Bangladesh Pratidin

ঢাকা, সোমবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২৩:৩৮
চাই কোলেস্টেরলমুক্ত ঈদের খাবার
চাই কোলেস্টেরলমুক্ত ঈদের খাবার

একটু যত্নবান হলে সবাই মিলেই ভাগাভাগি করা যেতে পারে ঈদের আনন্দ। তাই প্রয়োজন কোলেস্টেরলমুক্ত ঈদের খাবার। এছাড়া চাই কিছু সতর্কতা এবং নিয়মিত নিয়ন্ত্রিত জীবনধারা। মাথায় রাখুন আপনি যেখানেই যাবেন অল্প করে খাবেন। একটু একটু করে খান। দিনে চারবারের পরিবর্তে ছয়বার খান। যেমন সারাদিনে ২০০০ ক্যালরি খাওয়ার কথা থাকলে প্রতিবার ৪০০ ক্যালরি করে ৫ বার খাবেন। দুপুরে হালকা কিছু খেয়ে বিকালে খেতে পারেন ফ্রুটস সালাদ বা খোসাসহ দু’একটি ফল। ফলের রস খাবেন না। গোটা ফলই বেশি উপকারী। দাওয়াত থাকলে ঘরে কম করে খাবেন। শুরু করুন এক গ্লাস পানি দিয়ে। দেখবেন খাই খাই ভাবটা আর থাকছে না। এরপর নজর দিন সালাদের দিকে। সবজির আইটেম থাকলে অবশ্যই খাবেন।  প্রথমত খাদ্যাভ্যাস পরিবর্তন এবং সামান্য কিছু ব্যায়াম ও মেডিটেশনের মাধ্যমেই সুস্থতার প্রাথমিক ধাপে পা রাখতে পারেন। ধারাবাহিক হলিস্টিক চিকিৎসার অভিজ্ঞতা থেকে আমাদের মনে দৃঢ় আস্থা ও বিশ্বাস জন্মেছে যে, ব্লকেজ ধরা পড়েছে এমন রোগী প্রতিকার ও প্রতিরোধের ভিতর দিয়ে আনন্দময় জীবনের অধিকারী হতে পারেন। হলিস্টিক চিকিৎসা একটি পরীক্ষিত বিজ্ঞানসম্মত চিকিৎসা পদ্ধতি যা আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত। বিশ্বের প্রতিটি দেশেই এখন এ পদ্ধতিতে চিকিৎসা হচ্ছে।  হূদরোগীদের খাদ্যাভ্যাসে পরিবর্তন এনে এবং নিয়মিত যোগব্যায়াম, মেডিটেশন করলেও রোগের প্রভূত উন্নতি সাধিত হয়। এছাড়া খাবারকে কোলেস্টেরলমুক্ত রাখতে হবে। ঈদের তুমুল পোলাও-মাংসের আয়োজনে কোলেস্টেরল যাতে শরীরে ঢুকতে না পারে আর খাবার খেয়ে কোষ্ঠকাঠিন্যও যাতে না হয় সে জন্য খাবারের সঙ্গে সঙ্গে নজর দিন সালাদে। কোলেস্টেরলকে বেশ কয়টি ভাগে করা হয়। যাদের লিপিড নামেও অভিহিত করা হয়ে থাকে| ˆhgb Total Cholesterol (TC) যার মাত্রা বৃদ্ধির সঙ্গে হূদরোগে আক্রান্ত হওয়ার হার অনেক বেশি| Low density lipoprotein (LDL) যাকে সবচেয়ে ক্ষতিকারক কোলেস্টেরল হিসেবে বিবেচনা করা হয়। High density lipoprotein (HDL) এর মাত্রা বেশি থাকলে হূদরোগ ও স্ট্রোকের ঝুঁকি হ্রাস পায় বলে একে বন্ধু কোলেস্টেরল বলা হয়। শসা, টমেটো, লেবু সহযোগে সালাদ যেন প্রতিবারের খাবারে থাকে। সবচেয়ে বড় কথা হূদরোগীরা এসময় একটু বেশি সতর্ক থাকবেন। এড়িয়ে চলবেন চর্বিযুক্ত খাবার। প্রয়োজনে চিকিৎসকের পরামর্শ নিবেন। মনে রাখবেন প্রতিকার নয় প্রতিরোধ উত্তম। তাই ঈদের সময় এ বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে।

অধ্যাপক ডা. গোবিন্দ চন্দ্র দাস, হলিস্টিক হেলথ কেয়ার, ঢাকা। ফোন : ০১৭২১৮৬৮৬০৬

এই পাতার আরো খবর
up-arrow