Bangladesh Pratidin

ঢাকা, সোমবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : শুক্রবার, ৭ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ৬ অক্টোবর, ২০১৬ ২৩:৩৯
কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রক খাবার

হার্ট সুস্থ রাখতে কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণের ভূমিকা অনেক। এ জন্য প্রয়োজন কোলেস্টেরল মুক্ত খাবার তালিকা। জেনে নিন কী কী।

 

হার্ট সুস্থ রাখতে শুরুতেই নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে কোলেস্টেরল। কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে রাখতে জোর দিন নির্দিষ্ট কিছু খাবারের ওপর। এক গবেষণায় দেখা গেছে, প্রতিদিন ৩০০ মিলিগ্রামের বেশি কোলেস্টেরল মানুষের শরীরের জন্য ক্ষতি। তাই কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণ রাখতে নির্দিষ্ট খাবারের ওপর জোর দিন।

 

০. ওমেগা ৩ ফ্যাটি অ্যাসিড : ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিড শরীরে কোলেস্টেরল কমায়। শিম জাতীয় খাদ্য, ওয়ালনাট, জলপাই ইত্যাদি ছাড়াও মাছে রয়েছে ওমেগা ৩ ফ্যাটি অ্যাসিড। এই অ্যাসিড শরীরে এইচ ডি এল-এর মাত্রা বাড়ায়।

রক্তের মধ্যে দিয়ে এইচ ডি এল বাহিত হয়ে শরীরের অপ্রয়োজনীয় কোলেস্টেরলগুলোকে বের করে দেয়।

 

০. অলিভ অয়েল : অলিভ অয়েল বা জলপাইয়ের তেলে রয়েছে মনো-আনসেচুরেটেড ফ্যাটি এসিড ও ভিটামিন ই। গবেষণায় দেখা গেছে, এটা দেহের বাজে কোলেস্টেরল কমায় এবং ভালো কোলেস্টেরল বাড়ায়।

 

০. গ্রিন টি : গ্রিন টি শরীরের বাজে কোলেস্টেরলগুলোকে নষ্ট করে। গবেষণায় দেখা গেছে, প্রতিদিন ১০ কাপ করে গ্রিন টি কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য উপযুক্ত।

 

০. রেড ওয়াইন : রেড ওয়াইনেও বেশকিছু উপকার রয়েছে। রেড ওয়াইন শরীরের দরকারি কোলেস্টেরল বাড়াতে সাহায্য করে। এ ছাড়াও শরীরের ধমনিগুলোকে সবল রেখে রক্ত চলাচলের মাত্রা স্বাভাবিক রাখে।

 

০. পিয়াজ-রসুন : সুস্বাস্থ্যের জন্য রসুন খাওয়ার ইতিহাস বহু পুরনো। গবেষকরা বলেন, ‘রসুন, পিয়াজ শরীরে কোলেস্টেরলের পরিমাণ কমিয়ে হৃৎপিণ্ড ভালো রাখে। তরকারি ও সালাদে এগুলো বেশি বেশি খাওয়া উচিত। কারণ, এগুলো বেশ  হৃৎপিণ্ডবান্ধব।

০. ভিটামিন সি : ভিটামিন ‘সি’ রয়েছে সব ধরনের সাইট্রাস ফলে। যেমন : কমলা, গ্রেপফল, লেবু, ক্র্যানবেরি, স্ট্রবেরি, ব্ল্যাকবেরি, পেয়ারা ও আমের মধ্যেও ভিটামিন সি পাওয়া যায়। এ ছাড়া ক্যাবেজ বা পাতাকপি ও কাঁচামরিচ ভিটামিন সি যুক্ত খাবার।

 

০. বিটা ক্যারোটিন : গাঢ় হলুদ ফলে বিটা ক্যারোটিন রয়েছে। আম, হলুদ পিচফল,  কাঁঠাল, কুমড়া, মিষ্টি আলু, কাঠবাদাম, গাজর ইত্যাদি সবজি বা ফলে প্রচুর বিটা ক্যারোটিন রয়েছে। এ ছাড়া গাঢ় সবুজ সবজিও কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণের জন্য বেশ উপকারী।

০.অপ্রক্রিয়াজাত দানাজাতীয় খাবার : সব ধরনের অপ্রক্রিয়াজাত দানাজাতীয় খাবারে ভিটামিন বি ও মিনারেলস রয়েছে। এগুলো চর্বি ও কোলেস্টেরল কমায়। এ ধরনের খাদ্য যেমন : রুটি, গম, ভুট্টা, ওটমিলস ইত্যাদি। ওটস-এর মধ্যে রয়েছে হাই সলিউবল ফাইবার যা কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে বেশ কার্যকর।

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত
এই পাতার আরো খবর
up-arrow