Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : শুক্রবার, ১১ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ১০ জানুয়ারি, ২০১৯ ২৩:৩৯
পছন্দের এপিএস পাচ্ছেন মন্ত্রিসভার সদস্যরা
নিজস্ব প্রতিবেদক

নতুন মন্ত্রিসভার মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রীদের একান্ত সচিব (পি এস) সরাসরি সরকার নিয়োগ দিলেও মন্ত্রিসভার সদস্যরা নিজেদের পছন্দে সহকারী একান্ত সচিব (এ পি এস) নিয়োগ দিতে পারবেন। জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন জানিয়েছেন, পুরনো রেওয়াজ অনুযায়ী মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রীরা পছন্দের ব্যক্তিকে এ পি এস হিসেবে নিয়োগ দিতে পারবেন।

সোমবার মন্ত্রিসভার সদস্যরা শপথ নেওয়ার পরদিন মঙ্গলবার রাতেই সরকারের জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রীদের একান্ত সচিব (পি এস) নিয়োগ দিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করে। যদিও অতীতে মন্ত্রিসভার সদস্যরা নিজের পছন্দ অনুযায়ী পি এস নিয়োগ দিতে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়কে অনুরোধ করতেন। সে অনুযায়ী পি এস নিয়োগ দিত সরকার। কিন্তু এবার নতুন মন্ত্রিসভার ক্ষেত্রে এর ব্যতিক্রম ঘটে। ধারণা করা হচ্ছিল, পি এস নিয়োগের মতো মন্ত্রিসভার সদস্যদের জন্য এ পি এসও সরকারের পক্ষ থেকে নিয়োগ করা হবে। কিন্তু এ পি এস নিয়োগের ক্ষেত্রে মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী, উপমন্ত্রীরা পছন্দের ব্যক্তিকে নিয়োগ দিতে পারবেন এ বিষয়টি নিশ্চিত করেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী।

যদিও গতকাল দুপুর পর্যন্ত মন্ত্রিসভার নতুন সদস্যরা বেশ অনিশ্চয়তায় ছিলেন এ পি এস নিয়োগ নিয়ে। দুপুরের পর দেখা গেছে, অনেক মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রী নিজেদের পছন্দের ব্যক্তিকে এ পি এস নিয়োগের জন্য জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে পত্র দিয়েছেন। বরাবর এ পদে সরকারি কর্মকর্তার বদলে বেশির ভাগ মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রী নিজেদের পছন্দের এবং এলাকার রাজনৈতিক কর্মীকেই নিয়োগ দিয়ে থাকেন। এটি মূলত রাজনৈতিক নিয়োগ হিসেবেই পরিচিত। তবে আগের মন্ত্রিসভার সদস্যদের কেউ কেউ এ পি এস হিসেবে সরকারি কর্মকর্তাদেরও নিয়োগ দিতেন। সূত্র জানায়, পছন্দের ব্যক্তিকে এ পি এস নিয়োগের ক্ষেত্রে সৎ ও যোগ্য ব্যক্তিকে বাছাই করার জন্য মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রীদের মৌখিকভাবে বলে দেওয়া হয়েছে, যাতে এ পি এসের কারণে মন্ত্রিসভার কোনো সদস্যের দুর্নাম না হয়। আর পি এস নিয়োগ দেওয়া হয়েছে যাচাই-বাছাই করে সৎ, যোগ্য ও পরীক্ষিত কর্মকর্তাদের। এদিকে প্রশাসনের এক সূত্র জানিয়েছেন, পি এসের মতো এ পি এসও সরকারি ক্যাডার বা নন-ক্যাডার কর্মকর্তাদের মধ্য থেকে নিয়োগের জন্য একটি প্রস্তাব জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে দেওয়া হয়েছিল। তবে তা আর বাস্তবায়ন হচ্ছে না।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow