Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শনিবার, ২৫ নভেম্বর, ২০১৭

ঢাকা, শনিবার, ২৫ নভেম্বর, ২০১৭
প্রকাশ : শুক্রবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ২২:৫১
এমপি লিটন হত্যা
কাদেরের উঠান খুঁড়ে অস্ত্র গুলি উদ্ধার
গাইবান্ধা প্রতিনিধি
কাদেরের উঠান খুঁড়ে অস্ত্র গুলি উদ্ধার

গাইবান্ধার এমপি মনজুরুল ইসলাম লিটন হত্যাকাণ্ডে সরাসরি অংশ নেওয়া আনোয়ারুল ইসলাম রানাকে বুধবার সন্ধ্যায় ঢাকা থেকে গ্রেফতার করেছে গাইবান্ধা পুলিশ। গতকাল তাকে গাইবান্ধা অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে নেওয়া হলে সন্ধ্যায় বিচারক মইনুল হাসান ইউসুফ তার জবানবন্দি রেকর্ড করেন।

আদালতে রানা ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। এদিকে লিটন হত্যা মামলায় গ্রেফতার সাবেক এমপি কর্নেল (অব.) ডা. আবদুল কাদের খানের গ্রামের বাড়ি থেকে বুধবার রাতে একটি পিস্তল, ৬ রাউন্ড গুলি ও একটি ম্যাগজিন উদ্ধার করেছে পুলিশ। আরও অস্ত্র উদ্ধারে পুলিশি অভিযান চলছে বলে জানান পুলিশ সুপার।

গতকাল দুপুরে জেলা পুলিশের সংবাদ সম্মেলনে রানাকে গ্রেফতারের বিষয়টি জানান পুলিশ সুপার আশরাফুল ইসলাম। বিকালে চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে এমপি লিটন হত্যা মামলায় গ্রেফতার রানাকে জবানবন্দি দেওয়ার জন্য হাজির করে পুলিশ। পরে দীর্ঘ সময় বিচারকের সামনে রানা জবানবন্দি দেন। তাতে এমপি লিটনকে হত্যার সঙ্গে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছেন রানা। এরপর তাকে জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে। আনোয়ারুল ইসলাম রানা সুন্দরগঞ্জ উপজেলার কাজীর ভিটা গ্রামের তমশের আলীর ছেলে।

তার বাবা পেশায় একজন কৃষক। রানা ঢাকার একটি গার্মেন্টে কর্মরত ছিলেন।

গতকাল দুপুরে গাইবান্ধা জেলা পুলিশ সুপার কার্যালয়ে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে পুলিশ সুপার আশরাফুল ইসলাম রানার গ্রেফতারের সংবাদ জানান। তিনি বলেন, জাতীয় পার্টির (এরশাদ) সাবেক এমপি কর্নেল কাদের খানের পরিকল্পনায় আবদুল হান্নান, মেহেদী হাসান, শাহীন ও রানা মনজুরুল ইসলামের হত্যাকাণ্ড সংঘটিত করেন। এর আগে রানা ছাড়া বাকি তিনজন আদালতে ১৬৪ ধারার স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। সুন্দরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আতিয়ার রহমান বলেন, রিমান্ডে থাকা আবদুল কাদের খানের দেওয়া তথ্যানুয়ায়ী তার বাড়ির উঠানের মাটির নিচে রাখা একটি পিস্তল, ৬ রাউন্ড গুলি ও ম্যাগজিন উদ্ধার করা হয়। উদ্ধার হওয়া পিস্তলটি এমপি লিটন হত্যাকাণ্ডে ব্যবহার করেছিলেন কিলাররা। কাদের খান একটি পিস্তল ও ১০ রাউন্ড গুলি আগেই জমা দিয়েছেন। এ নিয়ে দুটি অস্ত্র পুলিশের কাছে রয়েছে। আরও একটি অস্ত্র উদ্ধার করতে অভিযান চলছে।

কাদের খানের ফাঁসি দাবি : এদিকে সাবেক এমপি কাদের খানের ফাঁসি দাবিতে তার প্রতিকৃতিতে আগুন ধরিয়ে বিক্ষোভ মিছিল করেছেন আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতা-কর্মীরা। গতকাল সন্ধ্যায় সুন্দরগঞ্জ উপজেলার বামনডাঙ্গা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের উদ্যোগে একটি বিক্ষোভ মিছিল বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে বামনডাঙ্গা রেলওয়ে স্টেশনসংলগ্ন আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের সামনে এক সমাবেশে মিলিত হয়।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow