Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শনিবার, ১৯ আগস্ট, ২০১৭

ঢাকা, শনিবার, ১৯ আগস্ট, ২০১৭
প্রকাশ : রবিবার, ১২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ১১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ২৩:২১
আমার সুনাম ক্ষুণ্ন করা হয়েছে : আবুল হোসেন
নিজস্ব প্রতিবেদক
আমার সুনাম ক্ষুণ্ন করা হয়েছে : আবুল হোসেন

সাবেক যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন এক বিবৃতিতে বলেছেন, পদ্মা সেতু নির্মাণে বিশ্বব্যাংকের দুর্নীতির ষড়যন্ত্রের অভিযোগ কানাডার আদালতে মিথ্যা প্রমাণিত হয়েছে। এর ফলে এসএনসি-লাভালিনের অভিযুক্ত তিন কর্মকর্তা মামলা থেকে খালাস পেয়েছেন।

কানাডার আদালতের এ রায় প্রমাণ করে, পদ্মা সেতু নিয়ে তাকে জড়িয়ে বিশ্বব্যাংক যে অভিযোগ করেছিল তা মিথ্যা। তৎকালীন বিশ্বব্যাংকের ঢাকার আবাসিক প্রতিনিধি গোল্ড স্টেইন ও গণমাধ্যমের ভিত্তিহীন প্রতিবেদনের ওপর ভিত্তি করে বিশ্বব্যাংক যে কাল্পনিক অভিযোগ এনেছিল তার বিরুদ্ধে সেটা ছিল ষড়যন্ত্রমূলক। বিবৃতিতে তিনি বলেন, ‘আমি বিশ্বব্যাংক ও বাংলাদেশের কিছু স্বার্থান্বেষী মহলের ষড়যন্ত্রের শিকার হয়েছিলাম। এ ষড়যন্ত্র আমার দীর্ঘদিনের অর্জিত সুনাম, মর্যাদা, সততা, নিষ্ঠা ও আন্তরিকতার সঙ্গে দায়িত্ব পালনের পথকে বাধাগ্রস্ত করেছে। আমাকে সমাজে হেয় প্রতিপন্ন করার অপচেষ্টা হয়েছে। ’

গতকাল গণমাধ্যমে পাঠানো বিবৃতিতে তিনি বলেন, ‘আমার ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান সাকোকে মিথ্যা অভিযোগের ভিত্তিতে জড়ানো হয়েছে, পরামর্শক নিয়োগে ৩৭ মিলিয়ন ডলার দর প্রস্তাবের ৩৫ মিলিয়ন ডলার ঘুষ লেনদেনের অভিযোগ করা হয়েছে টক শোয়। এই বিষয় নিয়ে বিশিষ্টজনেরা রাতের ঘুম হারাম করে আলোচনায় অংশ নেন; তা ছিল মিথ্যা, বানোয়াট ও উদ্দেশ্যমূলক। তা ষড়যন্ত্রের ইতিহাসে কালো অধ্যায় হিসেবে চিহ্নিত থাকবে। ’

বিশ্বব্যাংকের চাপে পদ্মা সেতুতে ঘুষ লেনদেন ষড়যন্ত্রের অভিযোগে দুদক ২০১২ সালের ডিসেম্বরে মামলা করে এবং প্রায় দুই বছর তদন্ত শেষে অভিযোগের কোনো সত্যতা পায়নি। কানাডার আদালত শেষ অবধি পদ্মা সেতুতে কোনো দুর্নীতি খুঁজে পায়নি। পদ্মা সেতু নির্মাণকাজ দ্রুততার সঙ্গে এগিয়েও যাচ্ছে।

 

up-arrow