Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শনিবার, ১৯ আগস্ট, ২০১৭

ঢাকা, শনিবার, ১৯ আগস্ট, ২০১৭
প্রকাশ : শুক্রবার, ১০ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ৯ মার্চ, ২০১৭ ২১:৫৮
দেয়াল যখন ক্যানভাস
উম্মে হানি
দেয়াল যখন ক্যানভাস
ছবি : ইন্টারনেট

দেয়াল যখন ক্যানভাস। দেয়াল পেইন্টিং, ব্রাইট ও ভাইব্রান্ট কালার, শিল্পীর তুলির আঁচড় কিংবা পেইন্টিং ক্যানভাস।

পুরো দেয়ালেই যেন রংতুলির ভালোবাসা। অন্দর সাজে আনে আভিজাত্য আর দেয়ালকে করে তোলে ভাইব্রান্ট।

 

সাবেকি রূপ তো এখানেই, যে কখনই পুরনো হয় না। এর একটা আলাদা সৌন্দর্য আছে। রয়েছে আবেদন। বাড়ির অন্দরমহলের দেয়ালের সৌন্দর্যে লিওনার্দো দ্য ভিঞ্চির ‘মোনালিসা’ কিংবা ভ্যান গগ বা পাবলো পিকাসোর আঁকা বিখ্যাত চিত্রশিল্প নয়, দেয়ালের ক্যানভাসে উজ্জ্বল রঙের সঙ্গে দেশীয় শিল্পীদের পেইন্টিংও অন্দরকে করে তোলে আকর্ষণীয়।

 

বাড়ির অন্দরের প্রবেশ পথে লাগিয়ে নিতে পারেন ডোরবেল। দেয়ালের একপাশেই সুসজ্জিত আয়না। আয়নার পাশে ফুল বা শোপিস রাখতে পারেন। অন্দরের দরজা খুলেই সোজাসুজি দেয়ালের বিখ্যাত ছবি। লম্বা দেয়ালে একাধিক আঁকা ছবি ফ্রেমবন্দী করে সাজানো। সব মিলিয়ে আপনার ঘরের দেয়ালকে করে তুলবে সাবেকি আমেজ। ডালপালা ছড়িয়ে দাঁড়িয়ে থাকা গাছ ঢেকে রেখেছে পুরো দেয়াল। আবার রূপকথার রাজকন্যারা খেলা করছে দেয়ালের এ মাথা-ও মাথায়। অন্দরের দেয়ালই ছবি আঁকার ক্যানভাস। গোটা বাড়িতেই একটা ভিনটেজ, কলোনিয়াল ফ্লেভার মনে হবে।

 

তবে সবকিছুর শুরুতে দেয়ালের রঙের স্থায়িত্ব আর উজ্জ্বলতার কথা মাথায় রাখতে হবে। তারপর দেয়াল ছবি আঁকার উপযোগী হয়ে উঠলেই ছড়িয়ে দিতে পারেন রঙের ক্যানভাস। কেউ ভালোবাসেন প্রকৃতি, কেউবা পেইন্টিং। অনেকে তো আবার এসব কিছুর ধারেকাছেই ঘেঁষেন না। বেছে নেন শৈল্পিক কোনো নকশা। একটু ভাবুন তো বেডরুমটি যদি হয় সাতরঙা রংধনু। কিংবা ড্রইং রুমের দেয়ালে বসানো হয়েছে পুরনো সেকেলে কোনো ক্যানভাস। অবশ্যই ভিন্নতা আনবে আপনার ঘরের অন্দর সাজে।

প্লেইন পেইন্টিং, রাস্টিক পেইন্টিং, টেকচার পেইন্টিং, থ্রি ডি পেইন্টিং কিংবা প্যাটার্ন ঘরের সঙ্গে মানিয়ে করতে পারেন। ছোট ঘরের দেয়াল কিংবা সিলিংয়ে করাতে পারেন ওয়াল পেইন্টিং। বড় ঘরে পুরোটাজুড়ে কিংবা বিপরীত দেয়ালে। ছোট ঘরে উজ্জ্বল আলো আর সূক্ষ্ম ডিজাইন মানাবে। সিলিংয়ে থ্রিডি পেইন্টিং আর ঘরজুড়ে প্লেইন পেইন্ট বা টেকচার পেইন্ট করাতে পারেন। ছোটদের ঘরজুড়ে থাকতে পারে রঙিন কার্টুন কিংবা ফুল, পাখি, প্রজাপতি। ড্রইং-ডাইনিংয়ে রাস্টিক পেইন্ট বা প্যাটার্ন মানায়। সঙ্গে ঝুলিয়ে দিতে পারেন নানা রকম ক্যানভাস।

 

দেয়ালজুড়ে ক্যানভাসের জন্য ব্যবহার করতে পারেন বিভিন্ন নকশার স্টিকার। দেয়ালের সৌন্দর্য বৃদ্ধি পাবে। উজ্জ্বল অন্দর সাজ যারা পছন্দ করেন, তারা অনেক সময় দেয়ালের রঙের ওপর ফোকাস করেন। এ ছাড়াও কিন্তু অন্দর সাজ আরও ব্রাইট ও ভাইব্রান্ট করা যায়। এই যেমন ধরুন বসার ঘরের দেয়ালে করতে পারেন অন্যরকম কিছু। কাচ বা মেলামাইনের সাদা প্লেটের ওপর আঁকতে পারেন শিল্পীর রঙিন ক্যানভাস। ফুটিয়ে তুলতে পারেন নানা রকম ছবি, মোটিফ। কখনো পশু-পাখি, কখনো ফুলের প্রতিচ্ছবি। দেয়ালে অ্যাসিমেট্রিক্যালি সাজিয়ে দিন প্লেটগুলো। ছবি তো কম-বেশি সবাই ঝুলিয়ে দেন। এ ছাড়া এসব প্লেটে শুধু কালো রং দিয়েই আঁকতে পারেন। মাল্টিকালার হলেও মানাবে।

 

তবে যাই করুন না কেন, সামর্থ্যের কথা চিন্তা করে রুচিশীল পেইন্টিং ঝুলি দিতে পারেন দেয়ালে। মুহূর্তেই বদলে যাবে ঘরের আবহ। তবে পেইন্টিং নির্বাচনের ক্ষেত্রে দেয়ালের রঙের কথা মাথায় রাখতে হবে। একটি দেয়ালে পেইন্টিং টাঙাতে হলে দেয়ালের বিপরীত রঙের ফ্রেমে পেইন্টিং বাঁধিয়ে নিন। একটু নতুনত্ব আনতে ঘরের ফাঁকা দেয়ালটিতে ওয়ালপেপার ব্যবহার করতে পারেন। ঘরকে একটু ভিন্নরূপে সাজাতে ব্যবহার করতে পারেন আপনার প্রিয়জনদের ফটো কোলাজ। প্রিয় মানুষ, বন্ধু-বান্ধব, পরিবারের সদস্যদের ছবিকে ছোট ছোট করে একত্রে রাখতে পারেন।

এ ছাড়াও বিখ্যাত পেইন্টিংস দেশি ও ভিনদেশি সভ্যতার কালজয়ী ছবি দিয়ে সাজাতে পারেন বাড়ির অন্দর। ছোটদের আনন্দ দেওয়ার জন্য ঘরে রাখতে পারেন টেডিবিয়ার, ডরিমন, সুপারম্যান, সিনড্রেলা, বার্বিডল, বেলুন কিংবা মাটির তৈরি পশুপাখির নানা টেরাকাটা ক্যানভাস। বাচ্চারা আঁকিবুঁকি বেশ পছন্দ করে তাই দেয়ালের একপাশে টাঙিয়ে দিতে পারেন হোয়াইট বোর্ড। মন চাইলেই অঙ্কনবিদ্যা জাহির করবে প্রতিভা।

এই পাতার আরো খবর
সর্বাধিক পঠিত
up-arrow