয়ে যায় বাড়ি ভাড়ায়। পদোন্নতির পরীক্ষায় অনেকে হয়রানির শিকার হন।

প্রতিষ্ঠা দিবসের অনুষ্ঠানে যা থাকছে : ডিএমপির ৪২তম প্রতিষ্ঠা দিবস উপলক্ষে বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। আজ সকালে ডিএমপির সব ইউনিটে কেক কেটে প্রতিষ্ঠা দিবস উদযাপন করা হবে। বিকালে ডিএমপি সদর দফতর থেকে একটি বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের হয়ে রাজারবাগ পুলিশ লাইনসে গিয়ে শেষ হবে। র‌্যালিটি উদ্বোধন করবেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান ও আইজিপি এ  কে এম শহীদুল হক। র‌্যালির নেতৃত্ব দেবেন ডিএমপি কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া। সন্ধ্যায় এক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে। এতে দেশবরেণ্য শিল্পীরা নৃত্য ও সংগীত পরিবেশন করবেন। অনুষ্ঠানের শুরুতেই ডিএমপির থিম সং পরিবেশন করবেন ডিএমপির একঝাঁক তরুণ পুলিশ সদস্য। এ ছাড়াও বাংলাদেশ পুলিশ সাংস্কৃতিক পরিষদ ও বাংলাদেশ নারী কল্যাণ সমিতির (পুনাক) পরিবেশনায় থাকবে মনোরম সংগীত ও দলীয় নৃত্য। রাজারবাগ পুলিশ লাইনসের প্যারেড গ্রাউন্ডে মনোজ্ঞ ফায়ার ওয়ার্কসের মধ্য দিয়ে প্রতিষ্ঠা দিবসের আয়োজন সমাপ্ত হবে।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow