Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১৭ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৬ জানুয়ারি, ২০১৯ ২২:৩৮

কাদের দখলে স্বাস্থ্য খাত

ঘাটে ঘাটে সিন্ডিকেট, শেষ নেই অনিয়মের, দরকার জরুরি অ্যাকশন

সাঈদুর রহমান রিমন

কাদের দখলে স্বাস্থ্য খাত

সিন্ডিকেটে জিম্মি হয়ে আছে স্বাস্থ্য খাত। এখানে দুর্নীতি-অনিয়ম বেড়েই চলছে। নির্মাণ, সরবরাহ, কেনাকাটা, নিয়োগ, বদলি- সবক্ষেত্রেই চলে ঘুষ লেনদেন। স্বাস্থ্য অধিদফতরের একজন হিসাবরক্ষক আবজাল মিয়াও সিন্ডিকেটের কল্যাণে শত কোটি টাকার মালিক বনে গেছেন। ভুয়া টেন্ডারের মাধ্যমে রাষ্ট্রের শত কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে স্বাস্থ্য অধিদফতরের বাজেট বিভাগের সহকারী পরিচালক ডা. আনিসুর রহমানকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

অনুসন্ধানে জানা যায়, বিশ্বখ্যাত জাপান ব্র্যান্ড ক্যাননের অথরাইজেশন লেটার জালিয়াতি করে ৮০ কোটি টাকার মেডিকেল যন্ত্রপাতি সরবরাহের টেন্ডার বাগানোর চেষ্টা চালাচ্ছে স্বাস্থ্য খাতের একটি প্রভাবশালী সিন্ডিকেট। এই চক্রের অন্যতম হোতা এএসএল নামে একটি প্রতিষ্ঠান জাপানি ক্যাননের ভুয়া অথরাইজেশন লেটার দিয়ে এমআরআই ও সিটি স্ক্যান মেশিনসহ অন্যান্য যন্ত্রপাতি সরবরাহের জন্য টেন্ডার দাখিল করেছে। মানিকগঞ্জের কর্নেল মালেক মেডিকেল কলেজ ও ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতাল স্থাপন শীর্ষক প্রকল্পের ভারী যন্ত্রপাতি ক্রয়ে দাখিল করা টেন্ডার যাচাই-বাছাইয়ে ভয়াবহ এ জালিয়াতির ঘটনা ধরা পড়েছে। জানা গেছে, অথরাইজেশন জালিয়াতি করে পুরনো মেশিন দিয়ে নতুনের দামে ৮০ কোটি টাকা বাগিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানটি। খোদ স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেকের বাবার নামে প্রতিষ্ঠিত মেডিকেল কলেজের জন্য চিকিৎসা সরঞ্জাম কেনার টেন্ডারে এ ধরনের জালিয়াতি ধরা পড়ার পর সংশ্লিষ্ট মহলে তোলপাড় চলছে। দেশের স্বাস্থ্য খাতের বেহাল পরিস্থিতি নিয়ে টিআইবির অনুসন্ধানেও নানা চিত্র ফুটে উঠেছে। টিআইবি প্রতিবেদনে বলা হয়, দেশের স্বাস্থ্য খাতের নিয়োগ, বদলি, পদায়ন ও পদোন্নতি সর্বত্রই অনিয়ম-দুর্নীতিতে ছেয়ে গেছে। এ ছাড়া যে কোনো টেন্ডার বা ছোটখাটো যে কোনো কাজের জন্যও গুনতে হয় ঘুষ। এক্ষেত্রে সর্বনিম্ন ১০ হাজার টাকা থেকে সর্বোচ্চ ১০ লাখ টাকা পর্যন্ত ঘুষ দিতে হয় ভুক্তভোগীদের। স্বাস্থ্য অধিদফতর, সিভিল সার্জন কার্যালয় ও ক্ষমতাসীন দলের প্রভাবশালীরা এ অর্থ নিয়ে থাকেন। এ ছাড়া বিভিন্ন ডায়াগনস্টিক সেন্টার থেকে চিকিৎসকরা ৩০ থেকে ৫০ শতাংশ কমিশন নিয়ে থাকেন। আর দালালরা নিয়ে থাকেন ১০ থেকে ৩০ শতাংশ।  গবেষণা প্রতিবেদনের তথ্যমতে, এ খাতে অ্যাডহক চিকিৎসক ও তৃতীয়-চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী নিয়োগের ক্ষেত্রে ১ থেকে ৬৫ লাখ টাকা, বদলির ক্ষেত্রে ১০ হাজার থেকে ১০ লাখ টাকা এবং পদায়ন ও পদোন্নতির ক্ষেত্রে ৫ থেকে ১০ লাখ টাকা ঘুষ লেনদেন হয়। এসব ঘুষ লেনদেনের সঙ্গে মন্ত্রণালয়, বিভাগ, সিভিল সার্জন কার্যালয়সহ স্বাস্থ্য খাতের প্রতিটি বিভাগের একশ্রেণির কর্মকর্তা-কর্মচারী জড়িত বলে উল্লেখ করা হয়। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, হাসপাতাল থেকে শুরু করে ডায়াগনস্টিক সেন্টার সর্বত্রই দালালদের উৎপাত। হাসপাতালে ভর্তি করতে দালাল, ওয়ার্ডে বেড পাওয়া নিশ্চিত করতে দালাল, পরীক্ষা-নিরীক্ষা করতেও দালালদের সাহায্য নেওয়া ছাড়া উপায় থাকে না। পঙ্গু ও সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে রোগীর জন্য ট্রলি ব্যবহার করতেও গুনতে হয় টাকা। রোগীদের জন্য বরাদ্দ থাকা ট্রলি নিয়ন্ত্রণে রেখে মিটফোর্ড হাসপাতালেও বাড়তি টাকা কামায় বহিরাগতরা। ছুটির দিন আর রাতে হাসপাতালগুলোর চেহারা পাল্টে যায়। বহু খোঁজাখুঁজি করেও কর্মরত ডাক্তারদের সন্ধান মেলে না। দরজা আটকে বিশ্রামে থাকা নার্সদের ডাকলে রীতিমতো রক্তচক্ষু দেখতে হয়। সরকারি হাসপাতালে রোগ পরীক্ষার যন্ত্রগুলো হয় অকেজো, নয়তো খোলাই হয় না বছরের পর বছর। আবার সচল যন্ত্রপাতির সংযোজন থাকলেও তা চালানোর মতো টেকনিশিয়ান নেই সেখানে। এসব কারণে ঢাকার প্রায় সব সরকারি বিশেষায়িত চিকিৎসাকেন্দ্রসহ সারা দেশের মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, জেলা ও উপজেলা হাসপাতালে চিকিৎসা সরঞ্জামাদির সুযোগ-সুবিধা রোগীদের ভাগ্যে জুটছে না। ফলে ন্যূনতম রক্ত পরীক্ষা থেকে শুরু করে ক্যান্সার নির্ণয় পর্যন্ত যাবতীয় পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য রোগীরা বেসরকারি ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের ওপর নির্ভরশীল হচ্ছে। অন্যদিকে, কানে মোবাইল ফোন লাগিয়ে খোশগল্প করার ফাঁকে ফাঁকে রোগী দেখা ডাক্তারদের দুর্ব্যবহারের শেষ নেই। অতি সম্প্রতি এক নারী-ডাক্তারকে আপা বলার কারণে রোগী ও তার স্বজনদের লাঠিপেটা পর্যন্ত খেতে হয়েছে। কোনো রোগীর খারাপ পরিস্থিতি জানাতে গেলেও তেড়ে আসেন ডাক্তার। এক রোগী জানান, একটা ইনজেকশন পুশ করার নামে তার ডান হাতের ১৮টি স্থানে ফুটো করা হয়েছে মুগদা জেনারেল হাসপাতালে। ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব কিডনি ডিজিজেজ অ্যান্ড ইউরোলজি, সোহরাওয়ার্দী হাসপাতাল, জাতীয় অর্থোপেডিক পুনর্বাসন প্রতিষ্ঠান (নিটোর) ও হাসপাতালে স্টোরকিপার ও ওয়ার্ড মাস্টার পদে ১৯৯৩ ও ১৯৯৭ সাল থেকে একই ডেস্কে কাজ করছেন। তাদের অনেকের বিরুদ্ধে রয়েছে নানা অভিযোগ। সরেজমিন এবং সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, হাসপাতালে কর্মরত হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা, প্রশাসনিক কর্মকর্তা, স্টোরকিপার ও অফিস সহকারীরা ঠিকাদারদের সঙ্গে সিন্ডিকেট করে কোটি কোটি টাকার যন্ত্রপাতি, ওষুধ ও পথ্যবাণিজ্য নিয়ন্ত্রণ করে। অনেকে সরকারি হাসপাতালের ওষুধ চুরি করে বিক্রির সঙ্গেও জড়িত। স্থানীয় সন্ত্রাসী ও প্রভাবশালী ঠিকাদারের সঙ্গে যোগসাজশ করে তারা হাসপাতালগুলোতে বাণিজ্যিক সিন্ডিকেট গড়ে তুলেছেন। অপরদিকে সিট বাণিজ্য, রোগী বাগিয়ে প্রাইভেট ক্লিনিকে পাঠানো, পথ্যবাণিজ্য থেকে শুরু করে ছোট ও মাঝারি পর্যায়ে হাসপাতালের অনিয়ম-দুর্নীতির অগ্রভাগে থাকেন ওয়ার্ড মাস্টাররা। তাদের নেতৃত্বেই হাসপাতাল ও এরপর পার্শ্ববর্তী এলাকায় গড়ে উঠেছে শক্তিশালী সিন্ডিকেট। চিকিৎসক-কর্মকর্তারাও তাদের সমীহ করে চলেন। দালাল চক্রের কাছ থেকে কমিশন নিয়ে ওয়ার্ড মাস্টাররা প্রাইভেট হাসপাতাল-ক্লিনিকের জন্য রোগী বাগানোর কাজ করেন। দরিদ্র রোগীরা এসব দালাল চক্রের হাতে জিম্মি হয়ে পড়ে।

দলবাজির কারণেও বিপর্যস্ত স্বাস্থ্যসেবা : সরকারি হাসপাতালসহ স্বাস্থ্য সেক্টরের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের প্রায় ৫৫ হাজার ডাক্তারের মধ্যে আট হাজার ডাক্তার কোনোদিনই চিকিৎসাসেবা প্রদান করেন না। তাদের ধারেকাছে যেমন রোগীরা যেতে পারেন না, তেমনি এসব ডাক্তারও বসেন না নিজের কর্মস্থলে। দিন, সপ্তাহ, মাস নয়, বছরের পর বছর ধরে এসব দাপুটে ডাক্তার রাজনীতি, সংগঠন, দলাদলি নিয়ে ব্যস্ত থাকেন। ছোটাছুটি করেন আন্দোলন, মিছিল, সমাবেশ নিয়ে। তারপরও তাদের চাকরি বহাল থাকে, বেতন-ভাতা পান এবং সবচেয়ে লোভনীয় পদগুলোতে পদায়ন-পদোন্নতিও জোটে। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোর চিকিৎসক, নার্স, কর্মচারীদের হাতেগোনা কয়েকটি সংগঠনের কাছে গোটা স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা রীতিমতো জিম্মি হয়ে পড়েছে। চিকিৎসাসেবা দেওয়ার মহানব্রত নিয়ে একদিন যারা ডাক্তারি পেশায় নিয়োজিত হয়েছিলেন, তারা এখন দলাদলি, মিছিল-সমাবেশ, রাজনৈতিক কর্মকান্ডে সার্বক্ষণিক সক্রিয় থাকছেন। বিপুলসংখ্যক চিকিৎসকের কাছে দিন দিন পেশাদারিত্বটা গৌণ হয়েছে। নেতৃত্বই হয়ে উঠেছে তাদের মুখ্য-লোভনীয় আদর্শ! রাতারাতি সুবিধা হাতিয়ে নেওয়ার ধান্ধাবাজিতে লিপ্ত মহলটি চিকিৎসাসেবা দেওয়া দূরের কথা বরং নানা কূটকৌশলে স্বাস্থ্য সেক্টরকেই ভঙ্গুর করে দিচ্ছে।

বহিরাগতর কাছে জিম্মি ময়মনসিংহের স্বাস্থ্য বিভাগ : শুধু সাংগঠনিক কাঠামোর কাছেই নয়, স্থানীয় পর্যায়ের বিভিন্ন নেতার কাছেও জিম্মি থাকে স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা খাত। রাজধানীর বাইরে ময়মনসিংহে মুকুটহীন এক সম্রাটের কাছেই জিম্মি হয়ে পড়েছে স্বাস্থ্য বিভাগ। স্বাস্থ্য বিভাগের চিকিৎসক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা সবাই থাকেন নানা আতঙ্কেও। কেননা, হাসপাতালে কর্মচারী নিয়োগ থেকে শুরু করে চিকিৎসকদের বদলি, বদলি ঠেকানো ও ইনজুরি সার্টিফিকেট বাণিজ্যের পুরোটাই নিয়ন্ত্রণ করেন তিনি। যার অদৃশ্য ইশারায় এসব হচ্ছে তিনি আর কেউ নন এ এইচ এম ফারুক ওরফে টুপি ফারুক। তিনি ময়মনসিংহ মহানগর যুবলীগের যুগ্ম সম্পাদক এবং স্বাচিপের এক কেন্দ্রীয় নেতার সহোদর। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, তিনি ভাইয়ের নাম ভাঙিয়ে নানা কুকীর্তি করে যাচ্ছেন। স্থানীয় সূত্রগুলো জানায়, ‘টুপি ফারুক’ ময়মনসিংহ স্বাস্থ্য বিভাগের কাছে এক মূর্তিমান আতঙ্ক। কেননা, ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ, ময়মনসিংহ বিভাগের বিভিন্ন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, ইউনিয়ন স্বাস্থ্যকেন্দ্র ও কমিউনিটি ক্লিনিকে কর্মরত চিকিৎসক ও স্বাস্থ্য কর্মীসহ কর্মচারীদের বদলিসহ সবকিছুই টুপি ফারুকের নিয়ন্ত্রণে। ময়মনসিংহের মতো আরও বেশ কয়েকটি জেলায়ও বহিরাগত নেতা নিয়ন্ত্রণ করে স্বাস্থ্য খাত।

বেসরকারি চিকিৎসা ব্যবস্থা নিয়ন্ত্রণহীন : বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলোয় রোগীদের কাছ থেকে মাত্রাতিরিক্ত ফি আদায়ের পাগলা ঘোড়া থামানো যাচ্ছে না কোনোভাবেই। খেয়ালখুশি মতো বাড়ানো হচ্ছে সেবা ফি। বেসরকারি হাসপাতাল-ক্লিনিকগুলোয় নিয়ন্ত্রণহীন ‘সেবামূল্য’ আদায়ে রোগীদের জিম্মিসহ নানা মাত্রার হয়রানি-অত্যাচার ইংরেজ নীলকরদেরও হার মানাচ্ছে। সাধারণ রোগের জন্যও চিকিৎসকরা বিভিন্ন টেস্ট দিয়ে রোগীদের পাঠাচ্ছেন ডায়াগনস্টিক সেন্টারে। সেখান থেকে তারা পান কমিশনের কাঁড়ি কাঁড়ি টাকা। ডাক্তাররা ডায়াগনস্টিক সেন্টারের সরবরাহকৃত স্লিপে টিক মার্ক দিয়ে দেন কোন কোন টেস্ট করাতে হবে। রোগী নিজের পছন্দের ডায়াগনস্টিক সেন্টারে সেই টেস্ট করালে ডাক্তার ওই রিপোর্ট গ্রহণ করেন না। ডাক্তার তার নির্ধারিত সেন্টার থেকে আবার একই টেস্ট করিয়ে আনতে চাপ দেন। কমিশন নিশ্চিত হওয়ার পরই কেবল চিকিৎসা মেলে। এ সুযোগে কথিত ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলো পরীক্ষার ফি বাবদ ইচ্ছামাফিক টাকা-পয়সা আদায়ের একচেটিয়া ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। স্বাস্থ্য অধিদফতর কর্তৃক ক্লিনিক্যাল প্যাথলজির ক্ষেত্রে সর্বনিম্ন ৮০ ও সর্বোচ্চ ৬০০ টাকা, মাইক্রোবায়োলজি অ্যান্ড ইমিউনোলজিতে সর্বনিম্ন ১৫০ ও সর্বোচ্চ এক হাজার ৩০০ টাকা, বায়োকেমিস্ট্রিতে সর্বনিম্ন ১২০ টাকা ও সর্বোচ্চ ৮০০ টাকা, হিস্ট্রোপ্যাথলজিতে সর্বনিম্ন ৫০০ ও সর্বোচ্চ ১ হাজার ২০০ টাকা, ড্রাগ এবিউজে সব ধরনের পরীক্ষা সাড়ে ৫০০ টাকা, থেরাপিউটিক ড্রাগের ক্ষেত্রে ৫০০ টাকা ও ভাইরোলজির ক্ষেত্রে সর্বনিম্ন ২০০ ও সর্বোচ্চ ২ হাজার টাকা ফি নির্ধারণ করা আছে। কিন্তু এ মূল্য তালিকা মানে না কোনো ডায়াগনস্টিক সেন্টারই। তাদের মনগড়া তালিকা  অনুযায়ী টেস্টের টাকা পরিশোধ করতে বাধ্য হচ্ছেন মধ্যবিত্ত ও নিম্নমধ্যবিত্ত শ্রেণির রোগীরা।  এভাবে পরীক্ষা-নিরীক্ষার নামে হাতিয়ে নেওয়া হয় কোটি কোটি টাকা। এ টাকার মোটা অংশ কমিশন হিসেবে চলে যায় ডাক্তারদের পকেটে। এসবের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার ব্যাপারে স্বাস্থ্য অধিদফতরের দায়িত্বশীল বিভাগটি অজ্ঞাত কারণে বরাবরই চরম উদাসীন।


আপনার মন্তব্য