Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : শুক্রবার, ৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২৩:১২
ডেটলাইন অক্টোবর
টান টান উত্তেজনা । গঠন হবে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে নির্বাচনকালীন সরকার । খালেদা-তারেককে নিয়ে আন্দোলনে থাকবে বিএনপি জোট । ছোট ফ্রন্টগুলো মিশে যাবে বড়দের সঙ্গে । রাজনীতিতে নানা মেরুকরণ
মাহমুদ আজহার ও রফিকুল ইসলাম রনি
bd-pratidin

আগামী অক্টোরবকে ঘিরে টানটান উত্তেজনা রাজনীতিতে। নানা শঙ্কার মধ্যেও সরকার পূর্ণ আস্থা নিয়েই শেখ হাসিনার নেতৃত্বে নির্বাচনকালীন সরকার গঠন করবে। ছোট করে আনা হবে মন্ত্রিসভা। তবে জাতীয় পার্টি ও ১৪ দলে থাকা বামদের প্রতিনিধিত্ব থাকবে মন্ত্রিসভায়। বাদ পড়বেন বিতর্কিত ও বয়স্ক মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীরা। অন্যদিকে সব চ্যালেঞ্জ নিয়ে মাঠে নামার প্রস্তুতি নিচ্ছে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০-দলীয় জোট। ভোটে যাওয়া না যাওয়া, বিএনপি-প্রধান বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও তারেক রহমানের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলায় সাজার প্রতিবাদ জানিয়ে মাঠ কাঁপানো আন্দোলনের পূর্ণ প্রস্তুতিও নিচ্ছে দলটি। জামায়াতে ইসলামীর সঙ্গে সম্পর্কের ধারাবাহিকতা গোপনে রাখবে বিএনপি। তবে জামায়াতকে তাদের আসনে ছেড়ে দেওয়া হবে, না ধানের শীষ প্রতীকে নির্বাচন করবে এখনো সিদ্ধান্ত হয়নি। এ ছাড়া ছোট ছোট দলগুলো ফ্রন্ট করে মিশে যাবে প্রধান দুই দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপির সঙ্গে।

নানা মেরুকরণে অক্টোবরকে ঘিরে রাজনীতিতে রয়েছে টানটান উত্তেজনা। আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলোও সর্বোচ্চ সতর্ক। কোনো ধরনের ঝুঁকি তারা রাখতে চায় না। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এরই মধ্যে পৃথকভাবে কথাও বলেছেন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সঙ্গে। যে কোনো মূল্যে স্বাভাবিক পরিস্থিতি বজায় রাখতে দিকনির্দেশনাও দেওয়া হয়েছে তাদের। স্বাভাবিকভাবেই ভোট সম্পন্ন করতে চায় সরকারি দল। নির্বাচন কমিশনেরও রয়েছে পৃথক প্রস্তুতি। বর্তমান কমিশন তাদের অবস্থান বজায় রেখেই ভোটের সব ধরনের প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে।

সাবেক নির্বাচন কমিশনার মোহাম্মদ ছহুল হোসাইন বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘এখন নির্বাচন কমিশনের সামনে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ। তবে যতদূর শুনেছি, প্রস্তুত নির্বাচন কমিশন। তাদের কার্যক্রমগুলোতে আরও সমন্বয় করা উচিত, দৃশ্যমান হওয়া জরুরি। নির্বাচন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ করতে সব ধরনের চেষ্টাই কমিশনকে করতে হবে। তবে শুধু নির্বাচন কমিশনই নয়, সব স্টেকহোল্ডারকেও ইসিকে সহযোগিতা করতে হবে। সবাই সহযোগিতা করলে একটি সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব। আমার মনে হয়, বিএনপিও এবার নিজেদের অবস্থান শক্ত করতে নির্বাচনে যাবে। তাদেরও সহযোগিতা জরুরি।’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের অধ্যাপক শেখ হাফিজুর রহমান কার্জন বলেন, ‘আমাদের দেশে এখনো গণতন্ত্র সেইভাবে প্রতিষ্ঠিত হয়নি। জাতীয় নির্বাচনের বছর বিভিন্ন স্টেকহোল্ডারকে সক্রিয় হতে দেখা যায়। বিশেষ করে প্রধান রাজনৈতিক দলগুলো সংঘাত-হানাহানিতে জড়িয়ে পড়ে; যা বিগত ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনেও দেখা গেছে। দেশে এক অস্থিতিশীলতা ও অনিশ্চয়তা দেখা দেয়। দেশি-বিদেশি বিনিয়োগ বন্ধ হয়ে যায়। এটা দেশের অর্থনীতিকেও বড় ধাক্কা ধরনের দেয়। উন্নয়নে বাধা আসে। আমরা চাই সুষ্ঠু-গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক চর্চা, সবার অংশগ্রহণে সুষ্ঠু ভোট এবং একটি প্রতিনিধিত্বশীল কার্যকর একটি সংসদ।’

জানা গেছে, জাতীয় নির্বাচন সামনে রেখে দেশের পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে হার্ডলাইনে যাচ্ছে সরকার। যে কোনো মূল্যে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। তবে সরকারের কাছে খবর রয়েছে, সামনের নির্বাচনকে কেন্দ্র করে আগামী তিন মাসে রাজপথ দখলসহ নানা ধরনের নৈরাজ্যকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করতে একটি মহল তৎপরতা শুরু করেছে। বিশেষ করে এই সময়ে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে সর্বোচ্চ সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে। এ প্রশ্নে সরকারের অবস্থান জিরো টলারেন্স। এ নিয়ে পুলিশ সদর দফতরে দফায় দফায় বৈঠক হচ্ছে। সর্বশেষ অনুষ্ঠিত অপরাধ পর্যালোচনা সভায়ও এ বিষয়ে বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হয়। ঢাকা ও ঢাকার বাইরে টহল বাড়ানোর জন্য দেওয়া হয়েছে বিশেষ নির্দেশনা। প্রস্তুত থাকবে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)।

পুলিশ সদর দফতরের একাধিক কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, যে কোনো মূল্যে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে বিশেষ নির্দেশনা এসেছে নীতিনির্ধারক পর্যায় থেকে। জনগণের জানমালের নিরাপত্তার প্রশ্নে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। ঢাকা এবং ঢাকার বাইরে টহল বাড়াতে দেওয়া হয়েছে বিশেষ নির্দেশনা।

 

এ প্রসঙ্গে র‌্যাবের অতিরিক্ত মহাপরিচালক কর্নেল আনোয়ার লতিফ খান বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘আমাদের সর্বোচ্চ প্রস্তুতি রয়েছে। এর বাইরেও যে কোনো ধরনের পরিস্থিতি মোকাবিলায় সব ধরনের প্রস্তুতি নিয়ে রাখে র‌্যাবের সদস্যরা।’

আওয়ামী লীগ সূত্রে জানা যায়, নির্বাচন ঘিরে এরই মধ্যে সব ধরনের প্রস্তুতি শুরু হয়েছে। শনিবার থেকে নির্বাচন পর্যন্ত টানা সাংগঠনিক সফর শুরু করছে সরকারি দল আওয়ামী লীগ। নীলসাগর ট্রেনে উত্তরবঙ্গ সফর শুরু করবে দলটি। সরকারের উন্নয়ন প্রচারের এ সফরে আওয়ামী লীগের শরিক ১৪ দলের কেন্দ্রীয় নেতারাও থাকবেন। নির্বাচনী তফসিল ঘোষণার আগে কেন্দ্রভিত্তিক কমিটি গঠন, ১২ লাখ পোলিং এজেন্ট প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। উত্তরবঙ্গ সফরে পাবনা, জয়পুরহাট, রংপুর, নীলফামারীতে জনসভা করা হবে। মূলত নির্বাচনী তফসিল ঘোষণার আগেই নির্বাচনী কাজ সেরে ফেলতে চায় আওয়ামী লীগ। এ ছাড়া জেলা ও বিভাগীয় সমাবেশ করবেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এ প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘আগামী নির্বাচন চরম প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ হবে বলে আমি মনে করি। আমাদের লক্ষ্য একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জয়লাভ করা। জনগণ আমাদের ভোট দেবে। কারণ আমাদের উন্নয়ন অর্জন, শেখ হাসিনা সরকারের জনপ্রিয়তা এবং নেত্রীর প্রতি দেশের জনগণের বিশ্বাস ও আস্থা রয়েছে। দেশে এ মুহূর্তে বঙ্গবন্ধুকন্যা সবচেয়ে জনপ্রিয় নেতা। যে প্রার্থীদের নিয়ে আমরা ভোটে যাব তাদের জনগণের কাছে গ্রহণযোগ্য হতে হবে। জনমত জরিপে তার নামটা জনপ্রিয়তার বিচারে এগিয়ে থাকতে হবে। তার পরই তাদের নাম বিবেচনায় রাখা হবে।’

এদিকে বিএনপিও ভিতরে ভিতরে নির্বাচনী প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছে। প্রতিটি আসনে দলের একাধিক প্রার্থীও প্রস্তুত করে রাখা হয়েছে। কোনো কারণে প্রথম পছন্দের কেউ নির্বাচন করতে না পারলে দ্বিতীয় বা তৃতীয় পছন্দের কেউ নির্বাচনে যাবেন। লন্ডন থেকে নিয়মিত বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান দলের সম্ভাব্য প্রার্থীদের সঙ্গে কথাবার্তা বলছেন। সিনিয়র নেতাদের সঙ্গে নানা বিষয়ে আলোচনা করছেন। তবে এ মুহূর্তে বিএনপির মূল লক্ষ্য দলের প্রধান বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি। এ আন্দোলনকে শেষ পর্যন্ত নির্বাচনে যাওয়ার আন্দোলনে পরিণত করবে দলটি। বিএনপি-প্রধানকে কোনো কারণে নির্বাচনের আগে মুক্তি না দিলে, ভোটের দাবি-দাওয়াগুলো সরকার মেনে নিলে অন্য কোনোভাবে নির্বাচনে যাওয়া যায় কিনা তা নিয়েও আলোচনা চলছে দলের ভিতরে-বাইরে। নানা প্রতিকূল পরিবেশেও শেষ পর্যন্ত নির্বাচনে যাওয়ার প্রস্তুতি রয়েছে বিএনপির।

এ প্রসঙ্গে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘বিএনপি একটি গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক দল। বাংলাদেশের গণতন্ত্রের নেত্রী আজ কারাবন্দী। বিএনপির এখন প্রধান লক্ষ্যই হচ্ছে গণতন্ত্রের নেত্রীকে মুক্ত করা। এ লক্ষ্যেই আমরা শান্তিপূর্ণ গণতান্ত্রিক আন্দোলনে যাব। তিনি মুক্ত হওয়ার পরই আমরা নির্বাচনের চিন্তা করব। সরকার যদি জনগণের দাবি মেনে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের ব্যবস্থা করে তাহলে তাতে অবশ্যই আমরা অংশ নেব। তফসিলের আগে অবশ্যই সংসদ ভেঙে দিতে হবে। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকারে থাকতে পারবেন না। গণতন্ত্র ও আইনের শাসন আমরাও চাই। স্থিতিশীল রাজনৈতিক পরিবেশ আমরা সব সময়ই চাই, সেটা অক্টোবরেই হোক আর অন্য কোনো মাসেই হোক।’

এই পাতার আরো খবর
up-arrow