Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শুক্রবার, ২০ অক্টোবর, ২০১৭

ঢাকা, শুক্রবার, ২০ অক্টোবর, ২০১৭
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ২ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ১ মার্চ, ২০১৭ ২৩:৩৬
রায়ের বিরুদ্ধে ধর্মঘট ডাকলে শাস্তি নয় কেন : হাই কোর্ট
নিজস্ব প্রতিবেদক

আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে হরতাল, অবরোধ বা ধর্মঘট ডাকা কেন অবৈধ  ঘোষণা করা হবে না— তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছে হাই কোর্ট। আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে গিয়ে যারা এ ধরনের কর্মসূচি ডাকবে, তাদের বিরুদ্ধে কেন আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে না— রুলে তাও জানতে চাওয়া হয়েছে।

একটি রিট আবেদনের প্রাথমিক শুনানি করে গতকাল বিচারপতি সৈয়দ মোহাম্মদ দস্তগীর হোসেন এবং বিচারপতি মো. আতাউর রহমান খানের সমন্বয়ে গঠিত হাই কোর্ট বেঞ্চ এ রুল জারি করে। তিন সপ্তাহের মধ্যে সড়ক পরিবহন ও সেতু সচিব, স্বরাষ্ট্র সচিব, পুলিশের মহাপরিদর্শক, র‌্যাবের মহাপরিচালক,  বিআরটিএ ও বিআরটিসির  চেয়ারম্যান, পুলিশের আট বিভাগের ডিআইজি, সড়ক পরিবহন কর্মচারী ফেডারেশন, সড়ক পরিবহন মালিক সমিতি এবং খুলনা সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে। পৃথক মামলায় দুই চালকের সাজার প্রতিবাদে সারা দেশে মঙ্গলবার থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য পরিবহন শ্রমিকদের ডাকা ধর্মঘটের প্রেক্ষাপটে গতকাল এ রিট করা হয়। রিটের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মনজিল মোরসেদ। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি  জেনারেল অমিত তালুকদার। শুনানি শেষে ২৪ ঘণ্টার মধে?্য সারা দেশে স্বাভাবিক যান চলাচল নিশ্চিত করার ব্যবস্থা নিতে বিবাদীদের নির্দেশ দেয় আদালত। এই আদেশ বাস্তবায়নের বিষয়ে দুই সপ্তাহের মধ্যে আদালতে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে। আদেশের পর মনজিল মোরসেদ বলেন, বিচারিক আদালতে দুই চালকের সাজার পর ধর্মঘট ডেকে জনজীবন বিপর্যস্ত করা হয়েছে, জনগণের স্বাধীন চলাচলের পথ রুদ্ধ করা হয়েছে।

এসব বিবেচনা করে রিটটি দায়ের করা হয়েছিল।

শুনানিতে বলেছি, সংবিধানের অধীনে গঠিত আদালত যদি কোনো রায় দেয়, তাতে কেউ সংক্ষুব্ধ হলে আপিল করতে পারে। কিন্তু আপিল না করে রায়ের বিরুদ্ধে ধর্মঘট ডেকে তারা সাধারণ মানুষের চলাচলের পথকে রুদ্ধ করে দিয়েছে। মানুষকে হয়রানি করছে।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow