Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বুধবার, ২২ নভেম্বর, ২০১৭

ঢাকা, বুধবার, ২২ নভেম্বর, ২০১৭
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ৯ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ৮ মার্চ, ২০১৭ ২৩:৫০
কক্সিডাইনিয়া

কক্সিডাইনিয়া সাধারণত টেইলবোন এ ব্যথা বা কক্সিসের ব্যথা নামে পরিচিত। সাধারণত মেরুদণ্ডের শেষ মাথায় এ ব্যথাটা কোনো চাপ পেলে অনুভূত হয়।

যেমন- অনেকক্ষণ বসে থাকার পর বসা থেকে উঠার সময় মনে হয় যেন দুই বাটকের মাঝখানটা ছিঁড়ে যাচ্ছে। অথবা যে কোনো কারণে যদি মেরুদণ্ডের শেষ মাথায় চাপ পড়ে তাহলে ব্যথাটা অনুভূত হয়। কাদের বেশি হয় এবং কেন হয়? এ ব্যথাটা সাধারণত পুরুষের থেকে মহিলাদের বেশি হয়। কারন : * আঘাতের কারণে হতে পারে। যেমন : কোনোভাবে পড়ে গেলে।

* নরমালে বাচ্চা হওয়ার সময়।

* যে কোনো ইনফেকশন বা টিউমার হলে। * অনেক দিন ধরে অনেক সময় ধরে শক্ত জয়গায় বসে কাজ করলে। * বয়সের কারণে মেরুদণ্ডের হাড় ক্ষয়/বৃদ্ধিজনিত কারণেও এ

ব্যথা ।

* পেলভিক ফ্লোর মাংসপেশি দুর্বল হলে। * অনেকদিন ধরে কোমর ব্যথা থাকলে। * ডিক্সপ্রলাপ্স থাকলে

আপনি কি করে বুঝবেন :

* মেরুদণ্ডের শেষ মাথায় ব্যথা হবে। * অনেকক্ষণ বসে থাকার পর উঠার সময় দুই বাটকের মাঝখানে ব্যথা অনুভূত হবে।

চিকিৎসা : মেরুদণ্ডের শেষ মাথায় ব্যথার যখন প্রদাহ চলে তখন প্রথম অবস্থায় ব্যথার ওষুধ খাওয়া যেতে পারে পাঁচ-সাত দিন প্রদাহ কমানোর জন্য। কিন্তু মাংসপেশির শক্তি ঠিক রাখার জন্য শুরু থেকেই আমরা মেনুপুলেশন থেরাপি প্রদান করতে পারি। * ক্রসলেগ এভব নি * প্রেস- পুল * পেলভিক ফ্লোর এর মাংসপেশির শক্তি বাড়ানো * পেলভিক কারেকশন থেরাপি * পিলো ব্যবহার করতে হবে যা বসার প্রেসার কমাবে।

ডা. ছাপিয়া আকতার (পিটি)

কন্সালটেন্ট-ASPC ম্যানুপুলেশন থেরাপি সেন্টার

মোহাম্মদপুর, ঢাকা।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow