Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ৩ মে, ২০১৮ ০০:০০ টা
আপলোড : ২ মে, ২০১৮ ২২:৫৪

তারেক যেদিন মনে করবেন সেদিন দেশে ফিরবেন : বিএনপি

নিজস্ব প্রতিবেদক

তারেক যেদিন মনে করবেন সেদিন দেশে ফিরবেন : বিএনপি

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ‘প্রধানমন্ত্রী ব্রিটিশ সরকারের সঙ্গে আলাপ করছেন, তারেককে দেশে ফিরিয়ে আনবেন। এই ভয় আমাদের দেখাচ্ছেন কেন? বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে দেশে  যদি ফিরে আসতে হয় তিনি আসবেন। যেদিন তিনি মনে করবেন দেশের জন্মগত নাগরিক হিসেবে সেদিন দেশে ফিরে আসবেন। সেদিন আপনারা দেখবেন, তার জনপ্রিয়তা কত এবং মানুষ তাকে কত ভালোবাসে। সেদিন দেখবেন  কোটি কোটি মানুষ তাকে বরণ করার জন্য বিমানবন্দরে গিয়ে হাজির হয়েছে।’ গতকাল বিকালে গণভবনে সংবাদ সম্মেলনে তারেক রহমানকে নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বক্তব্যের পরপরই এক আলোচনা সভায় মির্জা ফখরুল এই প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন। জাতীয় প্রেস ক্লাবে সাবেক এমপি নাসিরউদ্দিন আহমেদ পিন্টুর তৃতীয় মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে নাসিরউদ্দিন আহমেদ পিন্টু স্মৃতি সংসদের উদোগে এক আলোচনা সভায় তিনি একথা বলেন। সংগঠনের সভাপতি সাইদ হাসান মিন্টুর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বরকত উল্লাহ বুলু, সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু, প্রয়াত নাসিরউদ্দিন পিন্টুর স্ত্রী নাসিমা আখতার কল্পনাসহ মহানগর দক্ষিণের নেতৃবৃন্দ বক্তব্য দেন।

তারেক রহমানকে নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য ‘গ্রহণযোগ্য’ নয় বলেও মন্তব্য করেন বিএনপি মহাসচিব। তিনি বলেন, ‘আমাদের যিনি নেতা হয়েছেন আমাদের পার্টির কাউন্সিলে সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত হয়ে সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। আমাদের পার্টির গঠনতন্ত্র অনুযায়ী চেয়ারপারসনের অনুপস্থিতিতে সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান দায়িত্ব নেবেন ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান হিসেবে। আমাদের নেতা আমরা নির্বাচিত করেছি। তাকে যোগ্য নেতা বলেই নির্বাচিত করেছি। এটাতে আপনাদের বলার কিছু নেই, এটা গ্রহণযোগ্য নয়।’ এর আগে বেলা ১১টায় শেরে বাংলা নগরে জাতীয়তাবাদী শ্রমিক দলের ৩৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে সংগঠনের নেতা-কর্মীদের নিয়ে প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের কবরে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন মির্জা ফখরুল। এ সময় বিএনপি নেতা বরকত উল্লাহ বুলু ছাড়াও শ্রমিক দলের সভাপতি আনোয়ার হোসাইন, সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম খান নাসিমসহ শ্রমিক নেতারা উপস্থিত ছিলেন। নেতৃবৃন্দ প্রয়াত নেতার আত্মার মাগফিরাত কামনা করে বিশেষ মোনাজাতে অংশ নেন। মির্জা ফখরুল এ সময় সাংবাদিকদের বলেন, ‘এখন মূল সংকট হচ্ছে নির্বাচনকালীন একটা নিরপেক্ষ সরকার। এই বিষয়টা রাজনৈতিকভাবে নিষ্পত্তি হওয়া দরকার।  সব দলের মধ্যে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে এর একটা সুষ্ঠু সমাধান দরকার যেটা সরকার সবসময় উপেক্ষা করেছে। এ সমস্যা সমাধানের আগে এই বিষয়ে (নির্বাচনকালীন সরকার) কোনো কথা না বলে কখনোই বর্তমান নির্বাচন কমিশনের একতরফাভাবে তফসিল ঘোষণা কোনো দলই মেনে নেবে না। এটা  কখনোই গ্রহণযোগ্য হবে না।’ দেশের বর্তমান পরিস্থিতিতে রাজনীতি কোন দিকে যাচ্ছে প্রশ্ন করা হলে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘এককথায় বলতে চাই,  রাজনীতি একটা ভয়াবহ অন্ধকার গহবরের দিকে আওয়ামী লীগ নিয়ে যাচ্ছে।’ বিনা আলোচনা, বিরোধী দলের সঙ্গে  কোনো কথাবার্তা না বলা, দেশের মানুষের মতামত সম্পূর্ণ উপেক্ষা করে সরকার তাদের ক্ষমতাকে চিরস্থায়ী ও একদলীয় শাসন ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠা করার জন্য রাজনীতিকে অন্ধকার গহবরের দিকে নিয়ে যাচ্ছে।’

নির্বাচনকালীন সরকারের সিদ্ধান্তের আগে তফসিল অগ্রহণযোগ্য : নির্বাচনকালীন সরকারের ইস্যুটি নিষ্পত্তির আগে একাদশ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা কোনো রাজনৈতিক দলই মেনে নেবে না বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, ‘এখন মূল সংকট হচ্ছে নির্বাচনকালীন একটা নিরপেক্ষ সরকার। এ বিষয়টি রাজনৈতিকভাবে নিষ্পত্তি হওয়া দরকার। সব দলের মধ্যে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে এর একটা সুষ্ঠু সমাধান দরকার যেটা সরকার সবসময় উপেক্ষা করেছে। এ সমস্যা সমাধানের আগে এ বিষয়ে (নির্বাচনকালীন সরকার) কোনো কথা না বলে কখনই বর্তমান নির্বাচন কমিশনের একতরফাভাবে তফসিল ঘোষণা কোনো দলই মেনে নেবে না। এটা কখনই গ্রহণযোগ্য হবে না।’ গতকাল বেলা ১১টায় রাজধানীর শেরেবাংলানগরে জাতীয়তাবাদী শ্রমিক দলের ৩৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে সংগঠনের নেতা-কর্মীদের নিয়ে প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের কবরে পুষ্পস্তবক অর্পণ শেষে তিনি এ কথা বলেন। এর আগে নেতৃবৃন্দ প্রয়াত নেতার আত্মার মাগফিরাত কামনা করে বিশেষ মোনাজাতে অংশ নেন। এ সময় দলের ভাইস চেয়ারম্যান বরকতউল্লাহ বুলু, শ্রমিক দলের সভাপতি আনোয়ার হোসাইন, সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম খান নাসিমসহ শ্রমিক নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

দেশের বর্তমান পরিস্থিতিতে রাজনীতি কোন দিকে যাচ্ছে প্রশ্ন করা হলে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘এক কথায় বলতে চাই,  রাজনীতি একটা ভয়াবহ অন্ধকার গহ্বরের দিকে আওয়ামী লীগ নিয়ে যাচ্ছে।’ বিনা আলোচনা, বিরোধী দলের সঙ্গে  কোনো কথাবার্তা না বলা, দেশের মানুষের মতামত সম্পূর্ণ উপেক্ষা করে সরকার তাদের ক্ষমতাকে চিরস্থায়ী ও একদলীয় শাসন ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠা করার জন্য রাজনীতিকে অন্ধকার গহ্বরের দিকে নিয়ে যাচ্ছে।’

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘এ সরকারের লক্ষ্যই হচ্ছে— একতরফাভাবে নির্বাচনে যাওয়া। বেগম খালেদা জিয়াকে কারাগারে রেখে তাদের নির্বাচনে যাওয়া। তারা মনে করছে, এটা নিষ্কণ্টক হয়ে যাবে। আওয়ামী লীগ পুরোপুরি জনবিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। তাদের জনগণের কাছে কোনো ভিত্তি নেই, যাওয়ার কোনো জায়গা নেই। আজকে যদি বিএনপি নির্বাচন করে, বিরোধী দল নির্বাচন করে তাহলে তাদের ভরাডুবি হবে। সে কারণে আজকে তারা গায়ের জোরে ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্য একরতফা একটা নির্বাচন কমিশন গঠন করেছে।’ বর্তমান সরকারকে হটাতে ‘আন্দোলন’-এর জন্য সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বানও জানান তিনি।

২৫টি আসনে নির্বাচন কমিশনের সীমানা নির্ধারণ প্রসঙ্গে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘এই কমিশন নিরপেক্ষ নয়, তাদের সরকার নিয়োগ দিয়েছে, তাদের পছন্দসই লোকদের নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। আমরা এখন পর্যন্ত লক্ষ্য করছি, একটা সুষ্ঠুভাবে জাতীয় নির্বাচন করার কোনো যোগ্যতাই তাদের নেই। সীমানা নির্ধারণের ক্ষেত্রে একই বিষয় অর্থাৎ সরকার যা নির্দেশ দিচ্ছে নির্বাচন কমিশন তাই করছে। একতরফাভাবে যে নীলনকশা সেদিকেই তারা যাচ্ছে।’ গাজীপুর ও খুলনা সিটি করপোরেশনের আসন্ন নির্বাচন নিরপেক্ষ হবে কিনা তা নিয়েও সংশয় প্রকাশ করেন বিএনপি মহাসচিব। তিনি বলেন, ‘সবাই জানে সিটি করপোরেশন নির্বাচনে কী ঘটছে? আমরা প্রথমবার বলেছিলাম, গাজীপুরে যে এসপি রয়েছেন তাকে সরাতে হবে। এর পরের যে বিভিন্ন ঘটনা ঘটেছে একসঙ্গে আমাদের শরিক দলের ৪৫ জন নেতা-কর্মীকে গ্রেফতার করা হলো। যিনি নির্বাচনের প্রার্থী হয়েছিলেন, তাকেও গ্রেফতার করা হলো। এখানে পুলিশ প্রশাসন তো নিরপেক্ষ ভূমিকা পালন করছে না। সে জন্যই এই নির্বাচনগুলো সুষ্ঠু হওয়ার কোনো কারণ আছে বলে মনে করি না।’


আপনার মন্তব্য