Bangladesh Pratidin

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২২ আগস্ট, ২০১৭

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২২ আগস্ট, ২০১৭
প্রকাশ : শুক্রবার, ১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ২১:৩৯
বিয়ের পরে প্রেম...
ফেরদৌস আরা
বিয়ের পরে প্রেম...
ছবি : ফ্রাইডে

প্রেমের পরিণতি নাকি বিয়েতে! তবে শিরোনামে ভিন্ন স্বাদ থাকলেও এখানে মূল চরিত্র কিন্তু স্বামী-স্ত্রী। বলছি দাম্পত্য প্রেমের কথা।

চোখ কপালে তোলার কিছু নেই, দাম্পত্য প্রেম শুধু সিনেমার পর্দায় বা রোমান্টিক উপন্যাসেই সীমাবদ্ধ নয়। দাম্পত্য জীবনেও রয়েছে প্রেমের অবাধ বিচরণ। কেননা, যিনি আপনার ঘরে আসছেন তিনি অবশ্যই আপনার বেটার হাফ। তাইতো বিয়ের পর প্রেম থাকে না, এমন কথাটিও একেবারে বেমানান। হাজার আলোর রশ্মি নিয়ে যে সম্পর্কের শুরু, তা কি শুধু বছর গড়ানোর সঙ্গে দীর্ঘশ্বাস ফেলতে পারে? তবু সময়ের তালে তালে এ সম্পর্ক একঘেয়ে হয়ে ওঠে প্রাত্যহিকতার রুটিন। তখন দাম্পত্য সম্পর্কও অভ্যাসে পরিণত হয়। কিন্তু আপনি চাইলেই বিয়ের আগের সেই প্রাণবন্ত প্রেমকে ফিরিয়ে আনতে পারেন। মনে করে দেখুন তো, শেষ কবে স্বামীকে আই লাভ ইউ বলেছিলেন? কিংবা শেষ কবে তার হাতের ওপর হাত রেখে রোমান্টিক গানের কলি শুনিয়েছিলেন? অথচ যখন আপনারা প্রেমিক প্রেমিকা ছিলেন, তখন দুজন দুজনকে কত গান, কবিতা শুনিয়েছিলেন। একজন আরেক জনকে কত কবিতা, উপন্যাসের বই উপহার দিয়েছিলেন।

অনেকেই আছেন পারিবারিকভাবে বিয়ের বন্ধনে আবদ্ধ হন। তাদের প্রেম নতুন করে জানা, ভালো লাগার বিষয় চলে বিয়ের পর প্রথম কয়েক বছরে। কিন্তু চল্লিশ পেরিয়ে কিছুটা একঘেয়েমি আসে। কিন্তু স্ত্রীকে খুশি করার জন্য প্রতিটি খুঁটিনাটি, পছন্দ-অপছন্দ, ছোটখাটো শখ-চাওয়া-না বলা ইচ্ছে সব পূরণ করেন, মুগ্ধ করেন অর্ধাঙ্গিনীকে। হয়তো ভাবছেন কীভাবে? আসলে খুব কঠিন কিছু নয়, তবে মনে রাখা প্রয়োজন ভালোবাসা নাজুক লতার মতো, তাকে সারাক্ষণ আদর-যত্নে রাখতে হয়। আসলে মেলবন্ধনে দুজনেরই প্রেম জরুরি নইলে হয় না। বিয়ে তো আর ইনস্টিটিউশন নয়, জীবনের নতুন অধ্যয়ন থেকেই একটা নতুন সম্পর্কের সূত্রপাত। আর এই সম্পর্কে প্রেমের আমেজ রাখাটা একটি ক্রিয়েটিভ প্রসেস। তাই বিয়ের পরও মনটাকে সবুজ রাখুন। এই যেমন একে অপরের জন্য সময় বের করুন। যে ফ্রি টাইম পাচ্ছেন তা বন্ধুবান্ধবদের সঙ্গে আড্ডা না দিয়ে আপনার বেস্ট ফ্রেন্ড স্ত্রীর সঙ্গে কাটান। মাঝে মাঝে স্ত্রীর সঙ্গে হাতে হাত মিলিয়ে কাজ করুন। অফিস শেষে বাড়ি ফিরে একসঙ্গে গল্প করুন। একজন আরেকজনকে কবিতা, উপন্যাস পড়ে শোনান। গান শোনাতে গানের গলা ভালো হওয়া লাগবে এমনটাও নয়। ভাঙা গলায়ও গান শোনান। দেখবেন আপনার অর্ধাঙ্গী খুশি হবে। মাঝে মাঝে সারপ্রাইজ হিসেবে স্ত্রীর জন্য উপহার নিয়ে আসুন। সামান্য উপহার পুরনো প্রেমকে আন্দোলিত করবে। ঘুম থেকে উঠে অথবা ঘুমাতে যাওয়ার আগে কিংবা কাজের সময় কথার মাঝে একবার ছোট্ট করে বলুন ভালোবাসি। হঠাৎ এমন কথা চমত্কৃত হওয়া ছাড়া উপায় কি বলুন?

আসলে ভেবে দেখুন তো! বিয়ের পর এরকম কতবার হয়েছে, যে ক্লান্ত বলে কিংবা বাড়ির অন্য কাজে সময় দিতে গিয়ে সঙ্গীরা প্রয়োজনগুলোই ভুলতে বসেছেন। তাই আজ থেকেই রচনা করে ফেলুন অর্ধাঙ্গীকে ভালোবাসার নতুন উন্যাস। একে অপরের জন্য সময় বের করুন। বিয়ে হয়ে গেছে বলেই যে বাইরে বেড়ানো বন্ধ রাখবেন, এরকম চিন্তা মনে আনবেন না। প্রতি মাসে অন্তত একটি-দুটি ক্যান্ডেল নাইট ডিনার কিংবা লং ড্রাইভে তো যাওয়াই যায়। একে অপরকে সারপ্রাইজ উপহার দেওয়াটাও কিন্তু রোমান্স জড়িয়ে রাখার অব্যর্থ ওষুধ। আসলে সব সময় উপলক্ষ লাগে না। হঠাৎ পাওয়া পছন্দের জিনিসের আবেগ একেবারেই আলাদা। আর এসএমএস প্রেম? খুব কঠিন কিছু নয় নিশ্চই! বিয়ে হয়ে গেছে বলেই কি একে অপরকে প্রেম নিবেদন করা যায় না? এসব ধারণা কিন্তু অচল। দুজন দুজনের কথা মন খুলে বলুন মেসেঞ্জারের মাধ্যমে। তবে সাংসারিক কথা নয়। ভালোবাসার কথা, প্রেমের কথা। দেখবেন দাম্পত্যের সমীকরণটাই বদলে গেছে।

এই পাতার আরো খবর
সর্বাধিক পঠিত
up-arrow