Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : সোমবার, ৪ জুলাই, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ৪ জুলাই, ২০১৬ ০০:৪৪
গর্ভাবস্থায় আল্ট্রাসনোগ্রাফি (US-এ)
ডা. রুশদানা রহমান তমা

গর্ভবতীদের US-এ একটি অত্যন্ত জরুরি পরীক্ষা। গর্ভাবস্থার বিভিন্ন পর্যায়ে এর গুরুত্ব বিভিন্ন রকম। যেমন গর্ভাবস্থার ১-১২ সপ্তাহে : এ সময়ে যে যে কারণে US-এ করার প্রয়োজন হয়-১. জরায়ুতে বাচ্চা আছে কিনা নিশ্চিত করার জন্য। গর্ভথলির ভিতর ভ্রূণ বা ইয়োক স্যাক থাকলে গর্ভাবস্থা নিশ্চিত করা যায়। সাধারণত ৮-১২ সপ্তাহের মধ্যে US-এ করা উচিত কারণ ৮ সপ্তাহের আগে পেটের US-এ তে ভ্রূণ দেখা যায় না। যদিও TVS করে ৬ সপ্তাহে ভ্রূণ দেখা যায়। ২. বাচ্চার সম্ভাব্য জন্মের তারিখ নির্ণয়ের জন্য।

কারণ শেষ মাসিকের তারিখ দিয়ে জন্মতারিখ নির্ণয় করতে গেলে কিছুটা ভুল হতে পারে। যেহেতু ডিম্বস্ফুটনের তারিখ নির্দিষ্ট করে বলা যায় না।

৩. ভ্রূণের সংখ্যা ও ভ্রূণবিহীন জন্মথলি  নির্ণয়।

গর্ভাবস্থার ১৩-২৮ সপ্তাহে : এ সময়ে টঝ-এ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ কারণ-১. ১৩ সপ্তাহে এনেনকেফালি (মাথার উপরে খুলি ও মস্তিষ্কবিহীন বাচ্চা) ধরা পড়ে ২. ১৪-২০ সপ্তাহের মধ্যে সম্ভাব্য জন্মের তারিখ ভালোভাবে নির্ণয় করা যায়। ৩. এনোমালি স্ক্যান : ১৮-২২ সপ্তাহে বাচ্চার জন্মগত ত্রুটি নির্ণয়ের উত্কৃষ্ট সময়, যেমন হাইড্রোকেফালি (মাথায় পানি জমে মাথা বড় হয়ে যাওয়া) এবং মস্তিষ্কের ভিতরের বিভিন্ন অংশের জন্মগত ত্রুটি নির্ণয় করা যায়। বাচ্চার হার্টের ৪টি চেম্বারে বা বড় রক্তনালির কোনো ত্রুটি থাকলে তাও ধরা পড়ে। এছাড়া বাচ্চার পাকস্থলী, অন্ত্রে ত্রুটি দেখেও ক্রমোসমের ত্রুটি সম্বন্ধে ধারণা পাওয়া যায়। বাচ্চার শিরদাঁড়ার বিভিন্ন রকম ত্রুটি, পেটের অংশ না থাকা (ওমফেলোসিল, গ্যাস্ট্রোসকিসিস) ইত্যাদি নির্ণয় করা যায়। ৫. গর্ভফুলের অস্বাভাবিক অবস্থান যেমন প্লাসেন্টা প্রিভিয়া (জরায়ুর ভিতরের মুখ ও গর্ভফুলের মধ্যের দূরত্ব ২ সে.মি. এর কম হলে) সেটাও ধরা পড়ে,

কারণ এটি এক ধরনের ঝুঁকিপূর্ণ গর্ভাবস্থা।

লেখক : কনসালটেন্ট ও প্রসূতি রোগ বিশেষজ্ঞ (গাইনি ও অবস), সরকারি কর্মচারী হাসপাতাল, ঢাকা।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow