Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শনিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : শুক্রবার, ৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২১:৪৮
টি-শার্টে ফ্যাশন
টি-শার্টে ফ্যাশন
পোশাক : পিজিয়ন, মডেল : অপু ও সুজান, ছবি : মহসিন আব্বাস

ফ্যাশন বদলায় সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে। একেক সময়ের ট্রেন্ড বাজার মাতিয়ে তোলে। টি-শার্টের ট্রেন্ড এই গরমে উৎসবের আমেজ ছোঁয়াতেও থেমে নেই। টি-শার্টের বাহারি আয়োজনের দিকে হাত বাড়াচ্ছে ছেলেরা। তরুণদের কাছে টি-শার্টের আবেদন তাই বেড়েছে। টিনএজার ও মধ্যবয়সীরাও হুটহাট টি-শার্ট গায়ে জড়িয়ে নিতে পারেন ফ্যাশনেবল লুক। লিখেছেন— সাইফ ইমন

 

সাধারণ জিন্স এবং শর্ট প্যান্টের সঙ্গে টি-শার্ট পরা যায়। এ ছাড়া খাকি এবং ক্যাজুয়াল স্ল্যাকের সঙ্গেও মানানসই। গলার ডিজাইনের ক্ষেত্রে ভি-নেক সেক্সি এবং স্পোর্ট লুক দেয়। ক্যাজুয়াল লুকের জন্য স্পোর্ট কোট পরতে পারেন

 

বয়স যাই হোক, আজকাল টি-শার্টে ফ্যাশনেবল লুক বেশ জনপ্রিয়। এই একটি পোশাক যেটা সব সময়ই ভীষণ রকম  ট্রেন্ডের মধ্যে ইন। গোল গলা, কলার দেওয়া অথবা ভি-নেক, সব রকমের টি-শার্টই সবসময়ই বছরের সবমাসে গুছিয়ে উপস্থিত। যদিও টি-শার্ট কিন্তু সুতির হলেই জেল্লাদার হয়  বেশি। টি-শার্টের ক্ষেত্রে নিজেকে কি রং মানাচ্ছে তা বুঝে নেওয়া খুব জরুরি। তবে এই পোশাকটির ক্ষেত্রে সব চাইতে জরুরি ঠিকঠাক মাপের হওয়া। সঠিক সাইজের টি-শার্টের খোঁজ না পেলে উৎসবটাই মাটি। বর্তমানে একরঙা ও  চেকের টি-শার্টের কদরই বেশি। পাশাপাশি প্রিয় ব্যক্তিত্বের ছবি ও  লোগো, রিকশা পেইন্ট, বর্ণমালা, রবীন্দ্র-নজরুল কবিতার লাইন, প্রকৃতি নানা মোটিফে টি-শার্ট এখন চলছে।  টি-শার্টের ওপর লেখা ওয়ান লাইনার কিন্তু ভীষণ রকম হিট। ছোট-বড়  স্লোগানে ভরপুর টি-শার্টের রমরমা। তার সঙ্গেই আছে বিভিন্ন কার্টুন। নানারকম পকেট দেওয়া টি-শার্টের কদরও বেশ। টি-শার্টে এখন নতুনত্ব হচ্ছে হাফ হাতার নিচের দিকে ও কলারে ভিন্ন কাপড়ের ব্যবহার। এসব ছাড়াও ফতুয়া গলার টি-শার্টও এখন বেশ চলছে। যেগুলোর হাতা বা নিচের দিকে পাইপিং দেওয়ায় এসেছে নতুনত্ব। কাঁধে বা হাতায় একাধিক মোটা সেলাই দেখা যাচ্ছে। নিচের দিকে সম্পূর্ণ গোল কাট। ক্যাজুয়াল লুকে টি-শার্টের সঙ্গে জিন্স, গ্যাবার্ডিন বা সুতি প্যান্ট বেশ মানায়। জুতার পাশাপাশি স্যান্ডেলও পরতে পারেন। বেশি তাপ শোষণ করে বলে গরমের সময়টাতে কালো রং এড়িয়ে যাওয়াই ভালো। বরং বসন্তের এই সময়টাতে বেছে নিতে পারেন একটু বর্ণিল তবে আরামদায়ক রং। সে ক্ষেত্রে নীল, সবুজ, ছাই, ফিরোজা,  গোলাপি, লালচে ধরনের রংগুলো। শার্টের ফেব্রিকের ক্ষেত্রে ফুল কটন, মিক্সড কটন, অরবিন্দ শার্টই বর্তমান ট্রেন্ড। আর টি-শার্ট চলছে  স্টেচিং নিট কাপড়ের।

ক্যাজুয়াল হোক আর ফরমাল নগরীর সব শপিংমলেই পাওয়া যায় টি-শার্ট। একটু কম দামে কিনতে চাইলে চলে যেতে পারেন আজিজ সুপার মার্কেট, বঙ্গবাজার কিংবা নিউমার্কেট। আর একটু ভালো মানের ফুলহাতা টি-শার্ট কিনতে যেতে পারেন দেশি ও বিদেশি ফ্যাশন হাউজগুলোয়। টি-শার্টের ক্ষেত্রে বিভিন্ন ধরনের স্ট্রাইপ এবং এককালার এখন ট্রেন্ড। ব্লক, বাটিক, স্ক্রিনপ্রিন্টসহ প্রতিটি টি-শার্ট যেন একেকটি রংতুলির ক্যানভাস। গরমে স্টেচিং নিট কাপড়ের টি-শার্টই আরামদায়ক। শার্টের ক্ষেত্রে সুতি, লিলেন, অরবিন্দ কাপড় পরতে পারেন। টি-শার্টের দামই নির্ভর করে ফেব্রিক, ডিজাইন ও ব্র্যান্ডের ওপর। বিভিন্ন ফ্যাশন হাউসে ক্যাজুয়াল শার্ট ৮০০  থেকে ১৮০০ টাকা, ব্র্যান্ডের ফরমাল শার্ট ১৪০০ থেকে ৩৫০০ টাকা, ডেনিম শার্ট ১০০০ থেকে ২৫০০ টাকা, নন-ব্র্যান্ডের ফুলহাতা শার্ট ৫০০ থেকে ১০০০ টাকা, গোল গলা টি-শার্ট ২০০-৩০০ টাকা, কলার টি-শার্ট ২৫০-৭০০ টাকা।

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত
এই পাতার আরো খবর
up-arrow