Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শনিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২২:১৪
ফ্রাইডে ১০০ শুভেচ্ছা
ফ্রাইডে ১০০ শুভেচ্ছা

‘‘ বাংলাদেশ প্রতিদিনের সঙ্গে আমার সখ্য অনেক আগের। আর পত্রিকাটি আমার প্রিয় কাগজগুলোর মধ্যে একটি। বাংলাদেশ প্রতিদিনের সঙ্গে আমি অনেক বেশি একাত্ম বোধ করি। আমার লেখালেখির তেমন অভ্যেস নেই। বলতে পারেন বকলম প্রকৃতির। তবে মাঝেমধ্যে লিখতে ইচ্ছে করলে এখানেই লিখি। বলতে পারেন এটাই আমার প্লাটফর্ম। তাই এখানেই লিখতে ভালোবাসি। বাংলাদেশ প্রতিদিনের ফ্যাশন সাপ্লিমেন্ট ‘ফ্রাইডে’র ১০০তম সংখ্যার জন্য আমি খুশি। সংখ্যাটা যেহেতু শতকে এসেছে, তাই আমার প্রার্থনা বাংলাদেশের এই অন্যতম ফ্যাশন আইকনিক সাপ্লিমেন্টটি আরও বহুদূর এগিয়ে যাক। ১০০ ছাপিয়ে ফ্রাইডে এগিয়ে চলুক হাজারে।

— মোস্তফা সরয়ার ফারুকী, নির্মাতা

 

 

‘‘ বাংলাদেশ প্রতিদিনের ফ্যাশন ট্যাবলয়েডের সংশ্লিষ্ট সবাইকে জানাচ্ছি অনেক শুভ কামনা। এই ফ্যাশন ট্যাবলয়েডটি ১০০তম সংখ্যায় পৌঁছেছে জেনে আমি আনন্দিত। আমি চাই এর ১০০০তম, ২০০০তম সংখ্যা প্রকাশ পাক। পত্রিকাটির সঙ্গে আমার পরিচয় দীর্ঘদিনের। বাংলাদেশের সংস্কৃতিকে ধারণ করে পত্রিকাটি নিরলস কাজ করে যাচ্ছে। এ ধারা অব্যাহত থাকুক—এটাই প্রত্যাশা করছি। —মেহের আফরোজ শাওন, অভিনেত্রী ও নির্মাতা

 

 

‘‘  বাংলাদেশ প্রতিদিন পরিবারের একজন সদস্য আমি। পত্রিকাটির সংবাদ নির্বাচন ও প্রকাশ সহজেই পাঠককে আকৃষ্ট করে। বিশেষ করে এর বিনোদন বিভাগ আমার মতো অন্য তারকাদেরও মন জয় করেছে। এই পত্রিকার জনপ্রিয়তা আরও বাড়িয়ে দিয়েছে এর সপ্তাহিক আয়োজন ‘ফ্রাইডে’। চমৎকার একটি আয়োজন। ছুটির দিনে পাঠকের মনকে নানা আয়োজনে ভরিয়ে তুলতে এর তুলনা হয় না। খুব কম সময়ে পাঠকপ্রিয় হয়েছে ‘ফ্রাইডে’। আয়োজনটি শততম সংখ্যায় উন্নীত হচ্ছে জেনে ভালো লাগছে। ফ্রাইডে তার সফলতার রঙে পাঠক-ভক্তদের আরও রঙিন করে তুলবে এই শুভ কামনা রইলো।

—অপু বিশ্বাস, চিত্রনায়িকা

 

‘‘  আমার প্রিয় একটি পত্রিকা বাংলাদেশ প্রতিদিন। এর বিনোদন বিভাগসহ প্রতিটি আয়োজন চমৎকার। বিশেষ করে সাপ্তাহিক আয়োজন ‘ফ্রাইডে’ অতুলনীয়। ‘ফ্রাইডে’র প্রচ্ছদ খুবই আকর্ষণীয়। এতে অংশ নেওয়া মডেলদের মাধ্যমে পাঠক, বিশেষ করে নতুন প্রজন্মকে আধুনিক ফ্যাশনের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেওয়া হচ্ছে। আমি নিয়মিত পত্রিকাটি পড়ি এবং ফ্রাইডে’র ভক্ত হয়ে পড়েছি। ফ্রাইডে শততম সংখ্যায় পা রাখতে যাচ্ছে জেনে খুবই খুশি লাগছে। আগামীতে জানার শূন্যতা আরও পূরণে ‘ফ্রাইডে’ তার জোরালো ভূমিকা অব্যাহত রাখবে বলে আমার প্রত্যাশা। আমি এর উত্তরোত্তর সমৃদ্ধি কামনা করছি। সেই সঙ্গে রইলো শুভ কামনা।

— মাহিয়া মাহি, চিত্রনায়িকা

 

‘‘ ফ্রাইডের পথচলার শুরুটা আমার জানা। প্রথম থেকেই আমি এর সঙ্গে সম্পৃক্ত। এমনকি, প্রথম সংখ্যাতেই কাজ করার সুযোগ মিলে যায়। এরই মধ্যে তার পথচলা এগিয়ে গেছে অনেকখানি। সফলতার সঙ্গে শততম সংখ্যায় পাড়ি দেওয়ায় আমি অনেক খুশি। ফ্রাইডের কাজের ভিন্নতা আর পরিচ্ছন্নতা আমাকে দারুণভাবে আকৃষ্ট করে। আমি মনে করি, কাজের একনিষ্ঠতা ফ্রাইডেকে আজ এ পর্যন্ত নিয়ে এসেছে। দোয়া করি এই পথচলা আরও দীর্ঘ হোক। সঙ্গে সঙ্গে ফ্রাইডে টিমকে অনেক অনেক ধন্যবাদ, মিডিয়াতে এভাবে নিজেদের অবদান ধরে রাখার জন্য।

— সুষমি, মডেল

 

‘‘ বাংলাদেশ প্রতিদিন খুব সহজেই মানুষের কাছে পৌঁছেছে। প্রতিদিনের নানা ঘটনার সত্য তুলে ধরে মানুষকে সচেতন করেছে। দেশের বেশির ভাগ মানুষের কাছে এটি প্রিয়। ব্যক্তিগত জরিপে দেখেছি, ন্যূনতম অক্ষরজ্ঞান সম্পন্ন মানুষটিও সত্যের সন্ধানে এই পত্রিকাকে বেছে নিয়েছে। এর অর্থ, মানুষকে সত্য জানাতে বাংলাদেশ প্রতিদিন অগ্রগামী ভূমিকা পালন করে চলেছে। এর সঙ্গে ফ্রাইডে ট্যাবলয়েডটি পত্রিকার স্মার্টনেস বাড়িয়ে দিয়েছে। আমার মতে, পত্রিকার ষোলকলা পূর্ণ হতে যতটুকু বাকি ছিল ফ্রাইডে তা করেছে। তাই দোয়া থাকবে ফ্রাইডে এগিয়ে যাক সবার ভালোবাসা ও ভালোলাগা নিয়ে।

— ফারজানা ছবি, অভিনেত্রী

 

 

 

‘‘ বাংলাদেশ প্রতিদিন সবচেয়ে বেশি মানুষের কাছে পৌঁছায়। সবার পছন্দের পত্রিকা এটি। অবশ্যই বাংলাদেশ প্রতিদিনে বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ ও নতুন নতুন আইডিয়া থাকে। আর সে কারণেই সবার হৃদয় জয় করতে সক্ষম হয়েছে। আমাদের মতো আর্টিস্টদের সঙ্গে বাংলাদেশ প্রতিদিন সব সময় যোগাযোগ রক্ষা করে গেছে। আমার শুভ কামনা বাংলাদেশ প্রতিদিনের জন্য। তারা যেন তাদের এই স্ট্যান্ডার্ডের ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে পারে। সেই সঙ্গে অবশ্যই ফ্রাইডের জন্য শুভকামনা। তারা যেন সফলতার সঙ্গে নিজেদের অবস্থান আরও উজ্জ্বল করতে পারে।

— তপু, সংগীতশিল্পী

 

 

‘‘ ফ্রাইডের শুরু থেকেই আমি আছি। বাংলাদেশ প্রতিদিনকে আমার খুব কাছের মনে হয়। বাংলাদেশ প্রতিদিন যখন ফ্রাইডে বের করে আমি খুবই উত্তেজিত ছিলাম। এটা থেকে ভালো কিছুর আশাবাদীও ছিলাম। ইন্টারেস্টিং ব্যাপার হলো, আমার বাসাতে নিয়মিত বাংলাদেশ প্রতিদিন রাখা হয়। আমি নিজে প্রচণ্ডভাবে ফলোআপ করি। তা ছাড়া ফ্রাইডে এমন একটি ট্যাবলয়েড যা আমার খুব পছন্দের। এর টপিকগুলো অসাধারণ এবং রুচিশীলের পরিচয় বহন করে।

সমসাময়িক সব সংবাদ মাধ্যমের মধ্যে বাংলাদেশ প্রতিদিন সেরা। এর এগিয়ে চলার জন্য সব সময় শুভ কামনা থাকবে।

— নুসরাত ফারিয়া, চিত্রনায়িকা

 

 

 

‘‘ ফ্রাইডে আমার খুব প্রিয়। যদিও ব্যস্ততার কারণে নিয়মিত দেখা হয় না। তারপরও সহজে মিস করতে চাই না। ফ্রাইডে শততম সংখ্যায় পা রাখছে শুনে ভালো লাগছে। বাংলাদেশ প্রতিদিনের জনপ্রিয় এই সাপ্তাহিকী আরও সমৃদ্ধ হবে এতে পাঠকের পছন্দের বিষয়গুলো চমৎকারভাবে উঠে আসবে—এই প্রত্যাশা রইলো।

—শাকিব খান, চিত্রনায়ক

 

 

‘‘ বাংলাদেশ প্রতিদিনের ফ্যাশন সাপ্লিমেন্ট ফ্রাইডের ১০০তম সংখ্যা উপলক্ষে অনেক অনেক অভিনন্দন। দোয়া করি ফ্যাইডে এবং ফ্রাইডে’র সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সবাই ভালো কাজ করুক। যেহেতু এটি ফ্যাশন এবং লাইফস্টাইল নির্ভর একটি ট্যাবলয়েড, তাই আশা থাকবে— দেশীয় ফ্যাশন ও শিল্পকে এগিয়ে নিতে তাদের প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে। তবে সবকিছুকে ছাপিয়ে লক্ষ্য থাকা উচিত একটাই, আর তা হলো—দেশপ্রেম। শুভ কামনা রইলো ফ্রাইডে অনেক ভালোভাবে তাদের কাজ এগিয়ে নিয়ে যাবে।

— শম্পা রেজা, অভিনেত্রী

 

‘‘ বাংলাদেশ প্রতিদিনের লাইফস্টাইল ট্যাবলয়েড ফ্রাইডে শততম সংখ্যায় পদার্পণ করেছে জেনে ভালো লাগছে। দেশের সর্বাধিক প্রচারিত দৈনিকের লাইফস্টাইল ট্যাবলয়েড হিসেবে এটি বড় অর্জন। আমি নিয়মিত এই ট্যাবলয়েডটি পড়ি। অন্যসব ট্যাবলয়েড থেকে এটি বেশকিছু দিক দিয়ে ভিন্ন ঘরানার বলেই আমার মনে হয়েছে। ফ্রাইডের পথচলা ও অর্জনের জন্য প্রথমেই শুভকামনা। দোয়া করি আপনারা যেভাবে এগিয়ে যেতে চাচ্ছেন তা যেন সফলকাম হয়। সবসময় সঙ্গে থাকব। আপনারাও থাকুন ভালো কিছুর সঙ্গে এই কামনা করি। ফ্রাইডে সামনের দিনগুলোয় আরও ভালো কিছু উপহার দেবে—সেটাই প্রত্যাশা।

— জাকিয়া বারী মম, অভিনেত্রী

 

 

 

‘‘ ফ্রাইডের লাইফস্টাইল ট্যাবলয়েডটি একেবারেই ভিন্ন স্বাদের। ট্যাবলয়েডটির শততম সংখ্যাটি প্রকাশ করতে যাচ্ছে। এটি একটি বড় অর্জন। বাংলাদেশ প্রতিদিন সর্বাধিক প্রচারিত দৈনিক। সেই অর্থে বলা যায়, ফ্রাইডে সর্বাধিক প্রচারিত ট্যাবলয়েড। আমি সৌভাগ্যবান ফ্রাইডের সঙ্গে আমার কাজ করার অভিজ্ঞতা হয়েছে। এর সঙ্গে কাজ করতে গিয়ে টের পেয়েছি সবাই ট্যাবলয়েডটির প্রশংসা করে থাকেন। এটি ভালো কাজের মূল্যায়ন।

আমি প্রত্যাশা করি ফ্রাইডে এভাবে এগিয়ে যাবে।

—বিপুল ইসলাম

ফ্যাশন ডিজাইনার ও স্বত্বাধিকারী প্লাস পয়েন্ট

 

 

‘‘ ফ্রাইডের পথচলার শুরু থেকে আমি সঙ্গে আছি। কাজের সূত্র ধরে এর সঙ্গে আমার আত্মার একটি সম্পৃক্ততা তৈরি হয়েছে। আমি মনে করি, ফ্রাইডের স্বকীয়তা আর ভিন্নধর্মী কাজের জন্য সবার কাছে আজ বিপুলভাবে সমাদৃত। ব্যক্তিগতভাবেও ফ্রাইডের প্রতিটি কাজ খুবই পছন্দ করি। প্রতিটি সংখ্যা গ্রহণযোগ্য রুচির পরিচয় বহন করে। আমি মনে করি, কাজের পরিচ্ছন্নতার জন্য ফ্রাইডে আজ সবার ভালোবাসা পেয়েছে। ফ্রাইডের শততম সংখ্যার জন্য আমি খুব খুশি। দোয়া করি ফ্রাইডের চলার পথ আরও দীর্ঘ হোক।

—তৌহিদ চৌধুরী

ডিজাইনার ও ডিরেক্টর, ইজি

 

 

‘‘ বাংলাদেশ প্রতিদিনের একজন নিয়মিত পাঠক হিসেবে আজ আমার কাছে অত্যন্ত আনন্দের  ও সম্মানের একটি দিন। আনন্দের কারণ হচ্ছে পছন্দের পত্রিকার বেশি প্রিয় ট্যাবলয়েড ‘ফ্রাইডে’ সফলতা ও জনপ্রিয়তার তুঙ্গে এসে ১০০তম সংখ্যা প্রকাশ করছে।  ওমেন্স ওয়ার্ল্ভ্রের সঙ্গে সঙ্গে আমার নিজের জন্যও এটি সম্মানের কেননা এই দীর্ঘ সময়ের অনেকটা পথ আমরা একসঙ্গে এগিয়েছি। ফ্রাইডের বেশিরভাগ সংখ্যার কভার মেকআপ করা হয়েছে ওমেন্স ওয়ার্ল্ড থেকে। শুধু আমার না, প্রতিটি মানুষের কাছেই সংবাদের জন্য যেমন গ্রহণযোগ্যতা পেয়েছে বাংলাদেশ প্রতিদিন, ঠিক তেমনি জীবন যাপনে পূর্ণতা আনতে সবাই অপেক্ষা করে শুক্রবারের বিশেষ সংখ্যা ফ্রাইডের জন্য। সব শেষে ফ্রাইডের জন্য শুভকামনা।

— ফারনাজ আলম,

রূপবিশেষজ্ঞ ও পরিচালক, ওমেন্স ওয়ার্ল্ড

 

 

 

‘‘ ফ্রাইডে অবশ্যই খুব ভালোভাবে এগিয়ে যাচ্ছে। সুন্দর কাজের মাধ্যমে নিজের এগিয়ে যাওয়াকে ধরে রেখেছে। দোয়া করি, ফ্রাইডের সামনের পথচলা যেন আরও ভালো হয়। ফ্রাইডেতে আমি ব্যক্তিগতভাবে সম্পৃক্ত। সেখানে কাজ করার সুযোগ হয়েছে। ফ্রাইডের পরিচ্ছন্নতার জন্য বরাবরই একটি ভালোলাগা কাজ করে।

 

 

—মারিয়া, উপস্থাপক

 

‘‘ বাংলাদেশ প্রতিদিন এবং ফ্রাইডে’র সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সবাইকে জানাই ১০০তম সংখ্যার শুভেচ্ছা। পত্রিকাটি আমার বেশ পছন্দের। পত্রিকাটির সঙ্গে আমার পথচলা দীর্ঘদিনের। ফ্রাইডে’তে আমার রেসিপিগুলো ছাপা হয় ভেবে আমি অনেক আনন্দিত। ভাবতেই ভালো লাগে, লাখো মানুষের কাছে আমার রেসিপিগুলো সহজেই পৌঁছে যাচ্ছে। আমি চাই ফ্রাইডে শুধুমাত্র ১০০তম সংখ্যাতেই নয়, এর পথচলা ছাড়িয়ে যাক হাজারের মাইলফলক। — কেকা ফেরদৌসি, রন্ধনশিল্পী

 

 

 

‘‘ ১০০ সংখ্যাটির মধ্যে রয়েছে আনন্দ আর উচ্ছ্বাস। ফ্রাইডের পথচলা ১০০-এর মাইলফলক পার করতে যাচ্ছে জেনে আমি অনেক আনন্দিত। ফ্রাইডে ফ্যাশন ট্যাবলয়েডটি শুধু ফ্যাশনের গণ্ডিতেই আটকে থাকেনি। ম্যাগাজিনটি মানুষের সুস্থ জীবন-যাপনের জন্য নানা টিপস প্রদান করে থাকে। ফ্রাইডের আরও একটি দিক হলো, মানসিক সমস্যার সমাধান। মানুষের জীবনে সমস্যার শেষ নেই। এসব সমস্যার সমাধানে ‘মনোবিদের মুখোমুখি’তে ছাপা হওয়া সমস্যার বিপরীতে দেওয়া দিক-নির্দেশনাগুলো যদি কেউ মেনে চলতে পারেন তবে একজন মানুষ সুন্দর একটি জীবন পার করতে পারবেন বলে আমার বিশ্বাস। আশা করি, ফ্রাইডে এগিয়ে যাবে নিজস্ব গতিতে। ফ্রাইডের ১০০তম সংখ্যায় পদার্পণে রইল অনেক অনেক ভালোবাসা।

— মোহিত কামাল, মনোবিদ

 

 

 

‘‘ কয়েক বছর আগে ‘আমি শুধু চেয়েছি তোমায়’ ছবির শুটিংয়ে অংশ নিতে ঢাকায় এসেছিলাম। তখন পত্রিকাটিতে আমার একটি সাক্ষাৎকার প্রকাশ হয়েছিল। শুনেছি এটি বাংলাদেশের অত্যন্ত জনপ্রিয় এবং শীর্ষ পত্রিকা। পত্রিকাটি হাতে নিলেই এর জনপ্রিয়তার রহস্য সহজে বোঝা যায়। সংবাদকে সংক্ষিপ্ত আর আকর্ষণীয় করে কীভাবে পাঠকের হৃদয়ে পৌঁছে দেওয়া যায় তা বাংলাদেশ প্রতিদিন পরিবার জানে। এই আধুনিকতাকে সঙ্গী করে সময়কে সহজে জয় করেছে পত্রিকাটি। আমি অবশ্য অনেক দিন ধরেই পত্রিকাটি দেখিনি। এবার আবার ঢাকায় এসে আমার ছবির প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান সূত্রে জানলাম এখনো সমান জনপ্রিয়তায় পাঠকের মন জয় করে চলছে পত্রিকাটি। তা ছাড়া জানলাম এই পত্রিকায় ‘ফ্রাইডে’, ‘শনিবারের সকাল’ শিরোনামের দুটি সাপ্লিমেন্টও প্রকাশ হচ্ছে। এই সংখ্যাগুলোরও জনপ্রিয়তার কথা শুনেছি। আসলে একটি পত্রিকার সফলতার জন্য প্রয়োজন এর সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের দূরদর্শী জ্ঞান ও মেধা। বাংলাদেশ প্রতিদিন পত্রিকাটির আকাশছোঁয়া জনপ্রিয়তা এই গুণের প্রমাণ দিয়েছে। আশা করব এই সাফল্য ধরে রেখে আরও সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে যাবে পত্রিকার প্রতিটি বিভাগ ও আয়োজন। হৃদয় নিংড়ানো শুভাশীষ রইল।

— শুভশ্রী, কলকাতার চলচ্চিত্র অভিনেত্রী

 

‘‘ ১০০ সংখ্যাটি সত্যিই অন্যরকম। এর মধ্যে কেমন যেন উচ্ছ্বাসের ঘ্রাণ পাওয়া যায়। ঠিক তেমনি ফ্রাইডের ১০০ সংখ্যাতেও উৎসবের ঘ্রাণ পাচ্ছি। এ পথযাত্রা ভবিষ্যতে আরও বেগবান এবং মজবুত হবে— এমনটাই প্রত্যাশা আমার। এ ছাড়া শুভেচ্ছা তো রইলই। একটু পুলকিত কারণ এই ফ্রাইডের সঙ্গে আমিও জড়িয়েছি। মনে আছে প্রচ্ছদে ছাপা হয়েছিল ছবি। দেশের সর্বাধিক প্রচারিত এ দৈনিকটির সঙ্গে ক্যারিয়ারের শুরু থেকেই রয়েছি। পেয়েছি তাদের  শুভ কামনা। ঠিক তেমনি এই ফ্রাইডের সঙ্গেও আজীবন থাকতে চাই। আর পাঠক হিসেবে বলব, সবকিছু মিলেই একটি পূর্ণাঙ্গ ফ্রাইডে। যে সবধরনের পাঠকের খোড়াক জোগাচ্ছে।

—পরীমণি, চিত্রনায়িকা

 

‘‘ ফ্রাইডের একশতম সংখ্যা বের হচ্ছে যেনে খুশি হয়েছি। শততম সংখ্যায় ফ্রাইডেকে অভিনন্দন। ফ্রাইডের আয়োজনগুলো চোখে পড়ার মতো। ফ্রাইডে বরাবরই দেশীয় ফ্যাশন হাউসগুলোর কাজের মূল্যায়ন করে থাকে। লাইফস্টাইল ট্যাবলয়েড হলেও এতে বৈচিত্র্য আছে। বাংলাদেশ প্রতিদিন যেমন পাঠকপ্রিয়তা পেয়েছে ফ্রাইডেও তেমন পাঠকদের মন জয় করেছে। প্রতি শুক্রবার আমি এর প্রতীক্ষায় থাকি। ফ্রাইডে সামনের দিনগুলোতে আরও ভালো আয়োজন নিয়ে আসবে সে কামনা করি।

— সৌমিক দাস, প্রধান নির্বাহী, রঙ বাংলাদেশ

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত
এই পাতার আরো খবর
up-arrow