Bangladesh Pratidin

ঢাকা, সোমবার, ২৩ অক্টোবর, ২০১৭

ঢাকা, সোমবার, ২৩ অক্টোবর, ২০১৭
প্রকাশ : রবিবার, ১২ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ১১ মার্চ, ২০১৭ ২২:৩৪
জাসদের জনসভায় ইনু
সহায়ক সরকারের প্রস্তাব বিএনপির পাতানো চাল
নিজস্ব প্রতিবেদক
সহায়ক সরকারের প্রস্তাব বিএনপির পাতানো চাল
রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে গতকাল জাসদ আয়োজিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন হাসানুল হক ইনু — বাংলাদেশ প্রতিদিন

জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদ সভাপতি ও তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, নির্বাচনকালীন সহায়ক সরকারের প্রস্তাব সংবিধান বহির্ভূত এবং বিএনপির পাতানো নতুন চাল। তাদের এই ফাঁদে পা দেওয়া যাবে না।

তিনি বলেন, কোনো অজুহাতেই জঙ্গি-সঙ্গীর সঙ্গে আপস করা যাবে না। বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়া জঙ্গির প্রধান সঙ্গী। খালেদা জিয়াকে জামায়াত থেকে আলাদা করা যাবে না। জনগণ বিএনপি-জামায়াত সমর্থিত বা অসাংবিধানিক কোনো সরকার চায় না।

রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে গতকাল জাসদ আয়োজিত সমাবেশে সভাপতির বক্তব্যে হাসানুল হক ইনু এসব কথা বলেন। দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়া উপেক্ষা করে জাসদের নেতা-কর্মী-সমর্থকরা রঙিন ব্যানার-ফেস্টুন-পতাকা-প্ল্যাকার্ড নিয়ে সমবেত হন সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে। সমাবেশ ঘিরে ছিল ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা। কঠোর নিরাপত্তা বেষ্টনীর মধ্যেই রাজধানীর পার্শ্ববর্তী নারায়ণগঞ্জ, নরসিংদী, সাভার, গাজীপুর, মানিকগঞ্জসহ সারা দেশ থেকে বিপুল সংখ্যক নেতা-কর্মী যোগ দেন সমাবেশে। নেতা-কর্মীদের মাথায় ছিল লাল টুপি, কারও শরীরে লাল গেঞ্জি, কারও হাতে জাসদের নির্বাচনী প্রতীক মশাল শোভা পায়।

অনেকে বাদ্যযন্ত্রের তালে তালে প্রবেশ করেন সমাবেশস্থলে। দুপুর গড়িয়ে বেলা বাড়তেই জনসমুদ্রে পরিণত হয় জাসদের এই সমাবেশস্থল। কানায় কানায় পূর্ণ এই সমাবেশ বেলা সাড়ে ৩ টায় জাতীয় সংগীতের মধ্য দিয়ে শুরু হয়। সমাবেশের শুরুতেই দলের প্রতিষ্ঠাতা শীর্ষ নেতা সিরাজুল আলম খান, এমএ জলিল, আ স ম আবদুর রব, কর্নেল আবু তাহের, নূরে আলম জিকু, কাজী আরেফ আহমেদ, বিধান কৃষ্ণ সেন, শাহজাহান সিরাজ, ড. আখলাকুর রহমান, মার্শাল মনি, সৈয়দ জাফর সাজ্জাদকে স্মরণ করা হয়।

সমাবেশে বক্তব্য দেন জাসদ সাধারণ সম্পাদক শিরীন আখতার, কার্যকরী সভাপতি অ্যাডভোকেট রবিউল আলম, সহ-সভাপতি মীর হোসাইন আখতার, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আনোয়ার হোসেন, সহ-সভাপতি ইকবাল হোসেন খান, রেজাউল করিম তানসেন, আবদুল হাই তালুকদার, অ্যাডভোকেট হাবিবুর রহমান শওকত, অ্যাডভোকেট শাহ জিকরুল আহমেদ, কাজী রিয়াজ, আফরোজা হক রীনা প্রমুখ। সমাবেশে আসার সময় রায়পুর, ঘোড়াশাল ও নরসিংদীতে নেতা-কর্মীদের গাড়ি বহরে আওয়ামী লীগ নামধারী সন্ত্রাসীরা হামলা চালিয়েছে বলে অভিযোগ করেন হাসানুল হক ইনু। তিনি বলেন, হামলাকারীরা মহাজোটে ঘাপটি মেরে থাকা বিএনপি-জামায়াতের দালাল। আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে অপরাধীদের গ্রেফতার ও ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানান তিনি। হাসানুল হক ইনু বলেন, স্বাধীনতার পর থেকে জাসদকে বাদ দিয়ে ইতিহাস লেখা হয়নি। জাসদকে বাদ দিয়ে যারা রাজনীতি করতে চেয়েছেন তারা সফল হননি। তিনি বলেন, দেশ ও জাতির প্রয়োজনে জাসদ মহাজোটের সঙ্গে ঐক্য করেছে। মুক্তিযুদ্ধ, গণতন্ত্রের পক্ষে অবস্থান নিয়েছে। জাসদ মাঝামাঝি অবস্থানে চলে না। যে কোনো বিষয়ে সরাসরি অবস্থান নেয়। সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদের প্রশ্নে জাসদ এক চুলও ছাড় দেবে না। তিনি বলেন, বেগম খালেদা জিয়ার নির্বাচনী এজেন্ডা নেই। বিগত নির্বাচনের আগে ৯৩ দিন আগুন সন্ত্রাস করেছে। মানুষ পুড়িয়ে মেরেছে। এখন নির্বাচন বাতিলের নতুন চক্রান্ত করছে। ইনু বলেন, দেশ জঙ্গি দমনের যুদ্ধ পরিস্থিতি অতিক্রম করছে। জঙ্গিবাদী নেটওয়ার্কগুলো চিহ্নিত হয়েছে, সেগুলো ধ্বংসের অভিযান চলছে। জঙ্গি উৎপাদন কারখানা বিএনপি এখনো প্রকাশ্যেই জঙ্গির সঙ্গী হয়েই আছে। জাসদ সভাপতি বলেন, জঙ্গি ও জঙ্গি-সঙ্গীকে কোনো ছাড় না দিয়ে জিরো টলারেন্স নীতিতে দমন অভিযান অব্যাহত রাখতে হবে। যুদ্ধাপরাধীদের বিচার, দুর্নীতির বিচার, আগুনে মানুষ পুড়িয়ে হত্যার বিচার অব্যাহত রাখতে হবে। তাহলে বাংলাদেশে আর কোনো দিনই রাজাকার বা রাজাকার সমর্থিত সরকার বা সামরিক সরকার ক্ষমতায় আসতে পারবে না। জাসদ সাধারণ সম্পাদক শিরীন আখতার বলেন, বাংলাদেশকে এগিয়ে নিতে হবে। মেহনতী মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করতে হবে। দেশ থেকে জঙ্গিবাদ এবং জঙ্গিবাদের প্রশ্রয়দাতাদের নির্মূল করতে হবে। তিনি বলেন, একাত্তরের পরাজিত শক্তি দেশে উন্নয়ন ও অগ্রগতি থামিয়ে দিতে চায়। তাদের ঐক্যবদ্ধভাবে রুখতে হবে, দেশকে সুশাসনের দিকে নিয়ে যেতে হবে।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow