Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৪ ডিসেম্বর, ২০১৭

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৪ ডিসেম্বর, ২০১৭
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১২ অক্টোবর, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ১১ অক্টোবর, ২০১৭ ২৩:৫৮
গো য়ে ন্দা কা হি নী ৪১
বাদীই যখন খুনি
মির্জা মেহেদী তমাল

বাথরুমে পড়ে আছেন ৮০ বছরের বৃদ্ধা শরিফুন্নেসা। পুরো বাথরুম রক্তে ভেসে যাচ্ছে। তাকে জবাই করে হত্যা করা হয়েছে। ঘরের মালামাল লণ্ডভণ্ড। সংবাদ পেয়ে পুলিশ ছুটে আসে। লাশের সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরি করছে তারা। গোয়েন্দারাও ফ্ল্যাটের আনাচে-কানাচে খুঁজে দেখছেন খুনের  কোনো সূত্র খুঁজে পাওয়া যায় কিনা। বৃদ্ধার সন্তান ও স্বজনরা ছুটে এসেছেন। মায়ের মৃত্যুতে ভেঙে পড়েছেন ছেলে রফিকুল ইসলাম বাবু। তার আহাজারিতে অনেকেই চোখের পানি ধরে রাখতে পারেননি। গেল বছর ১৬ নভেম্বরে রাজধানীর পল্লবীর একটি ছয়তলা ভবনের নিজ ফ্ল্যাটে খুন হন শরিফুন্নেসা।

পুলিশ তদন্ত করতে গিয়ে কিছুই খুঁজে পায় না। পুলিশের মাথায় কোনোভাবেই ঢুকছে না, অসুস্থ মৃত্যুপথযাত্রী এই বৃদ্ধাকে এভাবে নৃশংসভাবে কেন হত্যা করা হবে? এর পেছনে কী এমন ঘটনা থাকতে পারে যে, খুনিরা বাসায় এসে খুন করে নির্বিঘ্নে পালিয়ে যেতে পারে! পুলিশ ঘটনার রাতে পরিবারের কারও সঙ্গেই কথা বলতে পারেনি। আশপাশে লোকজনের সঙ্গে কথা বলেও কোনো কূলকিনারা পাচ্ছেন না। শরিফুন্নেসার তিন ছেলের মধ্যে দুই ছেলে থাকেন বিদেশে। তার কাছে এক ছেলে রফিকুল ইসলাম থাকতেন পরিবার নিয়ে। শরিফুন্নেসার দুই মেয়ের মধ্যে একজন ছিলেন ভারতে। এ ঘটনায় রফিকুল ইসলাম থানায় বাদী হয়ে মামলা করেন। মামলায় কাউকে আসামি করা হয়নি।

পুলিশ বার বার যায় সেই বাসায়। জিজ্ঞাসাবাদ করে একই লোককে বার বার। নাহ! কোনো ক্লু পায় না। সপ্তাহ পেরিয়ে গেলেও খুনের কোনো সূত্র খুঁজে না পাওয়ায় পুলিশ নিজেই একটু হতাশ। তদন্ত কর্মকর্তা হঠাৎ খেয়াল করেন, বৃদ্ধার ছেলে রফিকুল ইসলামের সম্বন্ধি জাহিদ আসলামকে কদিন ধরে দেখা যাচ্ছে না। বিষয়টা খটকা লাগে তার। ভাবে, ঘটনা কী? কিন্তু খুনের পর তাকে খুব তত্পর দেখা যাচ্ছিল। খুনিদের গ্রেফতার করতে পুলিশকে চাপ দিচ্ছিল। সেই জাহিদের দেখা না পাওয়ায় কর্মকর্তা গোপনে গোপনে তার খোঁজ করতে থাকেন। ৯ দিনের মাথায় সোর্সের মাধ্যমে জাহিদের অবস্থান জানতে পারে পুলিশ। ‘জাহিদ সাহেব, আপনি কোথায়? একটু দরকার ছিল কেসটার ব্যাপারে। একটু থানায় আসেন। ফোনে জাহিদকে জানান পুলিশ কর্মকর্তা। ব্যস্ততার কথা বললেও শেষমেশ থানায় আসার বিষয়ে রাজি হন জাহিদ। থানায় জাহিদকে পেয়ে পুলিশ তাকে বিভিন্ন বিষয়ে জেরা করতে থাকে। একপর্যায়ে তদন্ত কর্মকর্তার সরাসরি প্রশ্ন কেন খুন করলেন এমন একজন বৃদ্ধা মহিলাকে? ভ্যাবাচ্যাকা খান জাহিদ। বলেন, আমি কেন খুন করতে যাব? পুলিশ তার চোখমুখ খেয়াল করে। কেমন যেন অপরিচিত মনে হচ্ছে তদন্ত কর্মকর্তার কাছে। তিনি ভাবছেন, মনে হয় ঘটনার রহস্য উদঘাটন হতে যাচ্ছে। আমার কাছে তথ্য-প্রমাণ রয়েছে। তাই আপনাকে প্রশ্ন করলাম। সোজাসাপটা প্রশ্নের সোজাসাপটা জবাব দেন। নইলে কপালে আপনার খারাবি আছে। ভয় পান জাহিদ। তিনি নিশ্চিত পুলিশ সব জেনে ফেলেছে। জাহিদ মুখ খোলেন। ফাঁস করেন খুনের নেপথ্য কাহিনী। ঘটনা শুনে পুলিশ হতবাক। স্থির হয়ে বসে থাকে কিছুক্ষণ। ভাবে, এটা কীভাবে সম্ভব! এরপর পুলিশ খুনের পরবর্তী দিনগুলোতে প্রত্যেকের ভূমিকা, আচরণ মনে করার চেষ্টা করে। জাহিদের কাছে পাওয়া তথ্যগুলো মিলে যাচ্ছে। পুলিশ ধীরে ধীরে বিশ্বাস করতে শুরু করে। ব্যাপক জেরার মুখে সব ফাঁস করে দেন। ধরা পড়েন আসল খুনি। এই খুনি আর কেউ নন,  যিনি খুনের পর লাশ ধরে আহাজারি করছিলেন, বলছিলেন-ওমা, তোমার এই কাজটা কে করল? মা আমি কারে নিয়ে থাকুম। তিনি হলেন, বৃদ্ধার ছেলে রফিকুল ইসলাম। আর তার সঙ্গে ছিলেন সম্বন্ধি জাহিদ আসলাম এবং বন্ধু শওকত। জাহিদ পুলিশকে জানান, রফিকুলের নির্দেশে তার বৃদ্ধা মাকে হত্যা করা হয়েছে। স্ত্রীর চিকিৎসার খরচের জন্য নিজ মাকে জবাই করে হত্যা করেন রফিকুল। পুলিশ রফিকুল ও তার বন্ধু শওকতকে গ্রেফতার করে। ঘটনার সময় রফিকুলের স্ত্রী ছিলেন হাসপাতালে। হাসপাতালে স্ত্রীর সেবা-যত্নের পর বাসায় ফিরেই মাকে জবাই করেন। স্ত্রীর প্রতি বিকৃত ভালোবাসার কাছে জন্মদাত্রী মমতাময়ী মাতৃত্বের করুণ পরাজয় ঘটে। তদন্তসংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, খুনের পর অপরাধ ঢাকতে বাবু নানা নাটকীয়তার আশ্রয় নেন। প্রথমে নিজে বাদী হয়ে পল্লবী থানায় দুই আইনজীবী পাঠিয়ে মামলা করেন। কিন্তু সন্দেহভাজন নেই উল্লেখ করেন। আবার তদন্ত ও রহস্য উদঘাটনে অনীহা দেখায়। খুনের পর থেকে অসুস্থতার ভান করে নানা কৌশলে এড়িয়ে যাচ্ছিলেন মায়ের দাফন-কাফন ও মামলায় নিজের দায়িত্ব ও আনুষ্ঠানিকতা। সে চেষ্টা বেশি দিন স্থায়ী হয়নি। ঘটনার এক সপ্তাহ পর গ্রেফতার হন তার সহযোগী জাহিদ। এরপর উদঘাটন হয় রহস্য। পরদিন সে আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়। এতে সেই ঘটনার রোমহর্ষক বর্ণনা দেয় খুনিরা। জানায় তারা তিনজন কীভাবে অসহায় বৃদ্ধার জীবননাশ করে। এরপর গত বৃহস্পতিবার গ্রেফতার হয় বাবু নিজে এবং তার ছোটবেলার বন্ধু ও বাসার নিচতলার ভাড়াটিয়া শওকত আলী। তদন্তসংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ২০০৬ সালে প্রেমের বিয়ের পর থেকে নিঃসন্তান রফিকুল-লকেট (৩৫) দম্পতি। টেস্টটিউব বেবি নেওয়ার জন্য পাশের দেশ ভারতে গিয়ে চিকিৎসা করে আসছিল। এ জন্য খরচ হয় ২০ লাখ টাকার বেশি। এক ভাগ্নে থেকে ধার করে ১ লাখ টাকা। অপর একটি প্রতিষ্ঠান থেকে ২ লাখ টাকা। আরও বিভিন্নজনের কাছ থেকে ধার করে বিভিন্ন অঙ্কের টাকা। এরপরও স্ত্রীর ব্যয়বহুল চিকিৎসায় খরচের টান পড়ে। তাছাড়া নিজের নানা সমস্যায়ও ধার-দেনা বাড়ে। তবে বৃদ্ধা মা শরিফুন্নেসার মিরপুরের সেনপাড়ার অগ্রণী ব্যাংক শাখার অ্যাকাউন্টে ১৫ লাখ ২২ হাজার টাকা ছিল। নিজের স্ত্রীর চিকিৎসার খরচ মেটাতে বেশ কিছুদিন ধরে মায়ের ওই টাকার জন্য চাপ দিচ্ছিল। মা তাকে টাকা দিতে রাজি না হওয়ায় ঘটনার কয়েক দিন আগে তাকে খুন করার পরিকল্পনা করে। এরই মধ্যে স্ত্রী লালমাটিয়ায় অবস্থিত সিটি হাসপাতালে এক কন্যাসন্তানের জন্ম দেয়। চিকিৎসার জন্যও টাকার প্রয়োজন। ঘটনার দিন ১৬ নভেম্বর দুপুরে বাবু বাসা থেকে হাসপাতালে যায়। তখন রাস্তায় দেখা হয় জাহিদের সঙ্গে। তখন রফিকুল বলে রাত ১১টায় বাসায় দেখা করবি। কাজ আছে। এরপর সে স্ত্রীর কাছে হাসপাতালে চলে যায়। সেখানে রাত সাড়ে ১০টা পর্যন্ত ছিল। স্ত্রীর জন্য ওষুধপথ্য কিনে দেয়। সেবা-যত্ন করে। এরপর হাসপাতাল থেকে রফিকুল বাসার দিকে যায়। বাসায় ওঠার সময় নিচতলার ভাড়াটিয়া ছোটবেলার বন্ধু শওকতসহ রফিকুল তৃতীয়তলায় উঠে। কথামতো রাত সাড়ে ১১টায় একই বাসায় ওঠেন জাহিদ। তারপরই রফিকুল বৃদ্ধা মা শরিফুন্নেসাকে জোরে গলা ধাক্কা দেন। এতে তিনি ছিটকে গিয়ে বাথরুমের দেয়ালে আছড়ে পড়ে মেঝেতে পড়ে যান। অচেতন হয়ে পড়েন। তারপর রফিকুল বলে ‘খালাস করেন। পা ধরেন। ’ পরে জাহিদকে ধমক দিয়ে বলে, ‘পা ধর’। তখন জাহিদ দুই পা চেপে ধরে। শওকত গলায় ছুরির পোঁচ দিয়ে গলা কাটে। এরপর ছুরি রফিকুল নিয়ে নেয়। একটি আলমারির পেছনে ফেলে রাখে। তারপর বলে এখন আপনারা ‘সেইফ হন। চলে যান। ’ তারপর জাহিদ আগে কক্ষ থেকে বের হয়। এরপর বের হয় শওকত। হত্যাকাণ্ডের বেশ কিছুক্ষণ পর রাত ১২টার দিকে রফিকুল ওই ঘরে ‘আমার মাকে কারা খুন করেছে’ বলে কেঁদে ওঠেন। লোকজনকে শুনানোর উদ্দেশে বিলাপ জুড়ে দেন। তা শুনে আশপাশের লোকজন ওই বাসায় ভিড় জমান। পুলিশ এসে রাতেই লাশ উদ্ধার করে। তখন রক্ত কিছুটা জমাট বেঁধে যায় বলে জানান মামলার তদন্ত কর্মকর্তা। শরিফুন্নেসার স্বামী মুক্তিযোদ্ধা ও সেনাবাহিনীর সাবেক হাবিলদার মহব্বত আলী ২৫ বছর আগে ১৯৯১ সালে মারা যান। তার ৩ ছেলে ও ২ মেয়ে। রাজধানীতে তাদের বেশ কিছু জায়গা-সম্পত্তি ছিল। অনেক আগেই তা ভাগ হয়ে গেছে। আর বৃদ্ধা মা শরিফুন্নেসা থাকতেন দেশে থাকা ছেলে রফিকুলের কাছে। ওই বাসায় ফ্ল্যাটে রফিকুল ও তার মা থাকতেন। অন্যান্য ফ্ল্যাটে থাকতেন রফিকুলের শাশুড়ি ও শ্বশুরবাড়ির এক নারী। কিন্তু রফিকুলের স্ত্রী থাকতেন অন্য ফ্লাটে। শাশুড়ির দেখাশোনা করতেন না। উল্টো তার সঙ্গে ঝগড়া-বিবাদ করতেন। আর খুনের সহযোগী তার সম্বন্ধি জাহিদের বাসা মিরপুর ৫ নম্বর এভিনিউতে হলেও প্রায় সময় এ বাসায় মায়ের কাছে আসা-যাওয়া করতেন। নিচতলায় থাকতো বাবুর বন্ধু শওকত। রফিকুল নিজে কিছু করত না। মাসে ১ লাখ ৩০ হাজার টাকা বাড়ি ভাড়া পেত। তাই দিয়ে সে চলত। খুনের আগে বৃদ্ধা মা ও বাসার দারোয়ান রাকিব (২২) একসঙ্গে রাতের খাবার খান। এরপর দারোয়ান নিচে নামে। তারপর ছেলে বন্ধুকে নিয়ে বাসায় ওঠে। এরপরই ঘটে মাতৃহত্যার ওই হৃদয়বিদারক ঘটনা। ঘটনার পরদিন রফিকুল বাদী হয়ে মামলা দায়ের করলেও জাহিদ গ্রেফতার ও আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেওয়ার পরই অন্যদিকে মোড় নেয় মামলা। বাদী নিজেই খুন করার বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ায় মামলাটি পরিচালনায় আইনি জটিলতা সৃষ্টি হয়। পরে ওই মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মামলাটির চূড়ান্ত প্রতিবেদন দিয়ে দেন। তারপর ২৫ নভেম্বর তিনি নিজে বাদী হয়ে একই থানায় ওই তিনজনকে আসামি করে অপর একটি হত্যা মামলা করেন। এতে প্রধান আসামি করা হয় রফিকুলকে। দ্বিতীয় আসামি শওকত আলী এবং তৃতীয় জাহিদ। আদালতে স্বীকারোক্তি দেওয়ার পর থেকে তিনজনই কেরানীগঞ্জের ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে রয়েছে। পুলিশ জানায়, স্ত্রীর চিকিৎসার খরচ ও ঋণের টাকার জন্য অপর দুই সহযোগী নিয়ে নিজের বৃদ্ধা মাকে খুন করেন রফিকুল।

up-arrow