Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : শনিবার, ৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ২ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২৩:৩৪
ব্যথার নাম ডিসমেনোরিয়া

দেশের প্রায় ৫০% মেয়ে মাসিকের ব্যথায় ভোগে। ৫-১০% ক্ষেত্রে এই ব্যথা তীব্র হতে পারে।

একে ডিসমেনোরিয়া বলে। এ ব্যথা দুই ধরনের, প্রাইমারি ও সেকেন্ডারি।

প্রাইমারি : সাধারণত অল্প বয়সী মেয়েদের মাসিকের শুরু হতে ২৫ বছর বয়সের মধ্যে এই ব্যথা হয়। প্রোস্টাগ্ল্যান্ডিন নামক এক ধরনের রাসায়নিক পদার্থ জরায়ুর মাংসের সংকোচন করে, ফলে এই ব্যথা হয়।

সেকেন্ডারি : সাধারণত ২৫ বছর বা তার বেশি বয়সী মহিলাদের মাসিকের ব্যথাকে সেকেন্ডারি বলে ধরে নেওয়া হয়। প্যাথলজিক্যাল কারণেই সাধারণত এই ব্যথা হয়। কারণগুলো হলো— ১. জরায়ুতে বিনাইন টিউমার (ফাইব্রয়েড) ২. এন্ড্রোমেট্রিয়সিস (জরায়ুর বাইরে ডিম্বাশয়ে বা এর আশপাশে জরায়ুর টিস্যু ও রক্ত জমাট বেঁধে সিস্ট হয়ে এই ব্যথা হতে পারে। ) ৩. এডিনোমায়োসিস (জরায়ুর মাংসের ভিতর রক্ত জমে সিস্ট হওয়া। ৪. জরায়ুর ইনফেকশন (পেলভিক ইনফ্লেমেটরি ডিজিজ) বা পিআইডি ৫. পেলভিক টিউবারকুলোসিস

রোগ নির্ণয় : রোগীর ব্যথার ইতিহাসে, ক্লিনিকাল পরীক্ষা ও টেস্ট করে ধরন বুঝে রোগ নির্ণয় করা যায়। যেমন : ১. প্রাইমারি ডিসমেনোরিয়াতে ব্যথা মাসিক শুরুর কয়েক ঘণ্টা আগে বা পরে শুরু হয়ে ১২-৪৮ ঘণ্টার বেশি থাকে না। ২. ফাইব্রয়েডের জন্য ব্যথা হলে সেটা মাসিকের প্রথম ২-৩ দিন থাকে, এরপর আর থাকে না তবে প্রত্যেক মাসিকের সময় ব্যথার তীব্রতা বাড়তে থাকে। ৩. এন্ড্রোমেট্রিয়সিস ও এডিনোমায়োসিসের ক্ষেত্রে মাসিকের ২-৩ দিন আগে ব্যথা শুরু হয়ে মাসিকের সময় ব্যথা তীব্র হয় এবং মাসিকের পরও এই ব্যথা কিছু কিছু থেকেই যায়। জরায়ুর ইনফেকশনের (পিআইডি) ব্যথা মাসিকের ২-৩ দিন আগে শুরু হয় এবং মাসিক শুরু হলে ব্যথা চলে যায়। এক্ষেত্রে দুর্গন্ধযুক্ত স্রাব এবং সহবাসের সময় ব্যথা হতে পারে।

ডা. রুশদানা রহমান তমা

কনসালটেন্ট (গাইনি), সরকারি কর্মচারী হাসপাতাল ও ভিক্টোরিয়া হেলথকেয়ার লি. মোহাম্মদপুর।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow