Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : মঙ্গলবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ২৩:৩৮
হলি আর্টিজান হামলার কারণে বৈদেশিক সাহায্য পুরো ব্যবহার হয়নি
------পরিকল্পনামন্ত্রী
নিজস্ব প্রতিবেদক
হলি আর্টিজান হামলার কারণে বৈদেশিক সাহায্য পুরো ব্যবহার হয়নি

গুলশানের হলি আর্টিজানে মর্মান্তিক ঘটনার কারণে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে (এডিপি) বরাদ্দ বৈদেশিক সহায়তা পুরোপুরি ব্যবহার করা সম্ভব হচ্ছে না বলে জানালেন পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। গতকাল শেরেবাংলা নগরের পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ে ডাকা এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান তিনি। সংবাদ সম্মেলনে আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, বৈদেশিক সহায়তাপ্রাপ্ত প্রকল্প বাস্তবায়নে আমরা প্রস্তুত ছিলাম। তবে হলি আর্টিজানের ঘটনায় প্রায় ছয়-সাত মাস বিদেশি বিশেষজ্ঞদের পাওয়া যায়নি। গত বছরের জুলাইয়ে হলি আর্টিজানের হামলার কারণে মেট্রোরেল, পদ্মা সেতু, মাতারবাড়ি বিদ্যুৎ কেন্দ্রে কর্মরত বিদেশি বিশেষজ্ঞরা চলে গিয়েছিলেন। এসব প্রকল্পে যে পরিমাণ জনবল থাকার কথা ছিল, তাও পাওয়া যায়নি। ফলে বিদেশি সহায়তাপুষ্ট প্রকল্প বাস্তবায়নে প্রভাব পড়ে বলে মন্তব্য করেন পরিকল্পনামন্ত্রী। পরবর্তীতে প্রতিটি প্রকল্পে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদারের পর বিদেশিরা আবার ফিরে এসেছেন— এমন মন্তব্য করে মন্ত্রী আরও বলেন, প্রকল্পে নিরাপত্তাব্যবস্থা জোরদার করায় খরচও বেড়েছে। এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, এডিপি বাস্তবায়নের অবস্থা খারাপ নয়। কেননা চলতি অর্থবছরের ৭ মাসে ব্যয় হয়েছে ৩৯ হাজার ৯৭৩ কোটি টাকা, যা মোট ব্যয়ের ৩২ দশমিক ৪১ শতাংশ। অর্থের দিক থেকে এ যাবৎ কালের মধ্যে সর্বোচ্চ। এ ছাড়া বৈদেশিক সহায়তার প্রতিশ্রুতিও অনেক বেড়েছে বলেও উল্লেখ করেন তিনি। সংবাদ সম্মেলনে আরও জানানো হয়, বর্তমানে বিদেশি সহায়তার পাইপলাইনে ৩ হাজার ৬৫৪ কোটি ডলার আছে। গত সাত মাসে (জুলাই-জানুয়ারি) ১ হাজার ৪৬৭ কোটি ডলারের প্রতিশ্রুতি পাওয়া গেছে। এদিকে আজ মঙ্গলবার প্রধানমন্ত্রী ও জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের (এনইসি) চেয়ারপারসন শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে পরিকল্পনা কমিশনে অনুষ্ঠিতব্য এনইসি সভায় সংশোধিত বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (আরএডিপি) চূড়ান্ত করার কথা রয়েছে। এবারের বাজেটে মূল এডিপির আকার ছিল ১ লাখ ২৩ হাজার কোটি টাকা প্রায়, যেখানে বিদেশি সহায়তার পরিমাণ ধরা হয় ৪০ হাজার কোটি টাকা। বাস্তবায়ন কম হওয়ায় আরএডিপিতে বৈদেশিক সহায়তা প্রায় সাত হাজার কোটি টাকা কমানো হতে পারে। এ ছাড়া প্রকল্প সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় মূল এডিপির চেয়ে আরএডিপির আকার বাড়তে পারে বলে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow