Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : বুধবার, ১২ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১১ অক্টোবর, ২০১৬ ২৩:২৫
রোগের উপসর্গ যখন জিহ্বায়

মানবদেহের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ ও বড় গ্রন্থি লিভার। যা পেটের (Abdominal cavity-এর উপরে) ডান দিকে অবস্থিত এবং একে শরীরের ল্যাবরেটরি বলা হয়।

লিভারের রোগ হলে বিভিন্ন উপসর্গ দেহে পরিলক্ষিত হয়। তবে সবচেয়ে বেশি উপসর্গ পরিলক্ষিত হয় জিহ্বায়। জিহ্বার পরীক্ষা দ্বারা সহজেই লিভারের রোগ বোঝা যায়। যেমন— জিহ্বা হলদে লেপাবৃত হলে পিত্ত সংক্রান্ত রোগ ও নিঃসরণের অভাব; জন্ডিস, পিত্ত পাথুরি, হেপাটাইটিস বি-ভাইরাস প্রভৃতি দেখা যায়। জিহ্বা কালচে লেপাবৃত হলে অত্যন্ত অশুভ এবং তা লিভারের জটিল সমস্যা বোঝায়। ছাড়া লিভারে বিভিন্ন রোগ দেখা যায়— লিভার প্রদাহ (Hepatitis), লিভার শীর্ণতা জন্ডিস (Joundice), হেপাটো সেলুলার কারসিনোমা বা ক্যান্সার (Cancer)। লিভারের ঠিক নিচে থাকে গল ব্লাডার। এতে পাথুরী (Stone) এবং ক্যান্সারের মতো রোগ দেখা দেয়। এসব প্রদাহ দীর্ঘদিন স্থায়ী হলে লিভারেও ক্যান্সার হতে পারে। অন্যান্য ক্যান্সার থেকে লিভারের ক্যান্সার বেশি আশঙ্কাজনক। শুরুতেই যদি  চিকিৎসা গ্রহণ করা যায় তাহলে লিভারের যে কোনো সমস্যা থেকে বিনা অপারেশনে আরোগ্য লাভ করা যায়। এসব রোগ নির্ণয়ে বিভিন্ন পরীক্ষা করতে হয়। যেমন—TC, DC, Liver function test, Liver biopsy, Bilirubin  ইত্যাদি। পরীক্ষার ফলাফলের পর যথোপযুক্ত চিকিৎসা নিতে হবে। সুতরাং মনে রাখতে হবে, প্রতিকার নয় প্রতিরোধ সর্বদা উত্তম। কারণ চিকিৎসা না নিলে জটিলতা বাড়ে।

ডা. আবুল কালাম আজাদ,

কনসালটেন্ট, হোমিওপ্যাথিক ফাউন্ডেশন হাসপাতাল।

ফোন : ০১৯২৮৭০৫০৩০

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

এই পাতার আরো খবর
up-arrow