Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : ৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১১:৫০
চিনে লাল গালিচা সংবর্ধনা থেকে বঞ্চিত ওবামা
অনলাইন ডেস্ক
চিনে লাল গালিচা সংবর্ধনা থেকে বঞ্চিত ওবামা

জি-২০ শীর্ষ সম্মেলনে যোগ দিতে যাওয়া সব বিশ্বনেতাকে রবিবার লাল গালিচা সংবর্ধনা দিলেও মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার সঙ্গে সেই কূটনৈতিক শিষ্টাচার প্রদর্শন করেনি চিন। রবিবার সকালে একে একে চিনের বিমানবন্দরে নামেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন, দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট পার্ক জিউন হাই, ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট মাইকেল তেমার এবং ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে।

বারাক ওবামা ছাড়া অন্য বিশ্বনেতাদের সবাইকে দেওয়া হয় লাল গালিচা সংবর্ধনা।

সিএনএন জানায়, হাংঝু বিমানবন্দরে উগ্র চিনা জাতীয়তাবাদী দৃষ্টিভঙ্গির স্বীকার হন মার্কিন কূটনীতিকরা। লাল গালিচা তো দূরের কথা, মার্কিন প্রেসিডেন্টকে বিমান থেকে নামার জন্য রোলিং স্টেয়ারকেইজ (আলাদা সিঁড়ি) পর্যন্ত সরবরাহ করেনি চিন।  

নিজ ব্যবস্থায় বিমান থেকে নামার পর ওবামার পেছনে হাঁটতে শুরু করেন তার সফরসঙ্গীরা। কিন্তু তাদের পথ রোধ করে দেন চিনের এক নিরাপত্তা কর্মকর্তা। এক নারী মার্কিন কর্মকর্তা প্রতিবাদ জানালে তিনি চিৎকার করে বলে ওঠেন, ‘এটাই চিন। এটা আমাদের দেশ। এটা আমাদের বিমানবন্দর। ’ সে সময় ওই নারী কর্মকর্তার কাঁধে ঝোলানো হ্যান্ডব্যাগটি তল্লাশি করেন তিনি। এরপর প্রেসিডেন্টের থেকে তাদের দূরত্ব তৈরি করতে একটি নীল দড়ি দিয়ে ‘ব্যারিকেড’ গড়ে তোলা হয়! সেই সময় মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা রাইসকে ইশারায় ডাক দেন ওবামা। রাইস দড়ি তুলে ওবামার কাছে যাওয়ার চেষ্টা করতেই তার পথ আটকান ওই চিনা নিরাপত্তা কর্মকর্তা।  

এ নিয়ে চিনা কর্মকর্তাদের সঙ্গে মার্কিন কর্মকর্তাদের বিবাদও হয়। অবশ্য এ ব্যাপারে এখন পর্যন্ত চিন কোনো মন্তব্য করেনি। তবে কূটনৈতিক উত্তর দিয়েছেন বারাক ওবামা। খানিক কৌতুকমিশ্রিত ভঙ্গিতে তিনি বলেন, ‘আয়োজক দেশ চিন হয়তো যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের বহরের আকার দেখে সামান্য হতভম্ব হয়ে গেছে। আমাদের সঙ্গে অনেক বিমান, হেলিকপ্টার, গাড়ি ও অনেক মানুষ ছিল। আয়োজক দেশের কাছে তা খানিকটা বেশি বলে মনে হতেই পারে। ’ 
  
আর যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা সুসান রাইস স্বীকার করেছেন প্রেসিডেন্ট ওবামাকে স্বাগত না জানানোর কারণে চিনের ওপর তিনি বিরক্ত হয়েছেন। সাংবাদিকদের রাইস বলেন, ‘যা হয়েছে তা ধারণাতীত। ’ মার্কিন সংবাদমাধ্যম নিউইয়র্ক টাইমসের প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘প্রেসিডেন্ট ওবামা এবং মার্কিন কর্মকর্তারা চীন পৌঁছানোর পর যে ধরনের অভ্যর্থনা পেয়েছেন তা খুবই বিবর্ণ। ’

বিডি প্রতিদিন/ মজুমদার

আপনার মন্তব্য

সর্বশেষ খবর
up-arrow