Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শনিবার, ১৮ নভেম্বর, ২০১৭

ঢাকা, শনিবার, ১৮ নভেম্বর, ২০১৭
প্রকাশ : শনিবার, ১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ২৩:১৮
দীর্ঘ হচ্ছে শিশু নিখোঁজের তালিকা, হোতারা লাপাত্তা
সাখাওয়াত কাওসার
দীর্ঘ হচ্ছে শিশু নিখোঁজের তালিকা, হোতারা লাপাত্তা

ঘটনা—১ : রাজধানীর শেরেবাংলানগর বালক উচ্চবিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র মো. মাহ্বুবুল আলম ইমন (১৪)। গ্রামের বাড়ি পাবনার ভাঙ্গুরা উপজেলার ভবানীপুর।

বাবা-মায়ের সঙ্গে থাকত পশ্চিম আগারগাঁওয়ের ৪৮ নম্বর বাসায়। ২২ নভেম্বর বাসার সামনের রাস্তা থেকে নিখোঁজ হয় ইমন। পরিচিত বিভিন্ন জায়গায় খোঁজ করার পরও তার হদিস মেলেনি। দুই সন্তানের একজনকে হারিয়ে পাগলপ্রায় মা কামরুন্নাহার। তবে সম্প্রতি র‌্যা্বের হাতে গ্রেফতার শিশু অপহরণকারী চক্রের টিটু নামের এক সদস্য ইমনের ছবি দেখে দাবি করেছেন, তাকে দেশের বাইরে পাচার করে দেওয়া হয়েছে। ঘটনা—২ : মো. আলম (৮)। বাবা নূর ইসলাম পেশায় চায়ের দোকানদার। গ্রামের বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুরের মিরপুর। বর্তমানে বসবাস নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জের সানারপাড়। ১০ মাস আগে বাড়ির সামনের রাস্তা থেকে নিখোঁজ হলেও গতকাল পর্যন্ত তার খোঁজ পাওয়া যায়নি।

সম্প্রতি শিশু আন্তর্জাতিক অপহরণকারী চক্রের ছয় সদস্য গ্রেফতারের পর বেরিয়ে এসেছে শিশু অপহরণের নিষ্ঠুর, নৃশংস কাহিনী। প্রাথমিকভাবে তারা ১৭ শিশুকে অপহরণের বিষয়টি স্বীকার করলেও বেরিয়ে আসছে চাপা পড়ে থাকা শিশু অপহরণের আরও ঘটনা। এত গেল মাত্র দুটি ঘটনা। এ রকম আরও অনেক শিশুর সন্ধান চেয়ে আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সদস্যদের সহায়তা চেয়েছেন হতভাগা শিশুদের স্বজনরা। এ রকম আরেকটি ঘটনা হলো মেহেদী হাসান (১৬)। বাবা মৃত জব্বার তালুকদার। গ্রামের বাড়ি ঝালকাঠি সদরের গরমগা। রাজধানীর কামরাঙ্গীরচরে রাজ্জাক মিয়ার বাড়িতে একমাত্র ছেলে মেহেদীকে নিয়ে ভাড়া থাকতেন মা সোনালী বেগম। বাসের হেলপার হিসেবে কাজ করত মেহেদী। তার উপার্জনেই সংসার চলত। ১৯ জুলাই সকালে বাড়ির সামনে থেকে নিখোঁজ হয় মেহেদী। একমাত্র ছেলের সন্ধান না পাওয়ায় গুরুতর অসুস্থ হয়ে শয্যাশায়ী মা। রাজধানীর খিলগাঁও তিলপাপাড়া থেকে নিখোঁজ মাহমুদুল হাসান ইমনের ঘটনাও অনেকটা একই রকম। নতুন করে অভিযোগ এসেছে এমন শিশুদের মধ্যে কেবল একজনকে চিহ্নিত করেছেন গ্রেফতার টিটু। হতভাগা শিশুটি শেরেবাংলানগর থেকে নিখোঁজ ইমন। আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সদস্যদের টিটু বলেছেন, জেসমিন নামে গ্রেফতার মহিলার ওমানে বসবাসরত সাহাবুদ্দীনের কাছে পাচার করে দেওয়া হয়েছে। অপহরণকারী সিন্ডিকেট চিহ্নিত হলেও হতভাগা অপহূত অনেক শিশুর অবস্থান চিহ্নিত হয়নি। এসব শিশুর ভাগ্যে কী জুটেছে, বেঁচে আছে না মেরে ফেলা হয়েছে তাও হলফ করে বলতে পারছেন না তদন্তসংশ্লিষ্টরা। তারা বলছেন, আন্তদেশীয় এই চক্রের দুজনকে গ্রেফতার করার আগ পর্যন্ত এ বিষয়টির সুরাহা হচ্ছে না। গ্রেফতার ছয়জনের মধ্যে দুই দিনের রিমান্ড শেষে টিটু নামের একজন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। সেখানে বর্ণনা করেছেন কীভাবে এই সিন্ডিকেটে জড়িত হলেন, তার জানা মতে কতজন শিশুকে অপহরণ করা হয়েছে। ওইসব শিশুর ভাগ্যে কী ঘটেছে এসব।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সিদ্ধিরগঞ্জ থানার পরিদর্শক (অপারেশন) নাসির উদ্দীন সরকার বলেন, এ চক্রটির কর্মকাণ্ড অত্যন্ত নিষ্ঠুর। বিদেশেও রয়েছে এই চক্রের সদস্য। মামলার তদন্তের প্রয়োজনে বিদেশে অবস্থানরত সদস্যদের গ্রেফতারে ইন্টারপোলের সহায়তা নিতে হবে। টিটু মুখ খুললেও বাকিরা এখনো মুখ খুলছেন না। চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। তদন্তসংশ্লিষ্টরা বলছেন, চাহিদা অনুযায়ী মুক্তিপণ না পেলে বিদেশে পাচার করে দেয় ওরা। অনেক নিষ্পাপ শিশুর পেট কেটে নদীতে ভাসিয়েও দিয়েছে। কোমলমতি শিশুদের অপহরণের পর রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় এমনকি বিভিন্ন দেশেও ছড়িয়ে আছে ভয়ঙ্কর শিশু অপহরণকারী চক্রের সদস্য। টঙ্গী সাইনবোর্ড এলাকা থেকে অপহূত শিশু আকাশ এবং নারায়ণগঞ্জের ভুলতা থেকে অপহূত শিশু নাজমুলকে পেট কেটে ইটের বস্তায় করে শীতলক্ষ্যা নদীতে ভাসিয়ে দেওয়ার কথা ইতিমধ্যেই স্বীকার করেছেন চক্রের সদস্যরা। তারা বলেছেন, ওই দুই শিশুর শরীরে অতিরিক্ত মাত্রায় চেতনানাশক ওষুধ প্রয়োগের কারণে তাদের জ্ঞান ফিরছিল না। ধরা পড়ে যাওয়ার ভয়ে অপহরণকারীরা তাদের পেট কেটে কাঁচপুর ব্রিজসংলগ্ন শীতলক্ষ্যা নদীতে ভাসিয়ে দেন। ৯ ফেব্রুয়ারি রাজধানী ও নারায়ণগঞ্জ থেকে র‌্যা্ব-১১-এর সহকারী পুলিশ সুপার আলেকুজ্জামানের নেতৃত্বে একটি দল আন্তর্জাতিক অপহরণকারী চক্রের ছয় সদস্যকে গ্রেফতার করে। তাদের প্রাথমিক জবানিতেই বেরিয়ে আসছে রোমহর্ষক, হৃদয়বিদারক কাহিনী। তদন্ত সূত্র বলছে, এ চক্রটি অপহূত শিশুদের অঙ্গপ্রত্যঙ্গ বিক্রির ব্যবসার সঙ্গেও জড়িত রয়েছে বলে তাদের কাছে তথ্য এসেছে। সিন্ডিকেটের অন্যতম সদস্য ‘ওমানে’ অবস্থানকারী সাহাবুদ্দীনের মাধ্যমে মধ্যপ্রাচ্যে তারা শিশুদের পাচার করে। এজন্য সাহাবুদ্দীনের বিশ্বস্ত মনির, জহির ও জেসমিনের কাছে শিশুদের হস্তান্তর করে। এ চক্রের সদস্যরা সাধারণত নিজেদের পরিচিত ও আত্মীয়স্বজনকেই দলে ভেড়ান। তারা জল-স্থলসহ বিভিন্ন রুটে যাত্রীর ছদ্মবেশে শিশুদের অপহরণও করেন। অপহরণের উদ্দেশ্যে যাত্রাবাড়ী, সায়েদাবাদ, নারায়ণগঞ্জ, চিটাগাং রোডের বিভিন্ন বাসস্ট্যান্ড, কমলাপুর রেলস্টেশন এবং ঢাকা সদরঘাট এলাকায় এরা ছদ্মবেশে মাইক্রোবাসে করে ঘুরে বেড়ান। সুযোগ বুঝে জনসমাগম এলাকায় কোনো শিশু পরিবার থেকে সামান্য বিচ্ছিন্ন হতে দেখলেই এরা শিশুদের ছো মেরে মাইক্রোবাসে তুলে নেন। মুহূর্তেই ওই শিশুর শরীরে চেতনানাশক ওষুধ প্রয়োগ করেন। অজ্ঞান হয়ে পড়ে শিশুটি। পরে তাদের আস্তানায় নিয়ে ওই শিশুকে জিম্মি করে মুক্তিপণ দাবি ও আদায় করেন। আবার অনেক শিশুর পাসপোর্ট করে অসুস্থতার কাগজপত্র সংগ্রহ করে বিদেশে চিকিৎসার কারণ দেখিয়ে নিয়ে যান। ২৭ ডিসেম্বর নারায়ণগঞ্জের বন্দর এলাকা থেকে নিখোঁজ মো. বায়েজিদের (৮) ঘটনার তদন্ত করতে গিয়েই বেরিয়ে আসে এই তথ্য।

র‌্যা্ব-১১-এর অধিনায়ক লে. কর্নেল কামরুল হাসান বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘আন্তর্জাতিক অপহরণকারী চক্রের আরও সদস্যকে আমরা খুঁজছি। এজন্য সব কৌশলই অনুসরণ করা হচ্ছে। মুক্তিপণ নেওয়ার পর যাদের ছেড়ে দেওয়া হয়েছে তাদের মধ্যে আট শিশুর নাম জানা গেছে। তারা হলো বরিশালের মো. ইমন (১৩), ঝালকাঠির রাকিব হোসেন ইরান (৮), ভোলার আবু সুফিয়ান নিলয় (১৩), ফরিদপুরের রিয়াজুল কবির (১২), যাত্রাবাড়ীর অটিস্টিক শিশু সানি (৬), গাজীপুরের জুবায়ের ইসলাম (১৪), নাজমুল (১০) এবং বরিশালের মেহেদী (১০)। বিদেশে পাচার করা হয়েছে হৃদয় (৮), সুমন (৬), আনন্দ (৭), আল আমিন (৮), শুভ (৭) ও ইমনকে (১৪)।

জবানবন্দিতে যা বলেছেন টিটু : বৃহস্পতিবার নারায়ণগঞ্জের জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মাহমুদুল মহসিনের আদালতে দুই দিনের রিমান্ড শেষে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন টিটু। তাতে তিনি উল্লেখ করেছেন, তিনটি শিশুকে হত্যার ঘটনায় তিনি নিজেও জড়িত ছিলেন। তার বাবার নাম কামাল হোসেন। গ্রামের বাড়ি ভোলার বাপ্তা। দুই শিশু আকাশ ও নাজমুলকে পেট কেটে ইটের বস্তায় করে শীতলক্ষ্যা নদীতে ভাসিয়ে দেওয়া হয়েছে। জাহিদ হাসানকে (১৬) ঢাকার লক্ষ্মীবাজার এলাকা থেকে প্রথমে অপহরণ করা হয়। পরে জাহিদকেও তাদের সিন্ডিকেটে যুক্ত করে। তবে কিছুদিন পর মাদক নিয়ে বিরোধের জেরে তাকে মারধর করা হয়। একপর্যায়ে সে মারা গেলে কম্বল পেঁচিয়ে রেকসিন দিয়ে বেঁধে প্রথমে ডেমরা স্টাফ কোয়ার্টার এলাকায় ফেলে রাখা হয়। ওই জায়গাটি নিরাপদ মনে না হওয়ায় কিছু সময় পর পুনরায় লাশটি সানারপাড়ের ঢাকা মহানগর ফিলিং স্টেশনে পেছনের পুকুরে ফেলে দেওয়া হয়। তার দ্বিতীয় স্ত্রীর বড় ভাই কালামের মাধ্যমেই এ সিন্ডিকেটে যুক্ত হয় সে। দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে শিশুদের অপহরণ করত এই সিন্ডিকেট। জাকির, জেসমিন, দেলু, বানেসা দুটি গ্রুপে ভাগ হয়ে শিশু অপহরণের সবকিছু তদারকি করত। অপহরণের পর তারা মুক্তিপণ দাবি করত। না পাওয়া গেলে ঘুমের ইনজেকশন দিয়ে শিশুদের ঘুম পাড়িয়ে রাখত। দালালের মাধ্যমে বিক্রি করে দিত। বিদেশে থাকা সাহাবুদ্দীনের কাছেই তারা শিশুদের পাঠাত। শেরেবাংলানগর থেকে অপহূত ইমনসহ আরও পাঁচ শিশুকে জেসমিন প্রথমে কমলাপুর স্টেশনে নিয়ে মনিরের কাছে তুলে দেন। পরে তাদের বিদেশে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। ইমনকে অপহরণকারী দলের সদস্যও ছিলেন তিনি।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow