Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : ২৩ মে, ২০১৮ ১৫:০৫ অনলাইন ভার্সন
আপডেট : ২৩ মে, ২০১৮ ১৮:৩৬
ইসরায়েলের কাছে শত্রুপক্ষের রাডার ফাঁকি দিতে সক্ষম জঙ্গিবিমান!
অনলাইন ডেস্ক
ইসরায়েলের কাছে শত্রুপক্ষের রাডার ফাঁকি দিতে সক্ষম জঙ্গিবিমান!
সংগৃহীত ছবি

সম্প্রতি সিরিয়ায় ইরানি সামরিক স্থাপনাগুলোর ওপর আক্রমণ চালায় ইসরায়েল। ইহুদি রাষ্ট্রটির দাবি, এই হামলায় তারা পৃথিবীর সবচেয়ে আধুনিক এবং ব্যয়বহুল এফ-৩৫ স্টেলথ যুদ্ধ বিমান ব্যবহার করেছে। এটি এমন একটি বিমান, যা ওড়ার সময় শত্রুপক্ষের রাডারে তার অস্তিত্ব ধরা পড়বে না। তা ছাড়া শত্রুপক্ষের বিমানের চোখে পড়ার আগেই সে নিজেই তাকে দেখতে পাবে।

বিবিসি বলছে, ইসরায়েলের অত্যাধুনিক এই বিমানটি তৈরি করেছে তাদের মিত্র দেশ যুক্তরাষ্ট্র। প্রতিটি বিমানের দাম প্রায় ১০ কোটি ডলার। এই প্রথম এফ-৩৫ যুদ্ধবিমান কোনো 'কমব্যাট অপারেশনে' ব্যবহৃত হলো। ইসরায়েলি বিমান বাহিনীর প্রধান জেনারেল আমিকাম নরকিন গতকাল মঙ্গলবার এ বিমান ব্যবহারের খবর প্রকাশ করার পর তা নিয়ে শুরু হয়েছে আলোচনা। 

প্রশ্ন উঠেছে, কেন ইসরায়েল এই বিমান ব্যবহার করার কথা দাবি করলো? বিবিসি বলছে, সম্ভবত ইসরায়েল তার সামরিক শক্তি দেখানোর জন্যই আমেরিকানদেরও আগে এ বিমান ব্যবহারের কথা ঘোষণা করেছে। কারণ তারা মনে করে, ইরানের সুপ্রশিক্ষিত বাহিনী সিরিয়ায় গেড়ে বসছে, এবং ইসরায়েলের প্রতি হুমকি সৃষ্টি করছে।

কি বৈশিষ্ট্য এই এফ-৩৫ যুদ্ধ বিমানের? বিমানটির পাইলটের হেলমেটে বসানো আছে একটি ডিসপ্লে সিস্টেম - যাতে অন্যদিকে মুখ করে থাকা অবস্থায়ও শত্রু বিমানের দিকে গুলি করতে পারবে। পাইলট শত্রু লক্ষ্যবস্তুর গতিবিধি চিহ্নিত করতে পারবেন, শত্রু রাডার 'জ্যাম' বা অকার্যকর করে দিতে পারবেন এবং আক্রমণ প্রতিহত করতে পারবেন। তা ছাড়া এ বিমানের যাবতীয় তথ্য-উপাত্ত অপারেশন কমান্ডারের সাথে শেয়ার করা যাবে।

প্রসঙ্গত, প্রতি বছর ইসরায়েলকে ৪০০ কোটি ডলারের সামরিক সাহায্য দেয় যুক্তরাষ্ট্র। দেশটির আইন অনুযায়ী এ সাহায্য এমনভাবে দিতে হবে যাতে মধ্যপ্রাচ্যে ইসরায়েলের সামরিক শ্রেষ্ঠত্ব সবসময়ই অক্ষুণ্ণ থাকে।

বিডি-প্রতিদিন/২৩ মে, ২০১৮/মাহবুব

আপনার মন্তব্য

এই পাতার আরো খবর
up-arrow