Bangladesh Pratidin

ঢাকা, রবিবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৮:৫৯
খবর এই সময়ের
'ভারত শুধু সিনেমায়-ই আক্রমণ করতে পারবে, ওদের দৌড় ওই পর্যন্তই'
অনলাইন ডেস্ক
'ভারত শুধু সিনেমায়-ই আক্রমণ করতে পারবে, ওদের দৌড় ওই পর্যন্তই'

উরির সেনা ক্যাম্পে জঙ্গি হানার পরে ভারতের পক্ষ থেকে প্রত্যাঘাতের সম্ভাবনা যতোই বাড়ছে- ততোই নিজের ক্যাডারদের মনোবল অটুট রাখতে মরিয়া হয়ে উঠেছেন মৌলানা মাসুদ আজহার। এই লক্ষ্যে সংগঠনের ক্যাডারদের উদ্দেশ্যে আধ ঘণ্টার অডি‌ও ক্লিপিংসও প্রকাশ করলেন ২৬/১১-এর মুম্বাই হামলার অন্যতম সন্দেহভাজন।

অডি‌ও বার্তায় ভারত সরকারের তীব্র সমালোচনার পাশাপাশি ভারতের সহনশীলতাকেও বিঁধেছেন আজহার। তাঁর কটাক্ষ, 'ভারত শুধু বলিউড ফিল্মের পর্দায় পাকিস্তানকে আক্রমণ করতে পারবে। ওখানেই তাদের যাবতীয় ক্ষমতা সীমিত। ' জৈশ-ই-মহম্মদের মুখপত্র 'রঙ্গনুর'- এ ৩০ মিনিটের অডিয়ো ক্লিপটি আপলোড করেছেন আজহার। শুধু তাই নয়, বলিউড অভিনেতাদের সাহস এবং দেশপ্রেম নিয়েও ব্যঙ্গ করেছেন। 'ভারত চিরকাল সিনেমায় পাকিস্তানকে আক্রমণ করে এসেছে। ওদের দৌড় ওই পর্যন্তই৷ ভারতের হিন্দি সিনেমার সাহসী অভিনেতারা আসলে খুব ভীতু। এঁরা নিজেদের ছায়াকেও ভয় পায়। তারা সব সময় সিনেমার মাধ্যমে ভারতকে সুপার পাওয়ার দেখায় এবং পাকিস্তানকে দুর্বল হিসেবে তুলে ধরে। এদের অধিকাংশই গ্যাসট্রিক ও হাঁপানির রোগে ভোগে। ওরা সিনেমায় দেখায় , পাকিস্তানে এসে একের পর এক জেহাদি এবং মুজাহিদিনকে এরা তুলে নিয়ে যাচ্ছে অথচ একটাও বুলেট ওদের স্পর্শ করছে না৷ এই সাহসী অভিনেতাদের গুলিতে শত শত মুজাহিদিনের মৃত্যু দেখানো হয় সিনেমায়৷ অথচ নিজেরা অক্ষত থেকে যায়। '
মাসুদের কথায়, 'ভারত এ বারও কিছুই করতে পারবে না। ওদের আধিকারিক এবং নেতারা নিজেদের দেশে প্রচুর মিথ্যে কথা বলে৷ পাঠানকোটের ঘটনার পরেও ওরা কিছুই করতে পারেনি৷ এ বারও পারবে না৷ ওরা যতটা গর্জায়, ততটা বর্ষাতে জানে না৷ তাই বার বার তিন -চার জন জেহাদির হাতে শোচনীয় অবস্থা হয়৷' আজহারের তীব্র কটাক্ষ, 'ভারতের নেতা এবং সেনার সাহস নেই পাকিস্তানকে আক্রমণ করার৷ প্রতিবার শুধু হুমকি দিয়ে থেমে যায়। ওদের সেনাবাহিনী নিজেদেরই রক্ষা করতে পারে না৷ প্রতিবার নাস্তানাবুদ হয় জেহাদিদের হাতে। '
তবে, জম্মু-কাশ্মীরে জেহাদের সমর্থনে ভারতীয়দেরও এগিয়ে আসার বার্তা দিয়েছেন আজহার৷ গুজরাট, মহারাষ্ট্র এবং রাজস্থানের সংখ্যালঘুদের প্রতি তাঁর এই আবেদন। এ দিকে, আজহারের এই উত্তেজক বার্তার প্রভাব যাতে ভারতে কোনভাবেই না পড়ে, সে জন্য ইতিমধ্যেই বাড়তি সতর্কতা অবলম্বন করছে নিরাপত্তা বাহিনী। জম্মু-কাশ্মীরের অশান্ত পরিস্থিতিতে কোনভাবেই ঘি পড়তে দিতে নারাজ ভারত সরকার৷ তাই সাইবার নেটওয়ার্কে আজহারের এই ভিডিয়ো যাতে ভাইরাল না হয়, সেদিকে লক্ষ্য রাখছেন গোয়েন্দারা। নতুন করে কোনও অশান্তি চান না তাঁরা।

বিডি-প্রতিদিন/এ মজুমদার

আপনার মন্তব্য

সর্বশেষ খবর
up-arrow