Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : ১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০১:৫৮ অনলাইন ভার্সন
বেশি খাওয়ার প্রবণতার জন্য দায়ী কম ঘুম
অনলাইন ডেস্ক
বেশি খাওয়ার প্রবণতার জন্য দায়ী কম ঘুম
ফাইল ছবি

খাবার খাওয়ার কিছুক্ষণের মধ্যেই আবার আপনার প্রচণ্ড খিদা পেয়ে গেল। তখন হয়ত মনে মনে আপনি ভাববেন আগের বারের খাওয়াটা ঠিক মতো হয়নি, সম্ভবত সেই জন্যই আবার খিদা পাচ্ছে। কখনও ভেবে দেখেছেন, এই বেশি খাওয়ার প্রবণতার সঙ্গে আপনার কম ঘুমের কোনও যোগসূত্র আছে কিনা।

গবেষকরা বলছেন, আপনার হঠাৎ মোটা হয়ে যাওয়া বা বেশি খাবার খাওয়ার পিছনে দায়ী আপনার কম ঘুম। এখনকার ব্যস্ত জীবনের সঙ্গে তাল মেলাতে গিয়ে আমাদের মধ্যে এমন অনেকেই আছেন যারা ঠিকমতো ঘুমানোর সময়ই পান না। আবার অনেকে আছেন যারা বিছানায় শুয়ে ঘণ্টার পর ঘণ্টা ফেসবুক বা অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়াতে কাটিয়ে দেন। এই সব কিছুর মাঝে পরে ঘুম আপনার জীবন থেকে প্রায় বিদায় নিতে বসেছে। 

কিন্তু বিশেষজ্ঞরা বলছেন, প্রতিদিন কোনও পূর্ণবয়স্ক ব্যক্তি যদি অন্ততপক্ষে ৭ থেকে ৯ ঘণ্টা না ঘুমান, তবে তার শরীরে নানা রকমের রোগ বাসা বাঁধতে পারে। আর সেই রোগ থেকেই জন্ম নেয় বিষন্নতা। আর এই বিষন্নতাই একসময় মানুষকে পরিমাণের চেয়ে বেশি খাওয়াদাওয়া করার দিকে ঠেলে নিয়ে যায়। 

বিশেষজ্ঞরা আরও বলছেন, বিষন্নতায় মানুষ সাধারণত চকোলেট, চিপস বা অন্যান্য ফাস্টফুড জাতীয় খাবার বেশি খেতে শুরু করে। যার ফলে ধীরে ধীরে তার মধ্যে মোটা হওয়ার প্রবনতাও তৈরি হতে পারে। তাই আজই এই সমস্ত জটিলতা এড়িয়ে যেতে সময় মতো ঘুমানো অভ্যাস করুন। প্রয়োজন হলে ঘুমানোর কিছুক্ষণ আগে থেকেই প্রস্তুতি নিতে শুরু করুন। 

যেমন ধরুন ঘুমানোর অন্তত ১৫ মিনিট আগে থেকেই আপনার স্মার্টফোনটি আপনার থেকে দূরে সরিয়ে রাখুন। আগে শুয়ে শুয়ে যে সময়টা স্মার্টফোন দেখতেন, সেই সময় এবার থেকে বই বা খবরের কাগজ পড়ার অভ্যাস তৈরি করুন।

আর তারপরও ঘুম না এলে ঘর অন্ধকার করে চুপচাপ বেশ কিছুক্ষণ শুয়ে থাকুন। তাতে আসতে আসতে আপনার মাথা থেকে গোটা দিনের যাবতীয় চিন্তা দূর হয়ে যেতে শুরু করবে। আর কিছুক্ষণ বাদে ঘুম এলে সেই ঘুমটাও গভীর ঘুম হবে।


বিডি-প্রতিদিন/ আব্দুল্লাহ সিফাত তাফসীর‌

আপনার মন্তব্য

এই পাতার আরো খবর
up-arrow