Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : বুধবার, ৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২২:৫৫
সংসদের এই অধিবেশনে পাস সড়ক আইন : কাদের
নিজস্ব প্রতিবেদক

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, কিশোর কিশোরীরা রাস্তায় নেমেছিল বলে সড়ক পরিবহন আইন আলোর মুখ দেখেছে। আগামী সংসদ অধিবেশনে আইনটি পাস হবে। তবে তড়িঘড়ি করে এ আইন করায় বিভিন্ন ত্রুটির বিষয়ে তিনি বলেন, সংসদীয় কমিটিতে এই আইন যাবে। তখন বিশেষজ্ঞদের ডাকা হবে। গতকাল সচিবালয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ে সড়ক দুর্ঘটনা বিষয়ে বুদ্ধিজীবী, বিশেষজ্ঞ এবং পরিবহন নেতৃবৃন্দের সঙ্গে মতবিনিময় কালে এসব কথা বলেন মন্ত্রী। হঠাৎ করে সড়ক দুর্ঘটনা বেড়ে যাওয়ায় বৈঠকের শুরুতে সড়কমন্ত্রী পরামর্শ চান বুদ্ধিজীবী, বিশেষজ্ঞ এবং পরিবহন নেতাদের কাছে। এ সময় নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলনের প্রধান চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, ওভারটেক এবং আনফিট গাড়ির কারণে দুর্ঘটনা বাড়ছে। চালকদের শাস্তি ৭ বছরের জায়গায় ১০ বছর করার দাবি জানান তিনি। বিনা লাইসেন্সে চালক গাড়ি চালিয়ে মানুষ হত্যা করলে তার ৩০২ ধারায় শাস্তি দাবি করেন।এ ছাড়া চালক এবং হেলপার দুজনের শিক্ষাগত যোগ্যতা অষ্টম শ্রেণি করা, ইন্স্যুরেন্সের বিষয়টিও নতুন আইনে তেমন মনোযোগ দেওয়া হয়নি। বুয়েটের এক্সিডেন্ট রিসার্চ ইনস্টিটিউটের পরিচালক প্রফেসর মিজানুর রহমান বলেন, দুর্ঘটনায় চালকদের বেপরোয়া মনোভাব দায়ী। এর কারণ চুক্তিভিত্তিতে গাড়ি চালানো। যে দুর্ঘটনায় আমরা সজাগ হয়েছি সে দুর্ঘটনাও এই কারণে ঘটে। তিনি বলেন, মুম্বাই আর ঢাকার শহরে জনসংখ্যার ঘনত্ব সমান। মুম্বাইতে প্রতিটি বাস দিনে ১৩৩০ জন যাত্রী নেয়। আর ঢাকায় একটি বাস মাত্র ৫০০ যাত্রী নেয়। কোম্পানি হলে বাসের যাত্রী বাড়বে। মুনাফাও বাড়বে মালিকদের। তখন প্রতিদিন ৫০০ যাত্রীর জায়গায় ১২০০ থেকে ১৩০০ যাত্রী নেওয়া যাবে। আর মহাসড়কে দুর্ঘটনার প্রধান কারণ বলা হয় গতি। তার থেকে বড় কারণ নন স্ট্যান্ডার্ড গাড়ি যখন কম গতিতে চলে। গতির পার্থক্য থাকার কারণে দুর্ঘটনার আশঙ্কা বেড়ে যায়। স্থপতি মোবাশ্বের হোসেন বলেন, প্রথমে মহাসড়ক করার আগে সার্ভিস রোড করতে হবে। সড়কের পাশে শিল্প কারখানা বাজার সরাতে হবে। ডিজাইনে এগুলো হয় কিন্তু বাস্তবে হয় না। কলামিস্ট সৈয়দ আবুল মকসুদ বলেন, সড়ক পরিবহন আইন পুনর্বিবেচনা করা হোক। এ আইনে অনেক ত্রুটি রয়ে গেছে। সড়ক দুর্ঘটনা রোধে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা বাস্তবায়ন হয় না— এটা কত বড় অগ্রাহ্যকর বিষয়।

বাস মালিক নেতা  ফারুক তালুকদার সোহেল বলেন, দুর্ঘটনার বড় কারণ প্রতিযোগিতা। এর জন্য ফ্রাঞ্চাইজি বাস চালু করতে হবে। ঢাকা শহরে মোড়ের মধ্যে বাস, ট্রাক দাঁড়িয়ে থাকে। ঢাকা শহরের গাড়ির দরজা হাইড্রোলিক পদ্ধতি করার জন্য সুপারিশ করেন তিনি। বিআরটিএ চেয়ারম্যান মশিয়ার রহমান বলেন, ডিসেম্বরের পরে লাইট ভেহিকেলের লাইসেন্স দিয়ে বাস, ট্রাক চালানো যাবে না।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow