Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৪ আগস্ট, ২০১৭

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৪ আগস্ট, ২০১৭
প্রকাশ : শনিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ২২:৫০
বিমানবন্দরে ঘাটে ঘাটে হয়রানি
সাঈদুর রহমান রিমন
বিমানবন্দরে ঘাটে ঘাটে হয়রানি

হাজারো অভিযোগ, মন্ত্রীপর্যায়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ, সিভিল এভিয়েশনের কড়া তদারকি, প্রশাসনিক নজরদারিসহ গোয়েন্দা বিভাগগুলোর নানামুখী তৎপরতায়ও হযরত শাহজালাল (রহ.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে যাত্রী হয়রানি বন্ধ হচ্ছে না। যাত্রীদের হয়রানিমুক্ত রাখা যাদের দায়িত্ব উল্টো তারাই হয়রানির কাজে মেতে উঠেছেন।

বিমানবন্দরে প্রবেশপথের মোড় থেকেই শুরু হয় যাত্রী হয়রানি। এরপর কনকর্স হল, মূল ভবন, ইমিগ্রেশন পুলিশ, কাস্টমস পোস্টসহ ঘাটে ঘাটে চলে হয়রানির মচ্ছব।

বিদেশাগত যাত্রীদের লাগেজ প্রদানের ক্ষেত্রেও যথেষ্ট সময় ক্ষেপণ করানো হয়। সেখানে সাধারণ যাত্রী বা বিজনেস ক্লাসের যাত্রী হিসেবে আলাদা কোনো কদর পায় না কেউ। তুই-তুকারি থেকে শুরু করে চরম অসৌজন্যমূলক আচরণের পাশাপাশি হুমকি-ধমকিতে যাত্রীদের আতঙ্কিত করে তোলা হয়। নানা রকম ভয় দেখিয়ে যাত্রীদের টাকা-পয়সা, মূল্যবান জিনিসপত্র হাতিয়ে নেওয়া হচ্ছে। বিমানবন্দর এলাকায় গত দুই দিন সরেজমিন অনুসন্ধানকালে যাত্রী হয়রানির নানা চিত্র পাওয়া গেছে। সেখানে যাত্রীদের অভিযোগের কোনো প্রতিকার করা হয় না। বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই যাত্রীদের ভাগ্যে জোটে নির্দয় আচরণ।      

বিমানবন্দরে যাত্রীদের দৈহিক নির্যাতন চালানোর বেশ কয়েকটি ন্যক্কারজনক ঘটনাও ঘটেছে। কিন্তু সবকিছুর ব্যাপারে সিভিল এভিয়েশন অথরিটির চরম দায়িত্বহীনতায় দিন দিনই পরিস্থিতি চরমে পৌঁছেছে। যাত্রী ভোগান্তি দূর করার পরিবর্তে অথরিটির সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উল্টো অভিযোগকারীকেই নানা ফাঁদে ফেলে হয়রানি করে থাকেন। শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে সবচেয়ে বেশি নিগৃহীত ও নাজেহালের শিকার হচ্ছেন মধ্যপ্রাচ্যের দেশসমূহে কর্মরত বাংলাদেশিরা। তারা দেশে ফেরা ও কর্মস্থলের উদ্দেশে রওনা হওয়া উভয় ক্ষেত্রেই চরম হয়রানির শিকার হন। ইমিগ্রেশন বিভাগে দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যরা এসব প্রবাসী কর্মজীবীর সঙ্গে খুব দুর্ব্যবহার করেন। তুই-তুকারি করে কথা বলা, পেটে কলমের গুঁতা দেওয়া, ইয়ার্কির ছলে দুই হাতে গলা চেপে ধরে পাছায় লাথি মেরে হটিয়ে দেওয়া নিত্যনৈমিত্তিক ঘটনা হয়ে দাঁড়িয়েছে। এসব অপমানজনক ঘটনায় ক্ষুব্ধ অনেক যাত্রী রাগে-দুঃখে হাউমাউ করে কেঁদে ওঠেন, অপমান-লজ্জায় বিমানবন্দরের মেঝেতে গড়াগড়ি পর্যন্ত দেন। অনেকে জীবনে আর কখনো দেশে না ফেরার শপথ পর্যন্ত করে তবেই দেশ ত্যাগ করেন। যাদের কঠোর পরিশ্রমে অর্জিত বৈদেশিক মুদ্রায় দেশের অর্থনীতির চাকা সচল থাকে, সেই প্রবাসী কর্মজীবীদের সঙ্গে কাস্টমস বিভাগের আচরণ আরও রূঢ়, আরও ন্যক্কারজনক। বিমানবন্দরে কাস্টমস চেকিং পয়েন্টে মধ্যপ্রাচ্যপ্রবাসী বাঙালিদের পাসপোর্ট হাতে নিয়েই লাগেজ টেপাটেপি শুরু করা হয়। দায়িত্বরত একশ্রেণির কর্মকর্তার প্রথম প্রশ্ন থাকে, ‘কয় বছর পর দেশে আসলি? আমাদের জন্য কী আনছোস্ দে তাড়াতাড়ি। ’ ভুক্তভোগী যাত্রীরা মান-সম্মানের দিকে তাকিয়ে বিদেশি মুদ্রা হাতে গুঁজে দিয়েই দ্রুত বেরিয়ে আসার পথ খোঁজেন। সূত্র জানায়, বিমানবন্দরে আর্মড পুলিশের দায়িত্ব বহির্গমন, পার্কিং লট, ক্যানোপি, কনকর্স হল, আগমনী কনভেয়ার বেল্ট, টারমাক, রানওয়ে, ড্রাইওয়ে ও অ্যাপ্রোন এলাকায় নিরাপত্তার কাজে নিয়োজিত থাকা। তবে তারা অধিকাংশ সময়ই ব্যস্ত থাকে আগমনী আর কার পার্কিং এলাকায় যাত্রীদের মালামাল তল্লাশির কাজে। বিদেশ থেকে আসা অনেক যাত্রী বিমানবন্দরে সব আনুষ্ঠানিকতা শেষ করে গাড়িতে ওঠার পরই এই আর্মড পুলিশের তল্লাশির মুখোমুখি হন। নানা প্রশ্নে বিব্রত করা হয় যাত্রীদের। টানাহেঁচড়া করে আবার বিমানবন্দরের ভিতর নেওয়ারও চেষ্টা করা হয়।

হয়রানি ঘাটে ঘাটে : দুর্ভোগক্লান্ত যাত্রীরা অভিযোগ করে জানান, বিমানবন্দরের বাইরের তুলনায় ভিতরের ঘাটে ঘাটে হয়রানি-ভোগান্তি কয়েক গুণ বেশি। যাত্রীসেবায় নিয়োজিত ইমিগ্রেশন কর্মকর্তা, বিমানবন্দর পুলিশ, কাস্টমস, কেবিন ক্রুসহ বিভিন্ন বিভাগে দায়িত্বরতদের একটা বড় অংশই নিয়মিত যাত্রী হয়রানি করছে। বিমানবন্দর অভ্যন্তরের অন্তত ১০টি ধাপে যাত্রীদের কাছ থেকে চাহিদামাফিক টাকা হাতানোর ধান্ধায় নানা রকম হয়রানি চালানো হয়। বিমানবন্দরের ভিতর ব্যাংকের বুথে মুদ্রা সংগ্রহ করতে গিয়েও চরম হয়রানির শিকার হতে দেখা যায় অনেককে। মুদ্রা সংগ্রহে গেলে ব্যাংক থেকে জানানো হয়, সংশ্লিষ্ট দেশের মুদ্রা নেই। শেষ মুহূর্তে ব্যাংকের আশপাশে অবস্থানকারী অবৈধ মুদ্রা ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে প্রয়োজনীয় দেশের মুদ্রা মাত্রাতিরিক্ত দামে সংগ্রহে বাধ্য হন যাত্রীরা। বিদেশফেরত যাত্রীরা দুই পর্বে ১২-১৩টি ধাপে হয়রানির শিকার হন। কাস্টমস হলরুম থেকে বের হওয়ার পর ট্যাক্সিচালক, দালাল, ভুয়া সাংবাদিক, ভুয়া গোয়েন্দা ও ছিঁচকে সন্ত্রাসীদের খপ্পরে পড়েও তাদের নাস্তানাবুদ হতে হয়। যাত্রীরা বিদেশ গমনের সময় বহির্গমন লাউঞ্জের প্রবেশমুখে কর্তব্যরত একশ্রেণির অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারীর খপ্পরে পড়েন। সেখানে টার্গেটকৃত যাত্রীদের পাসপোর্ট, টিকিট ইত্যাদি চেক করার সময় জানানো হয়, তার বিরুদ্ধে গোয়েন্দা রিপোর্ট রয়েছে। কাজেই তাকে দেশ ছেড়ে যেতে দেওয়া সম্ভব নয়। বিমানে ওঠার চূড়ান্ত মুহূর্তে এমন অভিযোগের কথা শুনে মাথায় আকাশ ভেঙে পড়ার উপক্রম হয়। দিশাহারা যাত্রী কাকুতি-মিনতি করতে থাকেন। এ অবস্থায় ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে ম্যানেজ করার নামে যাত্রীর কাছ থেকে মোটা অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নেওয়া হয়।

দুর্ভোগ বাড়ে অদক্ষতায় : হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের সব বিভাগে আধুনিক প্রযুক্তি স্থাপন করা হয়েছে। কেন্দ্রীয় সার্ভারের মাধ্যমে নিয়ন্ত্রিত হয় এখানকার যাবতীয় কর্মকাণ্ড। কাস্টমস ও ইমিগ্রেশনের অনেক কর্মকর্তা-কর্মচারী আধুনিক প্রযুক্তির সঙ্গে পরিচিত হলেও যথেষ্ট দক্ষ নন। তারা ধীরলয়ে কোনোমতে কাজকর্ম চালিয়ে নেন শুধু। এতে যাত্রীদের প্রতিক্ষার প্রহর হয় দীর্ঘ। মেশিন রিডেবল পাসপোর্টসহ অন্যান্য কাগজপত্র পরীক্ষা-নিরীক্ষায়ও যথেষ্ট সময় লাগান তারা। পাশের দেশ ভারতের দিল্লি, পাকিস্তানের করাচি ও মিয়ানমারের ইয়াঙ্গুনে একেকজন যাত্রীর সমুদয় কাগজপত্র পরীক্ষা করতে লাগে পাঁচ-সাত মিনিট। আর শাহজালাল বিমানবন্দরে একেকজন যাত্রীকে ইমিগ্রেশন কাউন্টারে ২০-২৫ মিনিট ঠায় দাঁড়িয়ে থাকতে হয়। বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের একজন দায়িত্বশীল কর্মকর্তা জানান, অদক্ষ কর্মী দিয়ে কম্পিউটারাইজড ব্যবস্থাপনা চালাতে গিয়ে ইমিগ্রেশন ছাড়পত্র শেষ করতে বেশির ভাগ সময়ই ফ্লাইট বিলম্বিত হয়।

লাগেজ সংগ্রহের জন্য বেল্টের সামনে ঘণ্টার পর ঘণ্টা যাত্রীদের অপেক্ষা করানো যেন ‘নিয়ম’ হয়ে গেছে। সময় ক্ষেপণের ফাঁকেই সংঘবদ্ধ চক্রটি লাগেজ কেটে ভিতরের মালামাল সরিয়ে নেয়। অনেক ক্ষেত্রে গোটা লাগেজই বেমালুম গায়েব করে দেয় তারা। এ ছাড়া লাগেজ আসেনি, পরবর্তী ফ্লাইটে আসবে— এসব কথা বলে চিরকুটে দায়িত্বরত কর্মকর্তার মোবাইল ফোন নম্বর লিখে দিয়েই যাত্রীকে বিদায় করা হয়। এর পরই শুরু হয় হয়রানির নানা ধাপ। কয়েক দফা বিমানবন্দরে ঘোরাঘুরি করানোর একপর্যায়ে টাকা লেনদেনের বিনিময়ে লাগেজ দেওয়ার এন্তার অভিযোগ রয়েছে।

ম্যাজিস্ট্রেসি তৎপরতায় স্বস্তি : যাত্রী হয়রানি রোধকল্পে বিমানবন্দরে নিয়োজিত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের তৎপরতায় সফলতা মিলছে বলে আশাব্যঞ্জক খবর পাওয়া গেছে। অযাচিত হয়রানির শিকার যাত্রীদের ফেসবুকে পাঠানো খুদে বার্তা বা মোবাইল ফোনের কল পেলেই দায়িত্বরত ম্যাজিস্ট্রেট ছুটে যাচ্ছেন ঘটনাস্থলে। যাত্রীর অভিযোগ শুনে ও ঘটনা পর্যবেক্ষণ করে তত্ক্ষণাৎ হয়রানিমুক্তির ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। হয়রানি কর্মকাণ্ডের সঙ্গে যুক্ত কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে শাস্তিও দেওয়া হচ্ছে। হয়রানি চালানোর ধকল থেকে তত্ক্ষণাৎ মুক্তি পাওয়ার ম্যাজিস্ট্রেসি ব্যবস্থাপনায় যাত্রীদের মধ্যে বেশ স্বস্তি ফিরেছে বলে জানা গেছে। বিমানবন্দরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ ইউসুফ জানান, হয়রানির শিকার যে কোনো যাত্রী ০১৮৬৬৫৪৪৪৪৪, ০১৮৬৬৫৬৬৬৬৬, ০১৭৮৭৬৬১১৪৪, ০১৭৮৭৬৬১১৬৬ নম্বরে কল করে বা ফেসবুক ফ্যান পেজটির অ্যাড্রেসে (Magistrates, All Airports of Bangladesh Government) খুদে বার্তায় অভিযোগ জানালেই দায়িত্বরত ম্যাজিস্ট্রেট ঘটনাস্থলে পৌঁছে যাচ্ছেন। লাগেজ হারানোর ক্ষেত্রেও মোবাইল কোর্টের ব্যবস্থাপনায় যাত্রীরা তত্ক্ষণাৎ ক্ষতিপূরণ পাচ্ছেন। অভিযুক্ত কর্মকর্তা-কর্মচারীরা পাচ্ছেন শাস্তি।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

up-arrow