Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শুক্রবার, ২০ অক্টোবর, ২০১৭

ঢাকা, শুক্রবার, ২০ অক্টোবর, ২০১৭
প্রকাশ : বুধবার, ১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ২৩:৫১
আ-মরি বাংলা ভাষা
এ লড়াই কখনো শেষ হয় না
কামাল চৌধুরী
এ লড়াই কখনো শেষ হয় না

বাংলা ভাষার মর্যাদা রক্ষার জন্য আমাদের আত্মত্যাগের ইতিহাসের কোনো তুলনা পৃথিবীতে নেই। আজ একুশে ফেব্রুয়ারি সারা পৃথিবীতে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে প্রতিষ্ঠিত।

কিন্তু কোনো অর্জনই শেষ অর্জন নয়। অর্জনকে ধরে রাখার জন্য প্রতিনিয়ত অঙ্গীকারকে নবায়ন করতে হয়। ভাষার মর্যাদা রক্ষার লড়াই কখনো শেষ হয় না। বাংলা আমাদের রাষ্ট্রভাষা। কিন্তু বাংলা ভাষার উন্নয়ন, বিকাশ, সংরক্ষণ ও মান সমুন্নত রাখার জন্য এখনো আমাদের প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখতে হবে। ভাষাকে জনগোষ্ঠীর স্বপ্ন, আকাঙ্ক্ষা ও উন্নয়নের সঙ্গে সম্পৃক্ত করতে হবে এবং সেটিই হবে ভাষার সাংস্কৃতিক অর্থনৈতিক ও সামাজিক মূল্যের স্মারক। ভাষা সংস্কৃতির বাহন। ভাষা সামাজিক ঐক্য ও বন্ধনেরও বাহন। ভাষার মাধ্যমে জাতির বন্ধন ও সৃজন শক্তির বহিঃপ্রকাশ ঘটে। সেজন্য নিজের ভাষার মর্যাদা সমুন্নত করার জন্য সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। বর্তমান বিশ্ব প্রেক্ষাপটে পৃথিবীর অনেক ভাষা হুমকির সম্মুখীন। পৃথিবীতে প্রায় ৭ হাজার ভাষা আছে। বলা হয় যে, প্রতি ১৫ দিনে একটি ভাষার মৃত্যু হচ্ছে। ভাষার মৃত্যু মানে সভ্যতার মৃত্যু। ভাষার মৃত্যু মানে জনগোষ্ঠীর স্বপ্ন ও আকাঙ্ক্ষার মৃত্যু। ভাষা সংরক্ষণ ও বিপন্ন ভাষাকে বাঁচিয়ে রাখার জন্য ও লুপ্ত ভাষার পুনরুজ্জীবনে সমন্বিত উদ্যোগ গ্রহণ প্রয়োজন। বাংলাদেশে বাঙালি ছাড়া অনেক ক্ষুদ্র জনগোষ্ঠী রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও বর্তমান সরকার অনেকগুলো উদ্যোগ নিয়েছে। বাংলা ভাষায় শিল্প সংস্কৃতি চর্চাকে এবং সৃজনশীল কাজকে উৎসাহিত করার পাশাপাশি ক্ষুদ্র জনগোষ্ঠীর ভাষার উন্নয়নের জন্য প্রচেষ্টা গ্রহণ করা হচ্ছে। তাদের ভাষায় পুস্তক রচিত হচ্ছে। এটি বর্তমান সরকারের একটি বড় উদ্যোগ। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতা-উত্তর বাংলাদেশে সরকারি দফতরে নথিপত্র ও অন্যান্য কার্যক্রমে বাংলা ভাষার ব্যবহার চালু করেছিলেন। জাতিসংঘে বাংলা ভাষায় বক্তৃতা দিয়ে তিনি আমাদের ভাষার মর্যাদাকে সমুন্নত করেছেন। পরবর্তীতে বাংলা ভাষা অফিস-আদালতে ব্যবহারের আইন হয়েছে। এখন সরকারি কাজের সর্বত্র বাংলা ব্যবহূত হচ্ছে। বানানের বিভ্রান্তি দূরীকরণের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলা একাডেমি প্রণীত প্রমিত বানান রীতি অনুসরণের নির্দেশ দিয়েছেন।   তবে অনেক সময় আমরা দেখি সাইনবোর্ড, বিল বোর্ড, হোটেল রেস্তোরাঁয় বাংলার পরিবর্তে ইংরেজি ব্যবহূত হচ্ছে। বিভিন্ন মিডিয়াতে বাংলা বিকৃতভাবে উচ্চারিত হচ্ছে। বাংলা ভাষা অবহেলিত। এ এক ধরনের হীনমন্যতা। এ জন্য সবার সচেতন হওয়া দরকার। আমাদের নতুন প্রজন্ম অন্য ভাষা শিখবে তাতে আপত্তি নেই কিন্তু নিজের ভাষাকে অবশ্যই জানতে হবে। ভাষার শুদ্ধতা রক্ষার জন্যও কাজ করতে হবে। পৃথিবীতে বাংলাভাষাভাষীর সংখ্যা প্রায় ৩০ কোটি। বাংলা বিশ্বের অষ্টম বৃহত্তম ভাষা। আমরা আশাকরি একদিন বাংলা অন্যতম বিশ্ব ভাষায় পরিণত হবে। লেখক : কবি

up-arrow