Bangladesh Pratidin

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২১ নভেম্বর, ২০১৭

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২১ নভেম্বর, ২০১৭
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ৬ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ৫ অক্টোবর, ২০১৬ ২৩:৪২
জেনে রাখা ভালো
জেনে রাখা ভালো

Renal Colic বলতে

কিডনিতে পাথুরীজনিত ব্যথাকে বুঝায়। তা ছাড়া ইউরেটরের পাথুরীর জন্যও তীব্র ব্যথা হতে পারে।

যাকে টত্বঃবত্রপ ঈড়ষরপ বলা হয়। মূত্রগ্রন্থি বা কিডনির মধ্যে পাথরের সৃষ্টি হলে মূত্রপাথুরী বলা হয়। এই পাথর কণা কখনো মূত্র কোষে, কখনো মূত্রবাহী নালিতে বা মূত্র থলিতে

এসে জমা হয় এবং প্রস্রাব অবরুদ্ধ করে, ফলে তীব্র

যন্ত্রণার সৃষ্টি করে। পাথর কণা বিভিন্ন আকারের হতে পারে। বর্তমান সময়ে এ রোগটি

অনেক প্রসার ঘটেছে। সাধারণত মহিলা অপেক্ষা পুরুষের এই রোগটি বেশি দেখা যায়। বিভিন্ন কারণে মূত্রপাথুরী হতে পারে। যেমন- অতিরিক্ত চুন খাওয়া, পরিপাক ও পরিপোষণ কাজের ব্যাঘাত ঘটা। তবে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে জলবায়ু ও পেশাগত কারণের ওপর অনেকটা নির্ভর করে।

এ ছাড়া শরীর থেকে অত্যধিক ঘাম নির্গত হলে, কোনো কারণে মূত্রাবরোধ দেখা দিলে, স্নেহজাতীয় খাবার বেশি খেলে, রক্ত সংবহন ক্রিয়ায় ব্যাঘাত প্রভৃতি কারণে মূত্র পাথুরী হতে পারে। মূত্র যন্ত্রের পাথুরীজনিত সমস্যার লক্ষণ নির্ভর করে এর অবস্থিতি, আকার ও আকৃতির ওপর। আধুনিক চিকিৎসাবিজ্ঞানে X-ray,

USএ ও Urine পরীক্ষার মাধ্যমে পাথুরীর অবস্থান শনাক্ত করে হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা গ্রহণ করলেও এসব সমস্যা হতে মুক্ত হওয়া যায়। তবে অবশ্যই তা নিতে হবে

প্রাথমিক পর্যায় থেকে। কারণ প্রতিক্রার নয় যেকোন রোগের প্রতিরোধ সবর্দা উত্তম।

ডা. আবুল কালাম আজাদ,

কনসালটেন্ট, হোমিওপ্যাথিক ফাউন্ডেশন হাসপাতাল, ঢাকা।

ফোন : ০১৯২৮৭০৫০৩০

up-arrow