Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ১০ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২৩:১৬
মোদি বললেন সম্পর্ক গভীর হবে
ভিডিও কনফারেন্স, হাসিনা আমন্ত্রণ জানালেন মমতা ও বিপ্লবকে, ৫০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আসা শুরু
নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা ও নয়াদিল্লি প্রতিনিধি
মোদি বললেন সম্পর্ক গভীর হবে
ভিডিও কনফারেন্সে গতকাল ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। অংশ নেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি ও ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেবও —পিআইডি
bd-pratidin

বাংলাদেশের সঙ্গে ভারতের বর্তমান সুসম্পর্কের কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দুই দেশের বিদ্যমান সম্পর্ক বিশ্বের অন্যান্য অংশের জন্য রোল মডেল। আর ভারতের প্র্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বললেন, আজ থেকে আমরা আরও কাছে এলাম। আমাদের সম্পর্ক আরও গভীর হলো।

গতকাল বিকালে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বাংলাদেশ-ভারতের যৌথ উদ্যোগে তিনটি প্রকল্প নির্মাণকাজের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে দুই দেশের দুই প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

এ ভিডিও কনফারেন্সে পশ্চিমবঙ্গ থেকে যুক্ত হন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি ও ত্রিপুরা থেকে মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব। এ সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মমতা ব্যানার্জি ও বিপ্লব কুমার দেবকে বাংলাদেশ সফরে আমন্ত্রণ জানান। তারা দুজনই আমন্ত্রণ গ্রহণ করেন। জবাবে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে বলেন, ‘আপনি জিতুন, আমরা আসব।’ ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব আমন্ত্রণের জবাবে বলেন, ‘আমি বলেছি, আগে আপনার কাছে যাব, আমি আগে আপনার কাছেই যাব।’ নরেন্দ্র মোদি বক্তৃতার শুরু এবং শেষে বাংলায় এবং মাঝখানে হিন্দিতে কথা বলেন। আর দুই মুখ্যমন্ত্রী বাংলায় কথা বলেন।

প্রকল্প তিনটি হচ্ছে— কুষ্টিয়ার ভেড়ামারায় ৫০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আমদানিবিষয়ক প্রকল্প, বাংলাদেশ রেলওয়ের কুলাউড়া-শাহবাজপুর সেকশন পুনর্বাসন এবং আখাউড়া-আগরতলা ডুয়েল-গেজ রেলসংযোগ নির্মাণ (বাংলাদেশ অংশ)। ভেড়ামারায় বিদ্যুৎ প্রকল্প উদ্বোধনের মাধ্যমে বাংলাদেশে আরও ৫০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আসা শুরু হলো। কুলাউড়া, ভেড়ামারা থেকে স্থানীয় প্রশাসন, জনপ্রতিনিধি, রাজনীতিবিদসহ এলাকাবাসী ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত ছিলেন। পৃথক জায়গায় ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ, বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী, আইনমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক, তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, কুষ্টিয়ার এমপি ও আওয়ামী লীগের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ, ভারতে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার সৈয়দ মোয়াজ্জেম আলী, বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতের হাইকমিশনার হর্ষবর্ধন শ্রিংলাসহ সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। বাংলাদেশে অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্যসচিব নজিবুর রহমান।

প্রতিবেশীর সঙ্গে প্রটোকলের বন্ধনে আটকে থাকা উচিত নয় : ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বক্তব্যের শুরুতেই বাংলা ভাষায় বলেন, ‘বাংলাদেশের ভাই ও বোনেরা নমস্কার গ্রহণ করুন। নতুন প্রকল্পের উদ্বোধন আমাদের দুই দেশের সম্পর্কের নতুন মাত্রা, যা ভবিষ্যতে আরও সুদৃঢ় হবে।’ আর বক্তৃতার শেষ অংশে আবারও বাংলায় বলেন, ‘আজ থেকে আমরা আরও কাছে এলাম। আমাদের সম্পর্ক আরও গভীর হলো।’ মাঝখানে তিনি হিন্দিতে বক্তৃতা করেন। নরেন্দ্র মোদি বলেন, ‘বিমসটেক সম্মেলনের সময় বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ হয়েছে। এর আগে শান্তিনিকেতন ও কমেনওয়েলথ সম্মেলনে লন্ডনে দেখা হয়েছে। আমি খুব খুশি যে আবার ভিডিও কনফারেন্সে আরেকবার দেখা হলো। আমি আগেও বেশ কয়েকবার বলেছি, প্রতিবেশী দেশের নেতাদের সঙ্গে প্রতিবেশীর মতো সম্পর্ক হতে হবে। যখন মনে হবে কথা বলা যেতে পারে। যখন ইচ্ছা হবে সৌজন্য সাক্ষাৎ করা যেতে পারে। এসব বিষয়ে আমাদের প্রটোকলের বন্ধনে আটকে থাকা উচিত হবে না।’ তিনি বলেন, ‘সামনাসামনি দেখা হওয়া ছাড়া এটা তাঁর সঙ্গে আমার চতুর্থ ভিডিও কনফারেন্স। সামনে আরেকবার ভিডিও কনফারেন্সের সম্ভাবনা আছে। ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে দুই দেশের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ শুভকাজের উদ্বোধন করা হলো।’ তিনি বলেন, ‘আমরা যে কানেকটিভিটির কথা বলি তা এই ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে পূর্ণতা পায়। দুই দেশের মধ্যে সম্পর্ক বাড়াতে আমরা বিগত কয়েক বছর ধরে একের পর এক পদক্ষেপ নিয়েছি। এখন আর পাওয়ার কানেকটিভিটিতে সীমাবদ্ধ নেই। সে অনুযায়ী এবার রেলে নতুন একটি সংযোগ সম্পন্ন হলো।’ নরেন্দ্র মোদি বলেন, ‘২০১৫ সালে যখন আমি বাংলাদেশে গিয়েছিলাম, তখন ৫০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ দেওয়ার কথা বলেছিলাম। এজন্য পশ্চিমবঙ্গ থেকে বাংলাদেশে সংযোগ লিঙ্ক স্থাপনের কাজ শুরু হয়েছে। এ কাজ এগিয়ে নিতে সহযোগিতা করায় আমি মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জিকে অভিনন্দন জানাচ্ছি। এ প্রজেক্ট পুরা হলে ১ পয়েন্ট ১৬ গিগাওয়াট বিদ্যুৎ যোগ হবে গ্রিডে। এ আদান-প্রদান আমাদের মধ্যে সোনালি সম্পর্কের প্রমাণ দেয়।’ রেল যোগাযোগের কথা তুলে ধরে মোদি বলেন, ‘আগরতলার রেল কানেকটিভিটির কাজ সম্পন্ন হলে রেল কানেকভিটিতে নতুন মাত্রা পাবে। এ কাজে সহযোগিতা করায় মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেবকে অভিনন্দন জানাচ্ছি।’ বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর প্রশংসা করে ভারতের প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে এগিয়ে নিতে ২০৪১ সাল পর্যন্ত পরিকল্পনা হাতে নিয়েছেন। মধ্য আয়ের দেশে এবং উন্নত দেশের কাতারে নাম লেখাতে কাজ করে চলেছেন। সঠিক পরিকল্পনা ও সংযোগ থাকলে সাফল্য আসবে আকাশছোঁয়া।’

বিদ্যমান সম্পর্ক বিশ্বের অন্যান্য অংশের জন্য রোল মডেল : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘বহু বছর ধরে আমাদের মধ্যে বিদ্যমান পারস্পরিক বিশ্বাস, শ্রদ্ধাবোধ এবং সুনামের কারণে আমাদের সম্পর্ক পরিপক্বতা পেয়েছে। আমি বিশ্বাস করি, আমাদের এ সম্পর্ক বিশ্বের অন্যান্য অংশের জন্য একটি রোল মডেল হয়ে উঠেছে। এ সুসম্পর্ক আমাদের পারস্পরিক সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে নিতে সাহায্য করছে তাতে আমাদের দুই দেশের জনগণ লাভবান হচ্ছে। আমাদের উন্নয়নে সমর্থন দেওয়ার জন্য আমি শ্রীনরেন্দ্র মোদিকে ধন্যবাদ জানাই। ভারত-বাংলাদেশের বন্ধুত্ব চিরস্থায়ী হোক, সেটাই চাই। যার ফলে দুই দেশ একসঙ্গে কাজ করে দুই দেশের জনগণের উন্নতি সাধান করতে পারে। আমাদের যৌথ প্রচেষ্টায় এ ধরনের অনেক সাফল্য আমরা উদ্যাপন করতে পারব।’ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘ইতিমধ্যে আমাদের স্থলসীমানার সমস্যার সমাধান হয়েছে। ভারতবাসীকে ধন্যবাদ জানাই। ভারতের সংসদের সব সদস্য এক হয়ে এ স্থলসীমনা চুক্তি বাস্তবায়নে সহযোগিতা করেছেন। ভারত বাংলাদেশের বিষয়ে সবসময় ঐক্যবদ্ধ হয় দলমতনির্বিশেষে, এটাই প্রমাণিত হয়েছে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধে ভারত যে সহযোগিতা করেছে, তা আমরা সবসময় কৃতজ্ঞতার সঙ্গে স্মরণ করি, যা আমাদের সম্পর্কের ক্ষেত্রে চিরদিনই মাইলফলক হিসেবে বজায় থাকবে। সামপ্রতিক বছরগুলোয় ব্যবসা-বাণিজ্য, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি, যোগাযোগ, অবকাঠামোগত উন্নয়ন ও জনগণের সঙ্গে যোগাযোগসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে দুই দেশের মধ্যে অগ্রগতি সাধিত হয়েছে। ব্লু ইকোনমি, সামুদ্রিক সহযোগিতা, পারমাণবিক শক্তি, সাইবার নিরাপত্তা, মহাকাশ গবেষণাসহ নতুন নতুন ক্ষেত্রে আজ আমরা কাজ শুরু করেছি।’ তিনি বলেন, ‘বিদ্যুৎ ক্ষেত্র আমাদের দ্বিপক্ষীয় সহযোগিতার অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। আমরা বর্তমানে ভারত থেকে ৬৬০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আমদানি করছি। আরও ৩ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আমদানির উদ্যোগ নিয়েছি।’ অনুষ্ঠানে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি বাংলাদেশকে আরও ১ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ দেওয়ার কথা জানিয়ে এ ক্ষেত্রে কেন্দ্রীয় সরকারের অনুমতির বাধ্যবাধকতার বিষয়টি তুলে ধরেন।

প্রধানমন্ত্রী মমতাকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, ‘আশা করি, ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদিজি এ ব্যাপারে নিশ্চয় সম্মতি দেবেন। আমাদের উচ্চ অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ধরে রাখার জন্য আরও বিদ্যুৎ প্রয়োজন। আঞ্চলিক সহযোগিতা কাঠামোর অধীনে ২০৪১ সালের মধ্যে প্রতিবেশী দেশগুলোর মধ্য থেকে ৯ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আমদানির পরিকল্পনা করছি। আশা করি, এ লক্ষ্য অর্জনে ভারত আমাদের পাশে থাকবে।’ অনুষ্ঠানে রেলের যে দুটি প্রকল্প উদ্বোধন হয় তা ভারতীয় ঋণের অর্থেই নির্মাণ হবে। এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘রেলওয়ে খাতেও আমাদের দুই দেশের সহযোগিতা বৃদ্ধি পাচ্ছে। বাংলাদেশ-ভারতের মধ্যে মালামাল পরিবহনের জন্য ১৯৬৫-পূর্ব রেল যোগাযোগ পুনরায় চালুর জন্য কাজ করছি।’

আপনি জিতুন, আমরা আসব : বাংলাদেশ সফরে আসতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আমন্ত্রণ গ্রহণ করে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি বলেন, ‘আপনি জিতুন, আমরা আসব।’ তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ ভালো থাকলে আমরা ভালো থাকি।’ তিনি বাংলাদেশকে আরও ১ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ দিতে চান। মমতা বলেন, ‘গতবার শেখ হাসিনাজি আমাদের এখানে এসেছিলেন। তখন একটা বিষয়ে আমাদের মধ্যে আলোচনা হয়েছিল যে, তাঁরা যদি আমাদের কাছে বিদ্যুৎ চান তাহলে বাংলা আরও বিদ্যুৎ দেওয়ার জন্য রাজি আছে। যদি ভারত সরকার অনুমতি দেয় তাহলে পশ্চিমবঙ্গ ১ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ দিতে রাজি আছে।’ বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্ক আরও বাড়াতে চান জানিয়ে মমতা বলেন, ‘আমরা একে অন্যের সঙ্গে সহযোগিতা করতে চাই। কারণ বাংলাদেশ ভালো থাকলে আমরা ভালো থাকি। আমরা ভালো থাকলে বাংলাদেশ ভালো থাকবে। সুতরাং দুই দেশের সম্পর্ক আরও এগিয়ে যাক। ছিটমহল চুক্তি, ইন্দো-বাংলাদেশ বাস, ট্রেন সার্ভিস; ইন্দো-বাংলাদেশ-নেপাল-ভুটানের মধ্যে রোড সার্ভিস চালু করছি তা যুগান্তকারী প্রকল্প। এতে আমাদের সম্পর্ক আরও বৃদ্ধি পাবে।’ বক্তব্যের শেষ পর্যায়ে গানের কয়েকটি লাইন গেয়েও শোনান মমতা। গানটি ছিল— ‘আজি বাংলাদেশের হৃদয় হতে কখন আপনি/তুমি এই অপরূপ রূপে বাহির হলে জননী/ওগো মা, তোমায় দেখে দেখে আঁখি না ফিরে/তোমার দুয়ার আজি খুলে গেছে সোনার মন্দিরে।’ অনুষ্ঠানে ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব বলেন, ‘ভারত-বাংলাদেশের মধ্যে সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও আর্থিক যোগসূত্র রয়েছে, যা বহুকাল ধরে চলছে। এ প্রকল্পের মাধ্যমে নরেন্দ্র মোদির স্বপ্ন নর্থইস্টকে অষ্টলক্ষ্মীতে তৈরির প্রকল্পে বল পাবে। এতে নর্থইস্টরের জনগণের উন্নয়নের নতুন দিশা পাবে। ত্রিপুরা-আখাউড়া সীমান্তে লোড-আনলোডিংয়ে যে বাড়তি খরচ দিতে হয় তাতে দুই দেশই আর্থিকভাবে লাভবান হবে।’

এই পাতার আরো খবর
up-arrow