Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৪ আগস্ট, ২০১৭

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৪ আগস্ট, ২০১৭
প্রকাশ : ৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১৮:১৪ অনলাইন ভার্সন
আপডেট : ৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১৯:৪০
এবার ভারত-জাপান-আমেরিকাকে চীনের পরোক্ষ হুঁশিয়ারি!
অনলাইন ডেস্ক
এবার ভারত-জাপান-আমেরিকাকে চীনের পরোক্ষ হুঁশিয়ারি!

সম্প্রতি বেনজির ভিডিও প্রকাশ করল চীন। পিপলস লিবারেশন আর্মির (পিএলএ) অধীনে গঠিত নতুন বাহিনী ‘রকেট ফোর্স’ বিভিন্ন ধরনের ক্ষেপণাস্ত্র সাজিয়ে যে কোন পরিস্থিতির মোকাবিলায় প্রস্তুত— অনেকটা এমনই বার্তা দেওয়া হল ভিডিওয়।

বিশেষজ্ঞরা তেমনই মনে করছেন। এ ধরনের ভিডিও চীন আগে কখনও প্রকাশ  করেনি। ডংফেং-১৬ ক্ষেপণাস্ত্র নিয়ে চীনা সেনার মহড়ার এই ভিডিও আসলে ভারত, জাপান এবং আমেরিকার প্রতি চীনের হুঁশিয়ারি, বলছেন প্রতিরক্ষা বিশারদদের বড় অংশই।

চীনের হাতে সুদীর্ঘ পাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র অনেক দিন ধরেই আছে। স্বল্প পাল্লার ক্ষেপণাস্ত্রও রয়েছে। কিন্তু মাঝারি পাল্লার ব্যালিস্টিক মিসাইল চীনা সেনার অস্ত্রাগারে সে ভাবে ছিল না। কৌশলগত ভাবে মাঝারি পাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তাই বেশ কিছু বছর ধরেই চীন মাঝারি পাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র তৈরিতে জোর দিচ্ছিল। ১০০০ কিলোমিটার দূরে আঘাত হানতে সক্ষম ডংফেং-১৬ সেই গোত্রেরই ক্ষেপণাস্ত্র। অনেকগুলি ডংফেং-১৬ নিয়ে মহড়া দেওয়ার ভিডিও প্রকাশ করে চীনা সেনা বুঝিয়ে দিল, যথেষ্ট সংখ্যক মাঝারি পাল্লার ক্ষেপণাস্ত্রও এসে গেছে তাদের অস্ত্রাগারে।

চীন এমনিতে নিজেদের অস্ত্র ভাণ্ডারের তথ্য প্রকাশের প্রশ্নে অত্যন্ত রক্ষণশীল। নিজেদের অস্ত্রাগারে ঠিক কী কী অস্ত্র রয়েছে, কোন অস্ত্রের সক্ষমতা কী রকম, সে সব বিষয়ে বিশদ তথ্য চীন কিছুতেই প্রকাশ করে না। চীনা সেনা দেশের ভিতরে কোথায়, কী  ধরনের মহড়া বা প্রশিক্ষণে অংশ নেয়, সে তথ্য তো আরো বেশি করে গোপন রাখা হয়। কিন্তু চীনের ক্ষেপণাস্ত্র বাহিনী ‘রকেট ফোর্সে’ কী ভাবে প্রশিক্ষণ নিচ্ছে এবং কোন কোন ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়ার মহড়া দিচ্ছে, ভিডিও ছেড়ে সে তথ্য চীন গোটা বিশ্বের সামনে প্রকাশ করায় বিশেষজ্ঞদের অনেকেই বেশ বিস্মিত। যে ভিডিও চীনা সেনা প্রকাশ করেছে, তাতে দেখা যাচ্ছে, অনেকগুলি লঞ্চ ভেহিকলে করে প্রচুর পরিমাণে ডংফেং-১৬ ক্ষেপণাস্ত্র নিয়ে এগোচ্ছে পিএলএ রকেট ফোর্স। খুব দ্রুত মোবাইল লঞ্চারে ক্ষেপণাস্ত্র লোড করা হচ্ছে, ততোধিক দ্রুততায় লঞ্চারকে এক স্থান থেকে সরিয়ে অন্যত্র মোতায়েন করা হচ্ছে এবং প্রয়োজন মতো লঞ্চ সিকোয়েন্স বা ক্ষেপণাস্ত্র মোতায়েনের বিন্যাস বদলানো হচ্ছে। চীনের সরকার চালিত সংবাদপত্র ‘চায়না ডেইলি’তে সোমবার লেখা হয়েছে, রকেট ফোর্স শুধু ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়ার মহড়াই দেয়নি, আরো অনেক গুরুত্বপূর্ণ কৌশল প্রয়োগ করে দেখিয়েছে। ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়ার পর যে রাসায়নিক এবং জৈবিক দূষণ ঘটে, খুব দ্রুত তা প্রশমিত করায় বাহিনী নিজেদের দক্ষতার প্রমাণ দিয়েছে বলে চীনা সংবাদপত্রের দাবি। এ ছাড়া উপগ্রহের চোখকে ফাঁকি দেওয়া, প্রতিপক্ষের ইলেকট্রনিক জ্যামিংকে অকেজো করে দেওয়ার পরীক্ষাতেও রকেট ফোর্সের বিভিন্ন বিভাগ সফল ভাবে উতরে গেছে বলে সেখানে লেখা হয়েছে। যে ভিডিওটি প্রকাশিত হয়েছে, তাতে ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়ার কোন ফুটেজ নেই। রুশ সীমান্তের কাছেও চীন ক্ষেপণাস্ত্র মোতায়েন করেছে। রাশিয়ার দাবি, সে ক্ষেপণাস্ত্র আমেরিকার দিকে তাক করা রয়েছে।

বিশেষজ্ঞ মহল বলছেন, চীনের এই ভিডিও প্রকাশ আসলে ভারত, জাপান ও আমেরিকার উদ্দেশে বার্তা। ১০০০ কিলোমিটার পাল্লার ডংফেং-১৬ মিসাইলকে চীনের যে কোন অঞ্চল থেকে নিক্ষেপ করা সম্ভব। তার সুবাদে ভারত, জাপান এবং আমেরিকার বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ অঞ্চল এই মিসাইলের নাগালের মধ্যে রয়েছে। আমেরিকার সঙ্গে চীনের দ্বন্দ্ব দীর্ঘ দিন ধরেই প্রকাশ্যে। ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট হওয়ার পর আমেরিকা আরো কঠোর অবস্থান নিয়েছে চীন সম্পর্কে। ফলে আমেরিকাকে পাল্টা হুঁশিয়ারি দিতে চীন এখন তৎপর। আর ভারত মহাসাগর এবং প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের বিরাট এলাকা জুড়ে চীন নিজেদের আধিপত্য বিস্তারের যে চেষ্টা শুরু করেছে, ভারত ও জাপান সেই আধিপত্যের পথে প্রধান বাধা। তার উপরে এই দুই দেশ আবার আমেরিকার ঘোষিত মিত্রও। ফলে ভারত এবং জাপানকেও পেশি দেখাতে চাইছে বেজিং। বলছেন আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশারদরা। তবে চীন প্রবল চাপে পড়েই ভিডিও প্রকাশের কৌশল নিল বলেও বিশেষজ্ঞদের মত। যে দেশ চিরকাল নিজেদের সামরিক কার্যকলাপ গোপন রাখার নীতিতেই বিশ্বাসী, তারা হঠাৎ আগ বাড়িয়ে পুরো বিশ্বের সামনে নিজেদের ক্ষেপণাস্ত্র সম্ভারের ছবি দেখাতে গেল কেন, বিশেষজ্ঞরা সেই প্রশ্নই তুলছেন। সূত্র: আনন্দবাজার।

বিডি প্রতিদিন/এ মজুমদার

 

আপনার মন্তব্য

up-arrow