Bangladesh Pratidin

ঢাকা, সোমবার, ২১ আগস্ট, ২০১৭

ঢাকা, সোমবার, ২১ আগস্ট, ২০১৭
প্রকাশ : রবিবার, ৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ২৩:০৯
ট্রাম্পের এ সিদ্ধান্ত মানবাধিকার লঙ্ঘন
নিজস্ব প্রতিবেদক
ট্রাম্পের এ সিদ্ধান্ত মানবাধিকার লঙ্ঘন
মোহাম্মদ জমির

অভিবাসী ইস্যুতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নতুন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সিদ্ধান্তগুলোকে মানবাধিকারের লঙ্ঘন বলে মনে করেন সাবেক রাষ্ট্রদূত ও কূটনীতিক মোহাম্মদ জমির। তিনি বলেন, যদিও ট্রাম্প বহির্বিশ্বে অস্থিতিশীল পরিবেশ তৈরির প্রক্রিয়ার সঙ্গে জড়িত দেশগুলোর সঙ্গেই কঠোর হচ্ছেন।

তারপরও সাত দেশের মানুষকে যুক্তরাষ্ট্রে ঢুকতে না দেওয়ার বিষয়ে ট্রাম্পের সিদ্ধান্ত মানবাধিকারের লঙ্ঘন। যদি একান্তই প্রয়োজন হয়, তখন এ ধরনের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন আরও ধীরে-সুস্থে নেওয়া উচিত। হঠাৎ করে এই বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ ঠিক নয়। গতকাল বাংলাদেশ প্রতিদিনকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে মোহাম্মদ জমির এসব কথা বলেন। সাবেক এ রাষ্ট্রদূত বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প নির্বাচিত হওয়ার আগে যে সব নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন এবং বিভিন্ন ইস্যুতে যে মন্তব্য করেছিলেন তার বাস্তবায়ন এখন করতে চাইছেন। হয়তো জনগণের কাছে তিনি প্রমাণ করতে চাইছেন যে, তিনি শুধু বড় প্রতিশ্রুতি দেন না কাজেও তার বাস্তবায়ন করেন। তিনি বলেন, ট্রাম্পের ট্রান্স প্যাসিফিক পার্টনারশিপ (টিপিপি) থেকে বেরিয়ে আসার সিদ্ধান্ত থেকে ধারণা করছি এর মাধ্যমে বিশ্ব অর্থনীতিতে এক ধরনের ক্ষতিকর প্রভাব পড়বে। ব্যবসা-বাণিজ্যে অস্থিরতা বৃদ্ধি পাবে। যদিও এই সিদ্ধান্ত গ্রহণের ফলে চীনের উপকৃত হওয়ার সম্ভাবনা আছে। তবে বাংলাদেশ টিপিপি থেকে বেরিয়ে আসার সিদ্ধান্ত থেকে আপাতত লাভবান হতে পারে বলে ধারণা করা হলেও এটি নিয়ে যথেষ্ট সন্দেহ আছে। মোহাম্মদ জমির আরও বলেন, সিরিয়ায় শান্তি আনার জন্য রাশিয়া-তুরস্ক, কাজাখিস্তানে একটি বৈঠক করেছে। আর এই বৈঠকটির গৃহীত আলোচনা ট্রাম্পও গুরুত্ব সহকারে ভেবে দেখবেন বলে ধারণা করছি। একই সঙ্গে ইরানের ব্যাপারেও তিনি চিন্তা-ভাবনা করবেন বলে মনে করি। কারণ যুক্তরাষ্ট্র বহুদিন পর তার ‘টু চায়না’ পলিসি থেকে বের হয়ে এসেছে। আর ইতিমধ্যেই এমনকি ওবামা কেয়ার-এর বিষয়েও ট্রাম্প গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নিয়ে তা বন্ধ করে দিয়েছেন।

up-arrow