Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮

প্রকাশ : ৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১১:৫৫ অনলাইন ভার্সন
আপডেট : ৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১২:০০
ভূমধ্যসাগরে ১৩ শ' অভিবাসনপ্রত্যাশী উদ্ধার
অনলাইন ডেস্ক
ভূমধ্যসাগরে ১৩ শ' অভিবাসনপ্রত্যাশী উদ্ধার

ইতালির কোস্টগার্ডের পৃথক ১৩টি মিশন অভিযান চালিয়ে শুক্রবার ভূমধ্যসাগর থেকে একদিনে ১৩শ'-এরও বেশি অভিবাসনপ্রত্যাশীকে উদ্ধার করেছে। এ নিয়ে তিনদিনে সাগরে ভাসমান মোট ২৬শ জন ভাগ্যবিড়ম্বিত মানুষের সাহায্যে এগিয়ে এলেন ইতালির উপকূলরক্ষীরা। 

ইতালির কোস্টগার্ডের এক বিবৃতিতে বলা হয়, শুক্রবার উদ্ধারকৃতরা আলাদা ১৩টি নৌযানে ছিলেন। ইতালির কোস্টগার্ড এবং ইতালি ও যুক্তরাজ্যের নৌবাহিনীর জাহাজ, বাণিজ্যিক জাহাজ, বেসরকারি সংস্থার নৌকাযোগে তাদের উদ্ধার করা হয়। খবর- দ্য গার্ডিয়ান, বিবিসি, আল জাজিরা'র।

এর আগে গত বুধবার আরও প্রায় ১৩শ অভিবাসনপ্রত্যাশীকে উদ্ধার করা হয়। 

প্রতিনিয়ত লিবিয়া থেকে অবৈধভাবে নৌকায় করে ভূমধ্যসাগর পেরিয়ে ইতালির পথে যাত্রা করছেন বিপুল সংখ্যক মানুষ। ইউরোপমুখী অভিবাসনপ্রত্যাশীদের একটা প্রধান রুটে পরিণত হয়েছে ভূমধ্যসাগরের এই এলাকা। ২০১৬ সালে এ পথ পাড়ি দিয়েছেন রেকর্ড সংখ্যক এক লাখ ৮১ হাজার শরণার্থী। এদের অধিকাংশই সমুদ্রযাত্রা করেছেন পাচারকারীদের ডিঙি নৌকায়। আর সাগর পাড়ি দিতে গিয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন পাঁচ হাজারেরও বেশি মানুষ। 

জীবন-জীবিকার তাগিদে প্রতিনিয়ত এভাবেই স্বপ্নভূমির উদ্দেশে দেশ ছাড়ছেন বিপুল সংখ্যক মানুষ। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে জাহাজ বা নৌকায় চড়ে বসছেন অসংখ্য শরণার্থী। আর উত্তাল সাগরের বুকে একের পর নৌকাডুবিতে প্রাণ যাচ্ছে হাজার হাজার মানুষের। 

জাতিসংঘের হিসাবে, ২০১৫ সালে অধিকতর ভালো জীবনের সন্ধানে প্রাণ হারিয়েছেন পাঁচ হাজারের অধিক নারী, পুরুষ ও শিশু। মানব পাচারকারীদের শিকারে পরিণত হয়েছেন ১০ সহস্রাধিক মানুষ। আর বিদেশি বিদ্বেষী নীতি এবং বিদ্যমান ভয়-আতঙ্কে বলির পাঁঠায় পরিণত হয়েছে ১০ লক্ষাধিক মানুষ। 

বিডি প্রতিদিন/৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৭/এনায়েত করিম

আপনার মন্তব্য

এই পাতার আরো খবর
up-arrow