Bangladesh Pratidin

ঢাকা, রবিবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : রবিবার, ১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:১৮
জেনে রাখা ভালো
খাবার শেষে দই
স্বাস্থ্য ডেস্ক

উৎসবের মেন্যুতে দই এক অনন্য খাবার। তাই খাবার তৈরিতে এবং খাবার শেষে দই নানা কারণে উপকারী। বিশেষ করে ঈদুল আজহায় খাবারের অন্যতম অনুষঙ্গ হতে পারে  দই। কারণ এই দইয়ের  রয়েছে বেশ কয়েকটি গুণ। সম্প্রতি আলোচিত প্রোবায়োটিক্সের মধ্যে দই অন্যতম। প্রোবায়োটিক্স হচ্ছে এক ধরনের জীবিত জীবাণু, যা পরিমিত মাত্রায় শরীরের অনেক উপকার করে। দইয়ের মধ্যে থাকে সেরকম একটি প্রোবায়োটিক্স। যার নাম ল্যাকটিক এসিড ব্যাকটেরিয়া বা সংক্ষেপে ল্যাব। এই ল্যাব কোলন ক্যান্সার প্রতিরোধ থেকে শুরু করে হজমের সুবিধাসহ শরীরের অনেক উপকার করে।

হজমে দই : ‘মিট টেন্ডারাইজার’ হিসেবে দই পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াহীন। এ কারণে মাংস মেরিনেট করতে দইয়ের ব্যবহার অত্যন্ত কার্যকর। সালাদেও দই ব্যবহারে বাড়তি সুবিধা পাওয়া যায়। যাদের দুধ হজমে সমস্যা তারা অনায়াসে দইকে বেছে নিতে পারেন। পোলাও-মাংস খাওয়ার পর দই খাওয়ার উপকার অনেক। দই মাংস হজমে সাহায্য করে। আবার মাংস বেশি বা অধিক গুরুপাক খাবার খেলে তা থেকে শরীরে পচনকারী ক্ষতিকর যেসব ব্যাকটেরিয়া উত্পন্ন হয় তা প্রতিরোধেও দই দারুণ উপকারী।  কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে :  মাংসের কোলেস্টেরল যাতে শরীরে শোষিত হতে না পারে সে কাজটিও করে দই। দইয়ের ‘ল্যাব’ চর্বি হজমকারী পিত্তরসকে খাদ্যনালিতে  ভেঙে অন্য উপাদানে রূপান্তরিত করে ফেলে। ফলে চর্বি হজম হতে না পেরে শরীর থেকে বেরিয়ে যায়।  কোষ্ঠকাঠিন্য : কোষ্ঠকাঠিন্য কমাতে দই উপকারী। ঈদের এই ভোজনের আয়োজনে সবার জন্য তো বটেই, যারা  উচ্চ রক্তচাপ কিংবা মেদাধিক্যে ভুগছেন তাদের বেলায়ও খাবারের পর দই-বোরহানি উপকারী। ঈদের সময়টায় আত্মীয়-স্বজনের বাড়িতে একটু বেশি যেতে হয়। মাথায় রাখুন আপনি যেখানেই যাবেন অল্প করে খাবেন।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow