Bangladesh Pratidin

ঢাকা, রবিবার, ২২ অক্টোবর, ২০১৭

ঢাকা, রবিবার, ২২ অক্টোবর, ২০১৭
প্রকাশ : ১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১০:১২ অনলাইন ভার্সন
আপডেট : ১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১১:৪৫
স্বল্প সময়ের মধ্যে চালু হবে ছাবাহার বন্দর, দুশ্চিন্তা বাড়ছে চীন-পাকিস্তানের
অনলাইন ডেস্ক
স্বল্প সময়ের মধ্যে চালু হবে ছাবাহার বন্দর, দুশ্চিন্তা বাড়ছে চীন-পাকিস্তানের
সংগৃহীত ছবি

এক মাসের মধ্যে চালু হতে চলেছে ছাবাহার বন্দর। ওমান উপসাগরের বুকে ভারত-ইরান যৌথ উদ্যোগে ছাবাহার বন্দর সম্প্রসারণ তথা আধুনিকীকরণের কাজ প্রায় শেষ।

এই বন্দর খুললে ভারত-আফগানিস্তান বাণিজ্য এবং পণ্য পরিবহণের পথে পাকিস্তান আর বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারবে না। শুধু তাই নয়, মধ্য এশিয়ার সমুদ্রেও ভারতের স্থায়ী ঘাঁটি তৈরি হয়ে যাবে।

২০১৬ এর মে মাসে ভারত-ইরান-আফগানিস্তান ছাবাহার নিয়ে চুক্তিবদ্ধ হয়। পাকিস্তানের দক্ষিণ-পশ্চিম সীমান্তের খুব কাছে অবস্থিত ছাবাহার বন্দরের আধুনিকীকরণ ও সম্প্রসারণে বড় অঙ্কের বিনিয়োগের প্রতিশ্রুতি দেয় ভারত। বিনিময়ে মেলে ছাবাহার বন্দর ব্যবহারের অধিকার। আফগান কূটনীতিক সম্প্রতি বলেছেন, ‘‘আর এক মাসের মধ্যেই ছাবাহার বন্দর খুলে যাচ্ছে এবং তাতে ভারত-আফগান বাণিজ্য আরও গতি পাবে। ’’

এক মাসের মধ্যে ছাবাহারে ভারতীয় বিনিয়োগে গড়ে ওঠা বন্দরের উদ্বোধন হবে, এমন খবর যে চীন এবং পাকিস্তানকে ঘোর অস্বস্তিতে রাখবে, তা বলাই বাহুল্য। চীন-পাকিস্তান অর্থনৈতিক করিডরের অঙ্গ হিসেবে আরব সাগরের উপকূলবর্তী গোয়াদরে বন্দর তৈরি করেছে। মধ্য এশিয়ার সঙ্গে সহজ যোগাযোগের স্বার্থে পাকিস্তানের মাটিতে চীনা উদ্যোগে গড়ে ওঠা এই গোয়াদর বন্দরের উপর পৃথিবীর বিভিন্ন দেশকে নির্ভর করতে হবে বলে চীন আশা করেছিল।

কিন্তু গোয়াদর থেকে পানিপথে ২০০ কিলোমিটারেরও কম দূরত্বে অবস্থিত ছাবাহারে ভারত যে পাল্টা বন্দর তৈরি করবে, তা চীন-পাকিস্তান আশা করেনি। মধ্য এশিয়ার সঙ্গে যোগাযোগের প্রশ্নে গোয়াদরের চেয়ে ছাবাহারের অবস্থান অনেক সুবিধাজনক। তাই গোয়াদর থেকে যে ভাবে অর্থনৈতিক লাভ পাওয়ার আশা করেছিল চীন-পাকিস্তান, তা ভেস্তে যাওয়ার আশঙ্কা তো থাকছেই।

বিডি প্রতিদিন/ সালাহ উদ্দীন

আপনার মন্তব্য

এই পাতার আরো খবর
up-arrow