Bangladesh Pratidin

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২২ আগস্ট, ২০১৭

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২২ আগস্ট, ২০১৭
প্রকাশ : শুক্রবার, ১০ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ৯ মার্চ, ২০১৭ ২৩:৩৪
বিজিএমইএ ভবন না ভাঙায় রাজউক চেয়ারম্যানকে নোটিস
নিজস্ব প্রতিবেদক

আদালতের রায়ের পরও রাজধানীর হাতিরঝিল প্রকল্প এলাকায় নির্মিত বিজিএমইএ ভবন ভাঙার কাজ শুরু না করায় রাজউক চেয়ারম্যানকে উকিল নোটিস পাঠানো হয়েছে। গতকাল সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মনজিল মোরসেদ এ নোটিস পাঠান।

তিনি হাই কোর্টে এ মামলায় অ্যামিকাস কিউরি হিসেবে মত দেন। সাত দিনের মধ্যে ভবন ভাঙার বিষয়ে পদক্ষেপ গ্রহণ করতে বলা হয়েছে। অন্যথায় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে নোটিসে উল্লেখ করা হয়েছে। এদিকে হাতিরঝিল প্রকল্প এলাকা থেকে কার্যালয় সরাতে বিজিএমইএ কর্তৃপক্ষের তিন বছর সময় চেয়ে করা আবেদনের ওপরে আগামী রবিবার শুনানির দিন ধার্য হয়েছে। প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বে আপিল বিভাগের তিন বিচারপতির বেঞ্চ এ দিন ধার্য করে। আদালতে বিজিএমইএর পক্ষে ছিলেন আইনজীবী কামরুল হক সিদ্দিকী ও ইমতিয়াজ মইনুল ইসলাম। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

প্রায় দুই দশক আগে রাজধানীর বেগুনবাড়ী খালের ওপর নির্মাণ করা হয় ১৬ তলা বিজিএমইএ ভবন। জমির স্বত্ব না থাকা এবং জলাধার আইন লঙ্ঘন করে রাজধানীর হাতিরঝিলের দৃষ্টিনন্দন প্রকল্প এলাকায় নির্মিত এই ভবনটি ভাঙতে ২০১১ সালে নির্দেশ দেয় হাই কোর্ট। ওই রায়ের পর বিজিএমইএ কর্তৃপক্ষ লিভ টু আপিল করে। আপিলের সেই আবেদন গত বছরের ২ জুন খারিজ হয়। আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ রায়ে বিজিএমইএকে অবিলম্বে নিজস্ব খরচে ওই ভবন ভেঙে ফেলতে বলা হয়। অন্যথায় রায়ের কপি পাওয়ার ৯০ দিনের মধ্যে ভবন ভেঙে ফেলতে রাজউককে নির্দেশ দেওয়া হয়। ভবন ভাঙার খরচ বিজিএমইএর কাছ থেকে আদায় করতে বলা হয়। নোটিসে বলা হয়, উক্ত রায়ের কপি পাওয়ার পরে ৯০ দিনের সময়সীমা গত ২৮ ফেব্রুয়ারি শেষ হয়েছে। কিন্তু ভবন ভাঙতে কার্যকর পদক্ষেপ নেয়নি রাজউক। এটি আদালতের রায়ের প্রতি অশ্রদ্ধা ও অমান্য করার শামিল, যা আদালত অবমাননার পর্যায়ে পড়ে।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow