Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : ১৬ অক্টোবর, ২০১৬ ১৫:৪৯
‘হাঙরের মতো গিলে খাওয়াটাই ট্রাম্পের স্বভাব’
অনলাইন ডেস্ক
‘হাঙরের মতো গিলে খাওয়াটাই ট্রাম্পের স্বভাব’

নানাভাবে আলোচিত ও সমালোচিত হয়ে আসছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প। একের পর এক যৌন হয়রানির অভিযোগ উঠছে তার বিরুদ্ধে।

ক্রমশ দীর্ঘ হচ্ছে সেই তালিকা। সম্প্রতি  যৌন হেনস্থার অভিযোগ এনে রিপাবলিকান প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থীর বিরুদ্ধে এ বার মুখ খুলেছেন সামার জেরভস ও ক্রিস্টিন অ্যান্ডারসন নামের দুই প্রাক্তন মডেল। তার বিরুদ্ধে জোর করে নারীদের অক্টোপাসের মতো জড়িয়ে ধরার অভিযোগ উঠেছিল আগেই। এবার সেই অভিযোগের সাথে নতুন মাত্রা যোগ হল।  ট্রাম্পের স্বভাবকে তুলনা করা হল 'হাঙরের মতো গিলে খাওয়ার'  হিংস্রতার সাথে।

ট্রাম্প সম্পর্কে প্রথম বিস্ফোরক মন্তব্যটি সামার জেরভস। আজ ১০-১২ বছর আগেও তিনি ট্রাম্পের একটি রিয়্যালিটি শোতে আসতেন। সামার জেরভসের অভিযোগ, ট্রাম্পের কারনেই তাকে তার চাকরি হারাতে হয়। প্রভাবশালী ট্রাম্পের সঙ্গে তবু তিনি যোগাযোগ রেখে রেখেছিলেন। শুধু একটি ভাল একটা কাজ পাওয়ার আশায়। আর বিপত্তি বাঁধে তখনই।  

সামার জেরভস বলেন, ‘‘উনি নিজেই আমাকে বিলাসবহুল একটি হোটেলে ডাকেন। দুই-চার কথার পরেই জোরাজুরি শুরু করেন। আপত্তি সত্ত্বেও জড়িয়ে ধরেন, আর হাত দিতে শুরু করেন আমার শরীরের সর্বত্র। ঠিক যেন মাঝ সমুদ্রের রক্তের স্বাদ পাওয়া একটা হাঙর গিলে খেতে চাইছে আমাকে। ’’ 

এই ঘটনা ২০০৭ সালের। তার পর পেরিয়ে গিয়েছে প্রায় নয় বছর। এতদিন কেন এ নিয়ে নিশ্চুপ থাকার কারণ জানতে চাইলে এর উত্তরে প্রাক্তন মডেল বলেন, ‘‘উনি অনেক প্রভাবশালী, তাই ভয় পেয়ে ছিলাম। কিন্তু প্রেসিডেন্সিয়াল ডিবেটের মঞ্চে ট্রাম্পকে একের পর এক মিথ্যে বলতে দেখে আর থাকতে পারলাম না। এই লোকটা যে ভোটে দাঁড়াচ্ছে, ভাবতেই ঘৃণা হচ্ছে। ’’ 

একই রকম অভিজ্ঞতার কথা জানিয়েছেন ক্রিস্টিন অ্যান্ডারসন। ঘটনাটি নব্বইয়ের দশকের গোড়ার দিকের। ক্রিস্টিনের অভিযোগ, একটি নাইটক্লাবে নিয়ে গিয়ে তাকে হেনস্থা করেন ট্রাম্প। তিনিও সেই রাতে অক্টোপাসের মতো জড়িয়ে ধরা ঘৃণ্য মানসিকতার ট্রাম্পকে দেখতে চাইছেন না হোয়াইট হাউসে।  

রিপাবলিকান সূত্রের খবর, এই সব কেচ্ছা-কেলেঙ্কারির জেরেই  ট্রাম্পের দিক থেকে মুখ ফেরাতে শুরু করেছেন রিপাবলিকান সমর্থকদের একটা বড় অংশ। প্রচারের শুরু থেকেই তাঁরা পাশে ছিলেন ধনকুবের প্রার্থীর। ভোটের তহবিল গড়তে বিস্তর ডলারও ঢেলেছেন। এ বার তারাই অনুদান ফেরত চাইছেন।

এ দিকে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আর মাসখানেকও বাকি নেই। এরই মধ্যে ফাঁস হয় একটি বিতর্কিত ভিডিও টেপ যেখানে ট্রাম্প নিজেই নিজের ‘লালসার’ কথা জানিয়েছেন। তবুও এই প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী বেপরোয়াই। ফ্লোরিডার এক সভায় দাঁড়িয়ে দিব্যি জানিয়ে দিয়েছেন তিনি ও সবকিছুই নাকি মিথ্যা আর  ষড়যন্ত্র। ট্রাম্প আরও বললেন, ‘‘আপনারা বিশ্বাস করুন, যেসব নারীরা এ সব অভিযোগ করছেন, তারা আদৌ ততটা আকর্ষণীয় নন। কখনও তারা আমার পছন্দের তালিকাতেও ছিলেন না। ’’

বিডি-প্রতিদিন/১৬ অক্টোবর, ২০১৬/তাফসীর

আপনার মন্তব্য

সর্বশেষ খবর
up-arrow