Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : শনিবার, ১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ৩১ আগস্ট, ২০১৮ ২৩:২৩
এটাই গণতন্ত্রের সৌন্দর্য : কাদের
নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা ও সিলেট

জাতীয় নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার নিয়ে নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদারের অবস্থানকে গণতন্ত্রের সৌন্দর্য হিসেবে দেখছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেছেন, নির্বাচন কমিশন তো পাঁচজনকে নিয়ে। পাঁচজনের মধ্যে একজন নোট অব ডিসেন্ট দিতেই পারেন। ভিন্নমত থাকতেই পারে। এটাই তো গণতন্ত্রের বিউটি (সৌন্দর্য)। গতকাল সকালে সিলেট সার্কিট হাউসে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, নির্বাচনে হেরে গিয়ে অনিয়ম ও কেন্দ্র দখলের অভিযোগ দেখাতে পারবে না বলেই ইভিএম চাচ্ছে না বিএনপি। তবে নির্বাচন ফ্রি অ্যান্ড ফেয়ার করতেই আমরা ইভিএম সাপোর্ট করি। ইভিএম-এ অভিযোগ তোলার কোনো সুযোগ নেই। আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, নির্বাচন কমিশনেও গণতন্ত্র আছে। নোট অব ডিসেন্ট দেওয়ার অধিকার তার (নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার) আছে। এর জন্য জটিলতা তৈরি হবে কেন? একজনের মত যেমন আছে, গণতান্ত্রিক ধারায় বাকি চারজনেরও মত আছে। তারা সিদ্ধান্ত নিতে পারেন। তিনি বলেন, নির্বাচন সম্পর্কে মানুষের খারাপ ধারণা দূর করতেই আমরা ইভিএম চাই। ইভিএম হচ্ছে আধুনিক ভোটিং পদ্ধতি। সিলেটেও বিএনপি দুটি ইভিএম-এর কেন্দ্রে জয়ী হয়েছে। তারা জিতলে মানবে হারলেই কারচুপির অভিযোগ তুলবে! আসন্ন নির্বাচনে বিএনপি জয়ী হতে পারবে না বলেই নানা অভিযোগ দিচ্ছে। তিনি বলেন, ২০০১ সালের নির্বাচন ২০১৮ সালে করার চেষ্টা চলছে। তবে এই নীল নকশার নির্বাচন দেশে আর হতে দেওয়া হবে না। তত্ত্বাবধায়ক সরকার দেশে আর আসবে না। নির্দিষ্ট একটা দলের জন্য নির্বাচন থেমে থাকবে না। গণতান্ত্রিক দেশে নির্বাচনে অংশ নেওয়া বিএনপির অধিকার, সুযোগ নয়। কোনো গণতান্ত্রিক দেশে সরকার কোনো দলকে সুযোগ দেয় না। নির্বাচনে আসতে বিএনপির শর্ত প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, যাদের শক্তি, সামর্থ্য আছে, জনগণের প্রতি আস্থা আছে, জন সমর্থনের ব্যাপারে যারা কনফিডেন্ট, তারা এত শর্ত আরোপ করে না। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ, জাহাঙ্গীর কবির নানক, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, অ্যাডভোকেট মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ, এ কে এম এনামুল হক শামীম, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, দফতর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ, সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বদর উদ্দিন আহমদ কামরান, সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শফিকুর রহমান চৌধুরী প্রমুখ।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow