Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৭ আগস্ট, ২০১৭

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৭ আগস্ট, ২০১৭
প্রকাশ : শুক্রবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০৩:৪০
শার্টে ফুলেল ছোঁয়া
শার্টে ফুলেল ছোঁয়া
♦ মডেল : কারার মাহমুদ ও দীপ চৌধুরী ♦ পোশাক : ইনভাইট বাই বালুচর ♦ ছবি : ফ্রাইডে

ঋতুরাজ বসন্তে ফ্যাশন ট্রেন্ডে লেগেছে ফুলেল ছোঁয়া। সেই ধারাবাহিকতায় ছেলেদের শার্টেও চলছে ফ্লোরাল প্রিন্টেড ট্রেন্ড।

বারোমাসি ফ্যাশন ছাড়াও অফিস-আড্ডায় আরামদায়ক প্রিন্টেড শার্ট তারুণ্যের প্রথম পছন্দ। খাটো থেকে লম্বা, সাদামাঠা থেকে জমকালো সব ফরমাল বা ক্যাজুয়ালেই মানানসই। লিখেছেন— আবদুল কাদের

 

ছেলেদের পোশাকে শার্টের গ্রহণযোগ্যতা সারা বছর একই রকম। তবে মৌসুম ভেদে ভিন্ন রকমের শার্ট বাজারে আসে। যেমনটি দেখা যায় ঋতুরাজ বসন্তে। ফুলেল উৎসবে মেতে উঠেছে প্রকৃতি। ফুল প্রকৃতির আশীর্বাদ আর বন্ধুত্বের শুভাকাঙ্ক্ষী। প্রকৃতির মতো প্রজন্মেও ফুল হারিয়ে যায়নি; বরং নতুন মাত্রা যোগ হয়েছে। ছেলেদের পাঞ্জাবি, শার্ট, ফতুয়ায় এসেছে ফুলেল স্পর্শ। নতুনত্ব এসেছে ডিজাইনে। ফেব্রিকের দিক থেকে শার্টে এসেছে বৈচিত্র্য। যেমন চারদিকে ফুলেল প্রিন্টেড ফেব্রিকের শার্টের ছড়াছড়ি।

 

শীত বিদায় নিয়ে এখন চলছে বসন্ত। হালকা গরম, হালকা ঠাণ্ডার বসন্তে প্রকৃতির মতো মানুষের মনও নেচে উঠতে চায়। ছুঁয়ে যেতে চায় প্রকৃতির পবিত্র ফুলেল ছোঁয়ায়। আর সেই বসন্তের ফুলেল ছোঁয়া  লেগেছে ফ্যাশনেও। বারোমাসি ক্যাজুয়াল ফ্যাশনে শার্টের চাহিদা থাকলেও এই সময়ে এসে বেড়ে গেছে শার্টে কদর। হাল ফ্যাশনে ক্যাজুয়াল শার্টে এসেছে রং বদলের খেলা। খাটো থেকে লম্বা, সাদামাটা থেকে জমকালো সব ফরমাল কিংবা ক্যাজুয়ালেই মানানসই।

 

এখন বসন্তের প্রকৃতিতে হালকা পোশাকই বেস্ট অপশন। হালকা আরামদায়ক পোশাকে চাই বর্ণিল, কালারফুল কিছু একটা। আর এসব দিক থেকে বর্তমানে তরুণদের পছন্দের তালিকায় এগিয়ে ফুলেল প্রিন্টেড শার্ট। হালের ফ্যাশন ফুলেল মোটিফ নিয়ে ফ্যাশন হাউস ইনভাইট বাই বালুচরের ডিজাইনার শাহিন আহমেদ বলেন, ‘ছেলেদের শার্টে বরাবরের মতোই নতুনত্ব এসেছে। ছেলেরা ফ্লোরাল মোটিফের ফেব্রিকে তৈরি শার্টগুলো এখন বেছে নিচ্ছে। ডিজাইনে স্ক্রিনপ্রিন্ট বা বুনন যাই হোক না কেন সবাই চায় আরামদায়ক ফেব্রিক। তাই তো এসব কাপড়ে সুতির কাপড়ের প্রাধান্যই বেশি। রঙের দিকটি মিলিয়ে নেওয়া জরুরি। হাতা বা কলারের ভিতরের কাপড়েও ভিন্নতা নিয়ে আসার চেষ্টা করছেন অনেকেই। ’

 

ফ্যাশনে ট্রেন্ড কোনো দেশভেদে পরিবর্তন হয় না। শার্টের ক্ষেত্রেও এর ব্যতিক্রম নয়। শার্টের ট্রেন্ড এখন প্রিন্টেড ডিজাইন। আর ফুলেল মোটিফের প্রিন্টেড ডিজাইন চলছে বেশ। এখানে ডিজাইনারের কল্পনার বহিঃপ্রকাশ থাকে। সে কল্পনা সহন করে দেয় ফুলের নকশা। আর ছেলেদের ক্ষেত্রে প্রিন্টের রং হালকা হলে কাপড় গাঢ় হওয়া চাই। প্রিন্ট জমকালো হলে কাপড় একটু অমসৃণ বেশি মানায়। শার্টে স্ক্রিনপ্রিন্টের মধ্যেই বেশি ফোটে মোটিফ ডিজাইন।

 

তা ছাড়া কাপড়ের সঙ্গে সময়ের খাতিরের বিষয়টি মাথায় না রাখলেই নয়। কেননা, এই সময়টায় গরম ঠাণ্ডার মিশেল। তাই কাপড় হিসেবে আরামদায়কই হবে প্রথম পছন্দ। নানান রঙের ফেব্রিকে বৈচিত্র্য থাকলেও সুতি, ইজিপশিয়ান কটন, মিশ্র লিনেনের কদরই সবচেয়ে বেশি। কিন্তু সবকিছুকে ছাপিয়ে ঋতুরাজ বসন্তেও চলছে সুতির রাজত্ব। তবে সুতির কাপড়ের কটনের সঙ্গে লিনেন, ভিসকসের মিশ্রণেও কাপড়ের নমনীয়তা এবং মসৃণতা থাকে ঠিকঠাক। আবার কাপড়ের সঙ্গে প্রিন্টের মিল না থাকলেও ফ্যাশনটি যেন জমে ওঠে না। তাই বেছে নিন সেই ডিজাইনের পোশাক, যার কাপড় ফুলেল প্রিন্টের সঙ্গে মানানসই। পোশাকে প্যাটার্ন একটি মুখ্য বিষয়। প্যাটার্নের ওপর নির্ভর করে শার্টের শেপ কেমন হবে কিংবা ফিটিংস কেমন হওয়া চাই। এ ক্ষেত্রেও ট্রেন্ড গুরুত্বপূর্ণ। সময় এখন সেমি ফিটিংস শার্টের। বেশি টাইট শার্ট কয়েক বছর আগেই ফ্যাশনের বাইরে। আবার বেশি ঢোলাও মানানসই নয় এ যুগে। সেমি-ফিটিংস সময়ের সঙ্গে বেশ মানানসই।

 

শার্টের পরিবর্তনটা ইদানীং বেশ লক্ষণীয়। আগে শার্টে ফুলেল নকশা থাকলেও এখন সাধারণ শার্টে ফুলেল ছাপ ব্যবহার করা হচ্ছে। মানাচ্ছেও ভালো, ছেলেদের শার্টের ফুলগুলোর আকার করা হচ্ছে ছোট। রঙের ক্ষেত্রে ছেলেরা হালকা ও গাঢ় দুই ধরনের রংই পছন্দ করছে। গলায় হালকা কাজ, লম্বা হাতার ফ্লোরাল প্রিন্টেড শার্টগুলো সবসময় তো বটেই, যে কোনো পার্টি কিংবা আড্ডায় বেশ মানিয়ে যায়। প্রতিদিনের ছোটাছুটিতেও প্রিন্টেড শার্টগুলো ভালো। ডবল কলার, বেন্ট কলার চলবে। হাতা গুটিয়ে বা ফরমাল করেও পরা যাবে। শার্টে স্ট্রেটকাট থাকলেও পকেটের আশপাশে পিনটাকস  এখনকার ফ্যাশন। কাঁধের অংশে করা হচ্ছে শোল্ডার স্ট্র্যাপ ব্যবহারও।

 

শার্টে দেশীয় আমেজ খুঁজে পেতে চলে যেতে পারেন রঙ বাংলাদেশ, কে-ক্র্যাফট, সাদা-কালো, বিবিয়ানা, ইজি, বালুচর ইত্যাদি দেশীয় ফ্যাশন হাউসে। ব্র্যান্ড, নকশা ও কাপড়ভেদে শার্টের দাম নির্ধারণ করা হয়। বিভিন্ন ফ্যাশন হাউসে ফ্লোরাল মোটিফের ফুলেল শার্ট পাবেন ৯০০ থেকে ২৫০০ টাকার মধ্যে। এলিফ্যান্ট রোড, নিউমার্কেট, বঙ্গবাজার, পান্থপথের বসুন্ধরা শপিং মল, বসুন্ধরার যমুনা ফিউচার পার্ক, ধানমন্ডির মেট্রো শপিং মল, শাহবাগের আজিজ মার্কেটে পাবেন দেশি-বিদেশি হাজারো ব্র্যান্ডের শার্টের দোকান। যেখানে পেয়ে যাবেন পছন্দের অনেক শার্ট। সেখান থেকেই বেছে নিতে পারেন আপনার পছন্দের শার্টটি।

এই পাতার আরো খবর
সর্বাধিক পঠিত
up-arrow