Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : মঙ্গলবার, ২২ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ২১ জানুয়ারি, ২০১৯ ২৩:০৯
বিএনপির জেনারেল মাহবুব রাজনীতি থেকে অবসর নিচ্ছেন
মাহমুদ আজহার
বিএনপির জেনারেল মাহবুব রাজনীতি থেকে অবসর নিচ্ছেন

রাজনীতি থেকে অবসরের চিন্তাভাবনা করছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সাবেক সেনাপ্রধান লে. জেনারেল (অব.) মাহবুবুর রহমান। এরই মধ্যে দলের স্বাভাবিক কর্মকাণ্ড থেকে নিজেকে গুটিয়ে নিয়েছেন। স্থায়ী কমিটির বৈঠকেও যোগদান থেকে বিরত রয়েছেন। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নিজে থেকেই সরে দাঁড়ান তিনি। বিএনপির এই দুঃসময়ে কেন অবসরের কথা চিন্তা করছেন জানতে চাইলে মাহবুবুর রহমান বলেন, ‘বয়স তো কম হলো না। শারীরিকভাবেও আমি অসুস্থ। তা ছাড়া বাংলাদেশে সুরাজনীতির ভবিষ্যৎও অন্ধকার। তরুণদেরও তো রাজনীতিতে জায়গা করে দেওয়া উচিত বলে আমি মনে করি। তাই এখন আমার অবসর নেওয়াই উচিত।’ তবে রাজনীতি থেকে অবসরের জন্য বিএনপিকে এখনো পর্যন্ত কোনো আনুষ্ঠানিক চিঠি দেননি তিনি। দেশের বর্তমান রাজনীতি সম্পর্কে মূল্যায়ন করতে গিয়ে জেনারেল মাহবুব বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘দেশে তো এখন রাজনীতি নেই। বিশেষ করে বিএনপির কোনো রাজনীতি দৃশ্যমান নয়। বাংলাদেশের সুরাজনীতির কোনো ভবিষ্যৎ অন্ধকার। সৎ রাজনীতি নেই। দুর্নীতির বিরুদ্ধে, মানুষের কল্যাণের রাজনীতি এমনকি দেশের ভাবমূর্তি উন্নয়নের রাজনীতি নিয়েও আমার মনে সন্দেহ চলে এসেছে। সুশাসন, গণতন্ত্র, ভোটাধিকার এগুলোর অভাব স্পষ্ট। বাংলাদেশে যারা সত্যিকারার্থে রাজনীতি করতে চান, তারাই এখন সন্দেহ অবিশ্বাসে ভুগছেন। দেশে চরম রাজনৈতিক অবক্ষয় ঘটছে। রাজনৈতিক সচেতনতাবোধ বা সৌজন্যতাবোধ নেই। প্রতিহিংসা আর জিঘাংসার রাজনীতি বিদ্যমান। নীতির প্রশ্নে আদর্শের প্রশ্নে রাজনীতি এখন দেউলিয়া হয়ে যাচ্ছে।’

বিএনপির রাজনীতি সম্পর্কে মূল্যায়ন করতে গিয়ে বলেন, ‘বর্তমান বিএনপির কঠিন দুঃসময় চলছে। এই সময় তাদের ধৈর্য ও সাহসিকতার সঙ্গে এগিয়ে যেতে হবে। মন খারাপ করা যাবে না। দলের প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের আদর্শ, ভাবাদর্শ ও তার চেতনাকে পাথেয় হিসেবে নিতে হবে বিএনপিকে।’ বিএনপির রাজনীতি কোন পথে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘বিএনপির রাজনীতি সঠিক পথে নেই। অতীতে অনেক ভুলত্রুটি হয়েছে। এগুলো শুধরাতে হবে। এটা থেকে উত্তরণে সবাইকে জিয়ার আদর্শে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। তার চেতনা নিয়ে এগিয়ে যেতে হবে। বিএনপিতে অনেক ভালো নেতা রয়েছেন। দল থেকেই সঠিক নেতৃত্ব নির্বাচন করতে হবে। তাদের খুঁজে বের করে আনতে হবে।’ লে. জেনারেল (অব.) মাহবুবুর রহমান ১৯৯৬ সালের ২০ মে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর কঠিন দুঃসময়ে ১০ম সেনাপ্রধান হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন। ১৯৯৭ সালের ২৩ ডিসেম্বর পর্যন্ত তিনি এ দায়িত্ব পালন করেন। সেনাবাহিনী থেকে অবসর গ্রহণের পর মাহবুবুর রহমান বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত হন। ২০০১ সালে অষ্টম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি বিএনপির মনোনয়নে দিনাজপুর-২ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। সংসদ সদস্য হওয়ার পর ২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত তিনি বাংলাদেশের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।  বিএনপির পঞ্চম ও ষষ্ঠ জাতীয় কাউন্সিলে পরপর দুইবার তিনি দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য পদে অলংকৃত হন। এখনো ওই পদে বহাল রয়েছেন তিনি।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow