Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : সোমবার, ৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ২ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২৩:৪২
একান্ত সাক্ষাৎকারে কে এম সফিউল্লাহ
বঙ্গবন্ধুকে সেদিন রক্ষা করতে পারিনি টুঙ্গিপাড়ায় মাজারে যেতে লজ্জা হয়
মাহমুদ আজহার
বঙ্গবন্ধুকে সেদিন রক্ষা করতে পারিনি টুঙ্গিপাড়ায় মাজারে যেতে লজ্জা হয়
bd-pratidin

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় কিছুই করতে না পেরে অনুতপ্ত ওই সময়কার সেনাপ্রধান বর্তমানে অবসরপ্রাপ্ত মেজর জেনারেল কেএম সফিউল্লাহ বীরউত্তম। তিনি বলেন, ‘আমি সেনাপ্রধান ছিলাম কিন্তু বঙ্গবন্ধুকে রক্ষা করতে পারিনি। কথাটা হয়তো সত্যি। কিন্তু সেনাপ্রধান সরাসরি সৈনিকদের কমান্ড করে না। কমান্ডিং অফিসারকে নির্দেশ দেওয়া হয়। ওইদিন আমি ফেল করেছি। কমান্ডিং অফিসার আমার কথা শুনেননি। অন্য কারও কথা শুনেছেন। সেদিন ঊর্ধ্বতন প্রায় সব অফিসারই বঙ্গবন্ধু হত্যার ষড়যন্ত্রে ছিলেন। আমি তাদের ষড়যন্ত্র বুঝতে পারিনি। এটা আমার ব্যর্থতা ছিল। এ কারণে এখন টুঙ্গিপাড়া যেতে লজ্জা হয়। সেখানে গেলে মানুষ টিপ্পনী কেটে বলতে পারেন, আপনি সেনাপ্রধান ছিলেন। টুঙ্গিপাড়ায় মাজারে আসতে পারেন, সেদিন কেন বঙ্গবন্ধুকে রক্ষা করতে পারেননি। যাকে রক্ষা করতে পারেননি, তার মাজারে আসেন কেন? এজন্যই আমার লজ্জা হয়, অনুতাপ হয়।’

গতকাল দুপুরে গুলশানে নিজ বাসভবনে বাংলাদেশ প্রতিদিনকে দেওয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে এসব কথা বলেন মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম এই সেক্টর কমান্ডার। গতকাল ছিল তার ৮৪তম জন্মদিন। দিনভর বন্ধু-বান্ধব, নিকটাত্মীয়, ভক্ত-অনুরক্তরা তাকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান। ৮৫ বছরে পা দেওয়া কেএম সফিউল্লাহ বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু বেঁচে থাকলে আরও আগেই উন্নত দেশ হয়ে যেত। কিছু স্বার্থান্বেষী ও স্বাধীনতাবিরোধী চক্র বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছে। সেই চক্রের নায়ক ছিলেন খন্দকার মোশতাক।’

বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের প্রেক্ষাপট তুলে ধরে সাবেক এই সেনাপ্রধান বলেন, ‘১৫ আগস্ট ভোরে ফজরের নামাজের পর পর আমি জানতে পারলাম বঙ্গবন্ধুর বাড়িতে আক্রমণ করা হয়েছে। এ বিষয়ে আমাকে রিপোর্ট করেন কর্নেল সালাউদ্দিন নামে এক সেনা অফিসার। আমি তাকে বললাম, তুমি কি ঢাকা ব্রিগেড কমান্ডারকে বলেছ? সে বলল, এখনো বলিনি, যাচ্ছি। আমি তাকে বললাম যাও তুমি দ্রুত গিয়ে বল। তার কাছে তিনটি ব্যাটালিয়ন আছে। এগুলো নিয়ে প্রতিহত করতে হবে। তাকে পাঠিয়ে দিয়ে আমি নিজেই বিভিন্নজনকে টেলিফোন করলাম। এ সময় জিয়াউর রহমান ও খালেদ মোশাররফ আমার বাসায় এসেছেন। তাদেরও আমি বলেছি। এ সময় খালেদ মোশাররফকে পাঠাচ্ছিলাম, শাফায়াত জামিলকে সক্রিয় করার জন্য। কিন্তু জিয়াউর রহমান বার বার না করছিলেন। আমার তখনই মনে হচ্ছিল, সবকিছুই আমার নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেছে। আমি কোথাও ইতিবাচক সাড়া পাচ্ছি না। এখন বুঝতে পারছি, বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ড ছিল পূর্বপরিকল্পিত।’

কেএম সফিউল্লাহ বলেন, ‘ওই সময় আমি বঙ্গবন্ধুর বাসায় অন্তত ২০-২৫ বার তার ফোনও দিলাম। তারপর আলাদা আরেকটি সরাসরি ফোনে আমার স্ত্রীর কাছে দিয়ে বললাম, তুমি বার বার চেষ্টা কর। কিন্তু তিনিও চেষ্টা করে পেলেন না। এর মধ্যে খালেদ মোশাররফসহ অনেককেই নির্দেশনা দিয়েছি। শাফায়াত জামিলকেও বলেছি, তোমার কাছে তিনটি ব্যাটালিয়ন আছে, এগুলো পাঠাও। কিন্তু সে আমার নির্দেশনা মানেনি। অন্য কারও নির্দেশনা মেনেছিল। মনে হয় খন্দকার মোশতাকের কথাই  সে শুনেছিল।’

সাবেক এই সেনা কর্মকর্তা বলেন, ‘এক ফাঁকে আমি একবার বঙ্গবন্ধুকে ফোনে পেয়েও গেলাম। আমার গলার আওয়াজ শুনেই বঙ্গবন্ধু বলে উঠলেন, সফিউল্লাহ তোমার ফোর্স আমাকে আক্রমণ করছে। তারা কামালকে মনে হয় মেরেই ফেলেছে। জলদি তুমি ফোর্স পাঠাও। আমি তখন বললাম স্যার, ‘আই এম ডুয়িং সামথিং’। তখন আমি শাফায়াত জামিলকে নির্দেশ দিয়ে ফেলেছি। আমি তাঁকে বললাম, আপনি কি বাড়ি থেকে কোনোভাবে বেরিয়ে যেতে পারবেন? কিন্তু কোনো উত্তর এলো না। আমি হ্যালো হ্যালো ... করছি। এর কিছুক্ষণের মধ্যেই কিছু গুলির আওয়াজ শুনতে পাই। এই গুলিতেই সম্ভবত বঙ্গবন্ধুকে মেরে ফেলা হয়।’

তিনি বলেন, ‘এর কিছুক্ষণ পর মেজর ডালিম এসে অস্ত্রের মুখে বাসা থেকে আমাকে নিয়ে যায় রেডিও স্টেশনে। এয়ার চিফ ও নৌবাহিনীর প্রধানকেও নিয়ে আসা হয়। সেখানে যাওয়ার পর  দেখি খন্দকার মোশতাক একটি কামরায় বসা। এ সময় তিনি আমাদের অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, তোমরা অনেক করেছ, এখন বিশ্রাম কর। কী করেছি জানতে চাইলে তিনি বলেন, তোমরাই ভালো জানো। কিন্তু আমি কিছুটা ক্ষিপ্ত হয়ে বেরিয়ে যেতে চাইলে দরজা বন্ধ করে দেওয়া হয়। তখন আমাকে অন্য একটা কামরায় নিয়ে যাওয়া হয়। তখন তাহের উদ্দিন ঠাকুর নামে এক ব্যক্তি মোশতাক সরকারের প্রতি আনুগত্যের একটি বাণী নিয়ে এসে আমাকে অস্ত্রের মুখে পড়তে বলা হয়। আমরা এটা পড়েছি। পরে তারা এটা রেডিওতে প্রচার করে। বঙ্গভবনে এক কাপড়ে আমাকে ১৫ আগস্ট থেকে ১৮ আগস্ট পর্যন্ত আটকে রাখা হয়। কোথাও যেতে দেওয়া হয়নি।’

সেক্টর কমান্ডার কেএম সফিউল্লাহ বলেন, ‘এক পর্যায়ে খন্দকার মোশতাক রাষ্ট্রপতির শপথবাক্য পাঠ করলেন। আমিও পাশে বসা। তখন আমি তাকে বললাম, বঙ্গবন্ধুকে কোথায় দাফন করাব। সংসদ ভবন না জাতীয় চার নেতার ওখানে? তখন তিনি উত্তরে বললেন, রাস্তাঘাটে তো কত লোক মরে পড়ে থাকে। আমার কি সবার কথা চিন্তা করতে হবে? ঢাকার বাইরে কোনো এক জায়গায় দাফন করা যেতে পারে। তবে কোনোভাবেই ঢাকায় যেন না হয়। পরে বঙ্গবন্ধুর মরদেহ একটি হেলিকপ্টারে করে টুঙ্গিপাড়ায় নিয়ে দাফন করা হয়। আমাকে সেদিন টুঙ্গিপাড়ায় যেতে দেওয়া হয়নি।’

তিনি বলেন, ‘আমি সেনাবাহিনীর প্রধান থাকলেও ওই সময় আজকের মতো পরিস্থিতি ছিল না। সেনাবাহিনীর তেমন কার্যক্রমও ছিল না। আমি ষড়যন্ত্র আগে বুঝতে পারলে তো পরিস্থিতি অন্যরকম হতো। আমি ঢাকা ব্রিগেড কমান্ডারকে তো বললাম। কিন্তু তিনি তো আমার কথা শুনেননি। এটা আগে থেকেই পরিকল্পিত ছিল।’

সাবেক এই সেনাপ্রধান আরও বলেন, ‘আর্টিলারি ও আরমার সেনাবাহিনীর দুটি ইউনিট সেদিন অভিযানে ছিল। মানুষ জিজ্ঞাসা করতে পারে, এরা রাতে বেরোলো, আপনি বুঝতে পারলেন না? আসলে ওটা ছিল নাইট ট্রেনিং। মাসে দুবার তারা নাইট ট্রেনিং করে। সেটা হলো বৃহস্পতি-শুক্রবার রাতে। সেদিন ছিল ওই রাত। ওই রাতে যখন তারা বেরিয়েছে, ক্যান্টনমেন্টের মানুষজন মনে করেছিল, তারা নাইট ট্রেনিং করেছিল। তারা রাত আড়াইটার দিকে যায়। প্রস্তুতি নিতে কিছু সময় নেয়। মনে হয় সকাল সোয়া ৬টার মধ্যেই বঙ্গবন্ধুকে মেরে ফেলা হয়।’

এই পাতার আরো খবর
up-arrow