Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : শুক্রবার, ৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ২২:০৫
ভালোবাসার আইনকানুন
ভালোবাসার আইনকানুন
অ্যাডভোকেট আহসান হাবিব ভূঁইয়া

ফেব্রুয়ারি ভালোবাসার মাস। ১৪ ফেব্রুয়ারি পৃথিবীর অন্যান্য দেশের মতো আমাদের দেশেও ভ্যালেন্টাইন ডে উদযাপন করা হয়। একে অপরকে ভালোবাসার কথা জানানো হয়। তবে যেহেতু সব পরিণয়ের পরিণতিই সুখকর হয় না সেহেতু আইন ও অধিকার সম্পর্কে সচেতন থাকলে অনেক অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতি থেকে পরিত্রাণ পাওয়া সম্ভব, ক্ষেত্রবিশেষে প্রতিকারও পাওয়া সম্ভব। মনে রাখা জরুরি প্রেম নিবেদনের মাধ্যমে রাস্তাঘাটে উত্ত্যক্ত করা হলে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ অরডিন্যান্স, ১৯৭৬ এর ধারা ৭৬ মোতাবেক জনসমক্ষে ইচ্ছাকৃত এবং অশ্লীল অঙ্গভঙ্গি অথবা মন্তব্য বা কথা দ্বারা অপমান বা বিরক্ত করলে ইভ টিজিং-এর জন্য সর্বোচ্চ সাজা এক বছর এবং সর্বোচ্চ দুই হাজার টাকা জরিমানার বিধান রয়েছে। অনেকেই প্রেমের টানে বা বিয়ের প্রলোভনে পড়ে শারীরিক সম্পর্কে জড়িয়ে এবং পরবর্তীতে সম্পর্কের গ্যাঁড়াকলে অনিচ্ছাকৃতভাবে গর্ভবতী হয়ে পড়েন। প্রতারণার ফাঁদে পড়ে সেসব সম্পর্ক আর বিয়ে পর্যন্ত গড়ায় না। নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন, ২০০০ এর ধারা ৯ অনুযায়ী ১৬ বছরের অধিক বয়সের কোনো নারীর সঙ্গে তার সম্মতি ব্যতিরেকে বা ভীতি প্রদর্শন বা প্রতারণামূলকভাবে তার সম্মতি আদায় করে অথবা ১৬ বছরের কম বয়সের কোনো নারীর সঙ্গে তার সম্মতিসহ বা সম্মতি ব্যতিরেকে শারীরিক সম্পর্ক করলে তা ধর্ষণ বলে গণ্য হবে এবং এরূপ অপরাধের জন্য অর্থদণ্ডসহ সর্বোচ্চ যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড হতে পারে। আর যদি সম্ভ্রমহানি হওয়ার প্রত্যক্ষ কারণে কোনো নারী আত্মহত্যা করে সেক্ষেত্রে আত্মহত্যার প্ররোচনার দায়ে ধারা ৯ক মোতাবেক অর্থদণ্ডসহ সর্বোচ্চ দশ বছর ও অন্যূন পাঁচ বছর কারাদণ্ড হতে পারে। এ ছাড়াও ধারা ১০ এর অধীনে নারীর শ্লীলতাহানি করলে বা স্পর্শ দ্বারা যৌন নিপীড়নের দায়েও অর্থদণ্ডসহ সর্বোচ্চ দশ বছর ও অন্যূন তিন বছর সশ্রম কারাদণ্ড হতে পারে। পেনাল কোডের ৩৫৪ ধারাতেও কোনো নারীর শালীনতার অবমাননা করার দণ্ডের বিধান রয়েছে। তবে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন, ২০০০ বিশেষ আইন বিধায় দ্রুত নিষ্পত্তি হয়। সাইবার অপরাধের কবলে পড়লে বাংলাদেশ তথ্য প্রযুক্তি আইন ২০০৬ (সংশোধনী ২০১৩) এর ৫৭ ধারায় মামলা করে দোষী ব্যক্তিকে অনধিক ১৪ বছর এবং কমপক্ষে ৭ বছর কারাদণ্ড এবং অনধিক ১ কোটি টাকা অর্থদণ্ডে দণ্ডিত করা যেতে পারে। ভালোবাসার সম্পর্ক হোক সজ্ঞানে ও সচেতনভাবে, যাতে পরিচয় থেকে পরিণয় কোনো পরিহাসের পরিণতিতে রূপান্তরিত না হয়।

এই পাতার আরো খবর
সর্বাধিক পঠিত
up-arrow