Bangladesh Pratidin

ঢাকা, সোমবার, ২০ নভেম্বর, ২০১৭

ঢাকা, সোমবার, ২০ নভেম্বর, ২০১৭
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ২ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ১ মার্চ, ২০১৭ ২৩:৪০
এ মাসের প্রথম তিন দিনকে আলাদা করে দেখা যাবে না
আ স ম রব
এ মাসের প্রথম তিন দিনকে আলাদা করে দেখা যাবে না

বাঙালি জাতির শ্রেষ্ঠ অর্জন স্বাধীনতা। আর বাঙালি জাতির জীবনে সোনালি দিনগুলো ’৭১-এর অগ্নিঝরা মার্চ।

মার্চের প্রতি মুহূর্তেই ঘটেছিল রাজনৈতিক ঘটনা, তার মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি উল্লেখ করছি। তবে তার আগে বলে রাখতে চাই, মার্চের প্রথম তিনটি দিনকে—১, ২ ও ৩ মার্চকে আলাদা করে দেখা যাবে না। ৭ মার্চ প্রয়োজন হতো না—সেটা যদি দেশের স্বাধীনতা না আসত। পাকিস্তানের পতাকা থাকতেও ২ মার্চ আরেকটি পতাকা উত্তোলন আমাদের জন্য সহজ কাজ ছিল না। আর হঠাৎ করেই এ কাজটি করতে পেরেছি তাও না। এটা কোনো ক্লাবের পতাকা নয়। এটা নিউক্লিয়াসের সিদ্ধান্ত। নিউক্লিয়াসের প্রধান ছিলেন যুবনেতা সিরাজুল আলম খান। পতাকা তৈরি হয়েছিল ১৯৭০ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের তৎকালীন ইকবাল হলের ১১৬ নম্বর কক্ষে। পতাকার পরিকল্পনার পর লাল সূর্যের বৃত্তের পূর্ব বাংলার মানচিত্র আঁকেন শিব নারায়ণ দাস এবং কাপড় দিয়ে পতাকা তৈরিতে ভূমিকা রেখেছেন কামরুল আলম খান খসরুসহ অন্যান্যরা। যা পরবর্তীতে ১৯৭১ সালে ২ মার্চ উত্তোলন করা হয়। ১ মার্চ ‘স্বাধীন বাংলা ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের গঠনের সিদ্ধান্ত হয়। সেদিন ঘোষণা দেই আগামীকাল সকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলাভবনের সামনে সমাবেশ করব। তখন কারফিউ চলছিল। ছাত্র জনতা-মায়ের কোলে-বাবার কাঁধে চড়ে শিশুরাও এসেছিল সেই সমাবেশে। কলাভবনের চারদিকে, নীলক্ষেত, ভিসির বাসার সামনেও মানুষ আর মানুষ। ৯টার মধ্যে সমস্ত এলাকা মানুষে ভরপুর। আমার বিরুদ্ধে হুলিয়া ছিল। ১০টার মধ্যে আমরা সেখানে পৌঁছলাম। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বটতলায় ছাত্র-জনতা মিলে লক্ষাধিক মানুষের সামনে স্বাধীনতাকামী ছাত্র-জনতার পক্ষে আমি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) সহসভাপতি হিসেবে সর্বপ্রথম স্বাধীনতার পতাকা উত্তোলন করি এবং ঘোষণা করি, এই পতাকাই আজ থেকে স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা। উত্তোলনের সময় লাখো মানুষ মুহুর্মুহু করতালি দিয়ে জাতীয় পতাকাকে স্বাগত জানান। সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন ছাত্র-সংগ্রাম পরিষদের অন্যতম নেতা নূরে আলম সিদ্দিকী। আমার পাশেই ছিলেন শাজাহান সিরাজ ও আবদুল কুদ্দুস মাখন। ১৯৭১ সালের ১ মার্চ পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট জেনারেল ইয়াহিয়া খান বেতার ভাষণে গণপরিষদের অধিবেশন (৩ মার্চ শুরু হওয়া নির্ধারিত ছিল) স্থগিত ঘোষণা করলে ছাত্র-জনতা বিক্ষুব্ধ হয়ে রাস্তায় নেমে পড়ে। এ সময় বঙ্গবন্ধু হোটেল পূর্বাণীতে আওয়ামী লীগ পার্লামেন্টারি দলের বৈঠক করছিলেন।

বিক্ষুব্ধ ছাত্র-জনতা সেখানে গিয়ে উপস্থিত হলে তিনি (নিউক্লিয়াসের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী) আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার হুকুম দেন। শুরু হয় স্বাধীনতার জন্য প্রত্যক্ষ আন্দোলন। এ পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমেই সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধের ভিত্তি গড়ে ওঠে। ‘স্বাধীন বাংলা ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ’-এর চার নেতা নূরে আলম সিদ্দিকী, শাজাহান সিরাজ, আবদুল কুদ্দুস মাখন ও আমি ৩ মার্চ পল্টনের জনসভায় ‘স্বাধীন সার্বভৌম’ বাংলাদেশের কর্মসূচি ঘোষণা করি। ইশতেহারটি পাঠ করেন ‘স্বাধীন বাংলা ছাত্র সংগ্রাম পরিষদে’র পক্ষে শাজাহান সিরাজ। ইশতেহারে ঘোষণা করা হয়— ৫৪ হাজার ৫০৬ বর্গমাইল বিস্তৃত ভৌগোলিক এলাকার ৭ কোটি মানুষের আবাসিক ভূমি হিসেবে স্বাধীন ও সার্বভৌম এ রাষ্ট্রের নাম ‘বাংলাদেশ’। স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশের জাতীয় সংগীত হিসেবে ‘আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালোবাসি’ গানটি ব্যবহূত হবে। উপনিবেশবাদী পাকিস্তানি পতাকা পুড়িয়ে বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা ব্যবহার করতে হবে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব স্বাধীন ও সার্বভৌম বাংলাদেশের সর্বাধিনায়ক। ‘জয় বাংলা’ বাংলাদেশের জাতীয় স্লোগান হিসেবে ব্যবহূত হবে। এ ছাড়াও স্বাধীনতার ইশতেহারে স্বাধীন বাংলা সরকারের কাঠামো-স্বাধীনতা আন্দোলন পরিচালনার জন্য বিভিন্ন কর্মপন্থা, স্বাধীনতা আন্দোলনের কর্মকৌশল ও পদ্ধতির দিকনির্দেশনা দেওয়া হয়। ৩ মার্চ ঐতিহাসিক পল্টন ময়দানে বিশাল সমাবেশে একপর্যায়ে বঙ্গবন্ধু উপস্থিত হয়েছিলেন। তার সামনেই স্বাধীনতার ইশতেহার পাঠ করা হয়। বঙ্গবন্ধু বললেন, আমি যা বলার ৭ মার্চ বলব। আন্দোলন চলবে। অনুষ্ঠানে স্বাধীনতার পক্ষে চার ছাত্রনেতা— আমি, নূরে আলম সিদ্দিকী, শাজাহান সিরাজ ও আবদুল কুদ্দুস মাখন স্বাধীনতা ও মুক্তি সংগ্রামে ঝাঁপিয়ে পড়ার শপথ বাক্য পাঠ করি। শপথ শেষে ‘জয় বাংলা’ বাহিনীর ডেপুটি চিফ কামরুল আলম খান খসরু আনুষ্ঠানিকভাবে গান ফায়ার করেন। পতাকা উত্তোলন করেন হাসানুল হক ইনু। সেখানে জাতীয় সংগীত পরিবেশিত হয়।

৩ মার্চ রাতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বেঙ্গল লিবারেশন কোর্স (বিএলএফ)-এর চার নেতার সঙ্গে বৈঠক করেন। এই বৈঠকে স্বাধীনতা আন্দোলন বিষয়ে আলোচনা হয়। ৪ মার্চ বিএলএফ-এর চার নেতা সিরাজুল আলম খান, শেখ ফজলুল হক মণি, আবদুর রাজ্জাক ও তোফায়েল আহমেদকে ডেকে বঙ্গবন্ধু জানান যে তার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগের হাইকমান্ড গঠিত হয়েছে। ৭ মার্চের ভাষণের বিষয় নিয়ে ৫ মার্চ প্রথমে বিএলএফ-এর শীর্ষ চার নেতার সঙ্গে বঙ্গবন্ধুর আলোচনা হয়। ৬ মার্চ রাত ১২টায় বিএলএফের শীর্ষ চার নেতার সঙ্গে বঙ্গবন্ধুর আবার আলোচনা হয়। গভীর রাতে ৭ মার্চের ভাষণ বিষয়ে একটা চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়। ৭ মার্চ রবিবার, ১৯৭১ সাল জাতীয় জীবনের অবিস্মরণীয় দিন। সারা দেশ থেকে লাখ লাখ মানুষ ঢাকায় আসতে থাকে। দশ লক্ষাধিক লোক সমবেত হলো রেসকোর্সে। রেসকোর্স সেদিন বাঙালির বিদ্রোহের রূপ পরিগ্রহ করেছিল। খবর পাওয়া গেল, বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতার ঘোষণা দিলেই রেসকোর্সের জনতার ওপর বোমা বর্ষণ ও বিমান হামলা চালাবে পাকিস্তানি মিলিটারি। বাঙালি জাতির অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ৭ মার্চ রেসকোর্স ময়দানে ১৭ মিনিট ধরে যে ভাষণ দিলেন এবং জাতির ভবিষ্যৎ ও আন্দোলনের ধারা নির্দেশ করলেন রাষ্ট্রবিজ্ঞানীদের মতে তা যুক্তরাষ্ট্রের গেটিসবার্গে প্রেসিডেন্ট আব্রাহাম লিংকন প্রদত্ত ভাষণের সঙ্গে তুলনীয়।

বঙ্গবন্ধু সেদিন বক্তৃতা শেষ করার আগে বললেন, এবারের সংগ্রাম, মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম, স্বাধীনতার সংগ্রাম’। এতে সমগ্র জাতি আলোড়িত ও উদ্দীপ্ত হলো। ‘জয় বাংলা’ বলেই বঙ্গবন্ধু তার ভাষণ শেষ করেছিলেন। আমরা মঞ্চে উপস্থিত ছিলাম। পরবর্তীতে অসহযোগ আন্দোলন শুরু হলো। ১৫ মার্চ বঙ্গবন্ধু ঘোষণা করলেন লক্ষ্য অর্জিত না হওয়া পর্যন্ত অহিংস ও অসহযোগ আন্দোলন অব্যাহত থাকবে। ১৯ মার্চ জয়দেবপুরে বর্বর বাহিনীর গুলিবর্ষণের প্রতিবাদে বঙ্গবন্ধু বিবৃতিতে বলেন, ‘যারা মনে করেন, তাদের বন্দুকের বুলেট দিয়ে জনগণের সংগ্রাম বন্ধ করতে সক্ষম হবেন, তারা আহাম্মকের স্বর্গে আছেন। ’ পতাকা উত্তোলন, স্বাধীনতার ইশতেহার ঘোষণা, ৭ মার্চের ভাষণের নির্দেশনা দিয়ে কি মুক্তিযুদ্ধের সশস্ত্র ভিত্তি রচিত হয়নি? এরপরও ঘোষণার আর কী বাকি থাকে? কীভাবে রাষ্ট্রের নামকরণ বাংলাদেশ নির্বাচিত হলো, কীভাবে জাতির আত্মপরিচয় পতাকা নির্মিত হলো, কীভাবে জাতীয় সংগীত নির্ধারিত হলো, কীভাবে বঙ্গবন্ধুকে সর্বাধিনায়ক ঘোষণা করা হলো এগুলো যাদের জানা নেই তারা কীভাবে সে কথা বলবে! ‘জয় বাংলা স্লোগান’ কারা নির্ধারণ করেন? শেখ মুজিবুর রহমানকে ‘বঙ্গবন্ধু’ উপাধি কীভাবে দেওয়া হলো, ৭ মার্চের ভাষণ কীভাবে প্রস্তুত করা হলো, তা যারা জানেন না তাদের কথাবার্তায় তো ইতিহাস-অসচেতনতা প্রকাশ পাবেই। ২৩ মার্চ ১৯৭১ পাকিস্তান দিবসে স্বাধীন বাংলা ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের প্রতিরোধ দিবসের ডাকে এই দিন বাংলাদেশের ঘরে ঘরে স্বাধীনতার পতাকা ওড়ে। ঢাকায় আনুষ্ঠানিকভাবে পাকিস্তানের পতাকা নামিয়ে স্বাধীন বাংলার পতাকা উত্তোলন করা হয়। ‘জয় বাংলা’ বাহিনীর ৫ শতাধিক সদস্য সামরিক কায়দায় স্বাধীন বাংলার পতাকা নিয়ে মিছিল করে সারা ঢাকা শহরে। শহর প্রদক্ষিণ শেষে পল্টনে জমায়েত হয়। সেখানে সামরিক কায়দায় বঙ্গবন্ধুকে অভিবাদন জানানো হয়। বাংলাদেশের সব বিদেশি দূতাবাসে বাংলাদেশের পতাকা উড়িয়ে দেওয়া হয়। সরকারি অফিস-আদালতে এই পতাকা তোলা হয়। এ দিন বেতার টেলিভিশনে বাংলাদেশের জাতীয় সংগীত হিসেবে ‘আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালোবাসি’ প্রচার করা হয়। এ দিন হাজার হাজার ছাত্র-জনতার উপস্থিতিতে ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধুর বাড়িতে স্বাধীন বাংলা ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের পক্ষে আমি স্বাধীনতার পতাকা উড়িয়ে দিই। ২৫ মার্চ রাতে হানাদার পাকিস্তানি বাহিনী সারা দেশে গণহত্যা শুরু করে। এরই ফলে নিরস্ত্র বাঙালি সশস্ত্র হয়ে ওঠে পাকিস্তানি বাহিনীর বিরুদ্ধে। শুরু হলো মুক্তিযুদ্ধ। সেদিন আমি সর্বশেষ বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে কথা বলে কলাতিয়ায় ‘বিএলএফ’ ট্রেনিং ক্যাম্পে চলে যাই।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow