Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : শনিবার, ৮ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ৮ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:৪৬
শিশুদের উইনিং ডায়েট
শিশুদের উইনিং ডায়েট

শিশুর ছয় মাস বয়সের পর মায়ের দুধের পাশাপাশি একটু একটু করে মাছ, ডিম , খিচুড়ি, কলা ইত্যাদি খাবার খাওয়ানোর অভ্যাস করাকে বলা হয় উইনিং আর খাবারকে বলা হয় উইনিং ডায়েট। কিছু মা আছেন যারা ছয় মাসের আগেই শিশুকে ভালোবেসে বুকের দুধের পাশাপাশি মাছ, মাংস খাওয়ানোর চেষ্টা করেন।

কিছু মা আছেন যারা ছয় মাসের পরে শিশুকে ভালোবেসে বুকের দুধ খাওয়াতে থাকেন কিন্তু মাছ, মাংস খাওয়ানোর চেষ্টা করেন না। এই ভালোবাসা শিশুকে যেমন অপুষ্টি দেয় তেমনি ব্রেন ডেভেলপমেন্টেও বাধা দেয়।

প্রোটিন, কারবোহাইড্রেট, ফ্যাট, ভিটামিন , মিনারেল, পানি এই ছয়টি উপাদান শিশুকে পরিমিত পরিমাণে খাওয়ানো উচিত। কিছু মা আছেন যারা শিশুকে শুধু প্রোটিন জাতীয় খাবার যেমন মাছ, মাংস, ডিম খাওয়াতে পছন্দ করেন। এসব শিশু অন্যান্য খাবার থেকে বঞ্চিত হয় বলেই এরা ধীরে ধীরে চিকন হতে থাকে, পেট মোটা হয়ে যায়, মেজাজ খিটখিটে হয়ে যায়। এই রোগের নাম ম্যারাসমাস। আবার যে সব শিশু সেরেলাক, নিডো বা দুধ জাতীয় খাবার বেশি খায় অন্যান্য খাবার ঠিক মতো খায় না সেই সব শিশুকে মোটা দেখলেও এরা কিন্তু আসলে মোটা নয়। এদের শরীরে পানি জমে বলেই এদের মোটা দেখায়, এরা অ্যালার্জি জনিত রোগে আক্রান্ত হয় বেশি। এই অপুষ্টি জনিত রোগের নাম কোয়াশিওরকর। শিশুকে ভিটামিন জাতীয় খাবার যেমন শাক সবজি ফল কম খাওয়ালে এদের মুখে ঘা হয়, চোখে কম দেখে, দাঁত দিয়ে রক্ত পড়ে, দাঁত ক্ষয়ে যায়।

ডা. আনিস  আহমেদ, সহকারী অধ্যাপক

স্টেট কলেজ অব হেলথ সায়েন্সেস, ধানমন্ডি, ঢাকা।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow