Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : রবিবার, ২ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২৩:০৯
সেলফি তুলতে গিয়ে নৌকাডুবি তিনজনের মৃত্যু
পাবনা প্রতিনিধি
bd-pratidin

পাবনার চাটমোহরের চলনবিলে ঘুরতে এসে সেলফি তুলতে গিয়ে নৌকাডুবে তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। তারা হলেন— ঈশ্বরদী ডাল গবেষণা কেন্দ্রের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা বিল্লাল হোসেন গণির স্ত্রী মমতাজ পারভীন শিউলী (৪৫), একই এলাকার  মোশাররফ হোসেন মুসার স্ত্রী শাহানাজ পারভীন পারুল (৪৫) ও স্বপন হোসেনের মেয়ে সাদিয়া খাতুন।  নিহত তিনজনের লাশ গতকাল উদ্ধার করেছেন ডুবুরিরা। তবে শিউলীর স্বামী বিল্লাল হোসেন গণি ও ঈশ্বরদী আমবাগান এলাকার সাইদুর রহমান বিশ্বাসের ছেলে রফিকুল ইসলাম স্বপন বিশ্বাস (৪৪) এখনো নিখোঁজ আছেন। শুক্রবার রাত ৮টার দিকে চলনবিল ঘুরে তারাশ থেকে ফেরার পথে জেলার চাটমোহর উপজেলার হান্ডিয়ালের পাইকপাড়ায় ২২ জন মানুষ নিয়ে এ নৌকাডুবির ঘটনা ঘটে।

চাটমোহর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সরকার অসীম কুমার বলেন, ঈশ্বরদী থেকে ২২ জনের একটি দল চলনবিল এলাকায় পিকনিকের উদ্দেশ্যে ভাঙ্গুড়া উপজেলার বড়ালব্রিজ থেকে একটি নৌকা ভাড়া করে। দিনভর বিল অঞ্চলে ঘুরে সন্ধ্যায় তারাশ থেকে ফেরার পথে সেলফি তোলার সময় রাত ৮টার দিকে চাটমোহর উপজেলার হান্ডিয়াল বিল এলাকায় নৌকাটি ডুবে যায়। যাত্রীদের চিৎকারে আশপাশের নৌকা ও লোকজন ডুবে যাওয়া নৌকার যাত্রীদের উদ্ধার করে। খবর পেয়ে উপজেলা প্রশাসন, থানা পুলিশ ও পাবনা ফায়ার সার্ভিসের লোকজন ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন। পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের লোকজন এলাকাবাসীকে সঙ্গে নিয়ে স্থানীয়ভাবে উদ্ধারের চেষ্টা চালান। পরে রাত ১২টার দিকে রাজশাহী থেকে ডুবুরি দল এসে পানিতে নামে। রাত দেড়টার দিকে মমতাজ পারভীন শিউলীকে উদ্ধার করা হয়।

পরে গতকাল বেলা ১১টার দিকে ঈশ্বরদীর মোশাররফ হোসেন মুসার স্ত্রী শাহানাজ পারভীন পারুলের (৪৫) এবং দুপুরে শিশু সাদিয়ার লাশ উদ্ধার করা হয়। রাজশাহী থেকে আসা ডুবুরি দলের প্রধান মো. নূরন্নবী বলেন, বিলের এই ক্যানেলটিতে স্রোত থাকায় লাশ ভেসে গেছে বলে মনে হচ্ছে। আমরা ভাটিতেও উদ্ধার তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছি। হয়তো পাওয়া যাবে বাকিদের লাশ। পাবনা ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশনের উপ-পরিচালক সাইফুল ইসলাম বলেন, আমরা সাধ্যমতো উদ্ধার অভিযান চালাচ্ছি। ইতিমধ্যে আমরা বিলের পানির মধ্যে নৌকাটির অবস্থান পেয়েছি।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow