Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৪ আগস্ট, ২০১৭

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৪ আগস্ট, ২০১৭
প্রকাশ : সোমবার, ১৩ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ১২ মার্চ, ২০১৭ ২৩:৫০
বিক্ষোভের ঢেউ আছড়ে পড়ে চট্টগ্রামেও
এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরী
বিক্ষোভের ঢেউ আছড়ে পড়ে চট্টগ্রামেও

একাত্তরের অগ্নিঝরা মার্চের শুরুর দিকটাও ছিল আমাদের জন্য উত্তেজনার। ১ মার্চ পাকিস্তান জাতীয় পরিষদের অধিবেশন স্থগিত ঘোষণা করলে বিক্ষোভের ঢেউ চট্টগ্রামেও আছড়ে পড়ে।

তখন স্লোগান ওঠে ছাত্র-জনতার : ‘বীর বাঙালি অস্ত্র ধর, বাংলাদেশ স্বাধীন কর’, ‘মুজিব তুমি ঘোষণা কর, বাংলাদেশ স্বাধীন কর’, ‘পিন্ডি না ঢাকা ঢাকা-ঢাকা’। জেনারেল ইয়াহিয়া খান জাতীয় পরিষদ অধিবেশন স্থগিতের যে ঘোষণা দেন, তা বেতারে শোনার পর আমি মৌলভী সৈয়দসহ অন্যদের নিয়ে রাইফেলস ক্লাবের পাশে শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে সমবেত হই। সেখানে সর্বদলীয় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ থেকে পরদিন ২ মার্চ হরতাল এবং লালদীঘি ময়দানে জনসভার প্রস্তুতি নেই। এ জনসভায় পাকিস্তানি পতাকা পোড়ানো হয়। রেয়াজুদ্দিন বাজার থেকে কাপড় কিনে বাংলাদেশের পতাকা তৈরি করি। আর সে পতাকা নিয়ে পৃথক মিছিল হয়। সিটি কলেজে নতুন পতাকা উত্তোলন করি। পরে সশস্ত্র যুদ্ধের প্রস্তুতির লক্ষ্যে ‘জয় বাংলা বাহিনী’ গঠিত হলে মৌলভী সৈয়দকে সেই বাহিনীর প্রধান আর উপপ্রধান মনোনীত হই আমি। তখনই গোপনে সিটি কলেজে প্রশিক্ষণ শুরু করি। ৩ মার্চ ঝাউতলা পাহাড়তলী ওয়্যারলেস কলোনিতে বাঙালি-অবাঙালি দাঙ্গায় নারীদের ওপরও বিহারিদের পৈশাচিক নির্যাতন চলে। এ সময় পাকিস্তানি নৌবাহিনীর গুলিতে প্রথম শহীদ হন ভিক্টোরিয়া জুট মিলসের শ্রমিক আবুল কালাম। তার লাশ নিয়ে মিছিল করে ছাত্র-জনতা। তারা লালদীঘি মাঠে এলে সেখানে জনসমাবেশ হয়। আমরা প্রস্তুতি নিতে থাকি ৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর সেই ঐতিহাসিক জনসভার জন্য। ছাত্রনেতাদের নিয়ে জনসভায় যোগ দেই। এতে বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার ডাক আমাদের নতুন শক্তিতে বলীয়ান করে। রেসকোর্স থেকে ফিরেই আমরা রাইফেলস ক্লাব ও মাদারবাড়ী এলাকার অস্ত্র গুদাম থেকে অস্ত্র ও গোলাবারুদ দখলে নেই। চট্টগ্রামে মূলত তখনই আমাদের জনযুদ্ধের প্রস্তুতি। সে সময় লালদীঘি মাঠে জয় বাংলা বাহিনীর কুচকাওয়াজও হয়। সাংস্কৃতিক কর্মীরাও গঠন করেন সংগ্রাম পরিষদ। তৎকালীন ইপিআর, পুলিশ আর অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্যরা যেন

স্টেশন রোডের রেস্ট হাউসে অর্থাৎ আওয়ামী লীগের অঘোষিত অন্যতম নিয়ন্ত্রণকক্ষে যোগাযোগ করেন, সে জন্য মাইকিংও করা হয়। অনেকেই এসে যোগাযোগ করেন। এদিকে, বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতা ঘোষণা করলে সে বার্তা চট্টগ্রামে ছড়িয়ে দিতে আমরা যখন তৎপর তখন পাকিস্তানি কর্নেল জানজুয়ারা সক্রিয় হন স্বাধীনতার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে। বর্তমান চট্টগ্রাম শপিং কমপ্লেক্স এলাকায় (তৎকালীন সিডিএ মার্কেট) বেঙ্গল রেজিমেন্ট জড়ো হয়েছে খবর পেয়ে রাইফেল হাতে আমরা ছুটে যাই। পথিমধ্যে জুবিলি রোডের নেভাল এভিনিউ মোড়ে নৌ সদস্যদের সামনে পড়ি। এ সময় সংঘর্ষ হয়। গ্রেফতার হই আমরা তিনজন। কারাগারে যাওয়ার আগে সিআরবি ক্যাম্পে চরম তৃষ্ণায় পানি খেতে চাইলে সেনা সদস্যরা পানি এনে মুখের কাছে নিয়েও না দিয়ে ফেলে দেয়। এরপর তারা মুখে প্রস াব ঢেলে দেয়। নিউমুরিংয়ে নৌবাহিনীর ঘাঁটিতে বন্দীদের শরীরে জ্বলন্ত সিগারেট চেপে ধরা হতো, নকের ফাঁকে সুই ঢুকিয়ে এবং আঙ্গুল ভেঙে দিয়ে অমানুষিক নির্যাতন করা হতো।

মুক্তিযুদ্ধকালে আমি ছিলাম ‘মাউন্টেন ডিভিশনে’। আমার সঙ্গে ছিলেন ৩০০ মুক্তিযোদ্ধা, আর ১৫০ তিব্বতি ফোর্স। যুদ্ধে মাউন্টেন ডিভিশন বিশেষ অবদান রাখে। মুক্তিযুদ্ধের সূচনালগ্নে কারাবন্দী অবস্থা থেকে পাগলের বেশে মুক্ত হয়েছিলাম। এরপর ওপার বাংলায় গিয়ে প্রশিক্ষণ নিয়ে পার্বত্য চট্টগ্রামের দুর্গম পথেই কাটিয়েছি দিনের পর দিন। বাঙালি জেলার খালেকের পরামর্শে পাগলের অভিনয় করেছিলাম জেলখানায়। তাই কারা কর্তৃপক্ষ ‘পাগল’কে মুক্তি দেয়। কারামুক্তির তিন দিন পর রামগড় সীমান্ত হয়ে ভারতের সাবরুমে যাই। সেখান থেকে হরিণা ইয়থ ক্যাম্পে। দেখি ওই ক্যাম্পে আমার নামে নামকরণ হয়েছে একটি ব্যারাকের। ‘শহীদ মহিউদ্দিন ব্যারাক’। আগে যাওয়া যোদ্ধাদের ধারণা হয়েছিল, আমি বেঁচে নেই। তাই আমার নামেই নামকরণ। আমাকে সশরীরে দেখে উল্লাসে ফেটে পড়েন তারা। সেখান থেকে আগরতলায় গিয়ে জহুর আহমদ চৌধুরীর সঙ্গে দেখা করি। মণি ভাই মানে শেখ ফজলুল হক মণি আমাকে নিয়ে যান কলকাতায়। অন্য সহযোদ্ধাদের উত্তরপ্রদেশের তান্ডোয়া সামরিক প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে পাঠিয়ে দিয়ে সেখানেই আমাকে তেরতম স্কোয়াড কমান্ডার এবং পরে শেখ মণির নেতৃত্বাধীন পূর্বাঞ্চলীয় মাউন্টেন ডিভিশনের প্লাটুন কমান্ডার করা হয়। মাউন্টেন ডিভিশন ভারত-বাংলাদেশ সীমান্ত এলাকায় ভারতীয় সেনাবাহিনীর সহায়তায় মিজো বাহিনী ও পাক বাহিনীর সঙ্গে যুদ্ধ করে। আদিবাসীদের অনেকেই সহযোগিতা করেন। পার্বত্য চট্টগ্রামে আদিবাসীদের বোঝাতে চেষ্টা করতাম, দেশ স্বাধীন হলে কেউ বৈষম্যের শিকার হবে না। বিজয়ের উষালগ্নে মিজো বাহিনীর বিরুদ্ধে আমরা যখন মুখোমুখি তখন সহযোগিতার জন্য মিত্রবাহিনীর ছত্রীসেনা পাঠানো হয়। মিজোরা পিছু হটে। বিজয়ের পতাকা উড়িয়ে ১৭ ডিসেম্বর চট্টগ্রাম হানাদারমুক্ত হলে ১৮ ডিসেম্বর আমরা স্বাধীন দেশে ফিরে আবারও সিটি কলেজে ক্যাম্প করে অবস্থান নিই। বঙ্গবন্ধুর নির্দেশে চট্টগ্রাম ও দেশ গঠনের আরেক নতুন যুদ্ধে নামি আমরা মুক্তিযোদ্ধারা।

অনুলিখন : রিয়াজ হায়দার, চট্টগ্রাম

এই পাতার আরো খবর
up-arrow