Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : ১৫ আগস্ট, ২০১৮ ১৫:২৪ অনলাইন ভার্সন
কড়া নিরাপত্তায় ভারতে উদযাপিত হচ্ছে স্বাধীনতা দিবস
দীপক দেবনাথ, কলকাতা:
কড়া নিরাপত্তায় ভারতে উদযাপিত হচ্ছে স্বাধীনতা দিবস

যথাযথ মর্যাদার সঙ্গে ভারতে ৭২ তম স্বাধীনতা দিবস পালিত হচ্ছে। এ লক্ষে আজ দেশজুড়েই নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। স্বাধীনতা দিবসের কুচকাওয়াজে অংশ নিতে এদিন সকালেই দিল্লির লাল কেল্লায় পৌঁছে যান দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। প্রথমে সেখানে প্রধানমন্ত্রীকে সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে ‘গার্ড অব অনার’ দেওয়া হয়। এরপর জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন প্রধানমন্ত্রী। সাথে সাথেই বেজে ওঠে দেশটির জাতীয় সঙ্গীত। ওই অনুষ্ঠানে বিভিন্ন স্কুলের ছাত্র-ছাত্রীরা একটি কুচকাওয়াজে অংশগ্রহণ করে। 

এদিনের অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং, প্রতিরক্ষামন্ত্রী নির্মলা সীতারামণ, তথ্য ও প্রযুক্তিমন্ত্রী রবি শঙ্কর, সাবেক প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং, আরেক সাবেক প্রধানমন্ত্রী এইচ.ডি.দেবগৌড়া, লোকসভার স্পিকার সুমিত্রা মহাজন, প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্র, বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ, দলটির বর্ষিয়াণ নেতা লালকৃষ্ণ আডবানী, দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল, কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধীসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের শীর্ষ নেতৃত্ব, ভারতের তিন বাহিনীর প্রধান ও নয়াদিল্লিতে নিযুক্ত একাধিক রাষ্ট্রের রাষ্টদূতরা। স্বাধীনতা দিবসের কর্মসূচি সুষ্ঠুভাবে শেষ করার জন্য নিরাপত্তার চাদরে মুড়ে ফেলা হয়েছিল ঐতিহাসিক লালকেল্লা। আকাশ পথেও নজরদারির ব্যবস্থা করা হয়েছিল। 

পতাকা উত্তোলনের পর লালকেল্লায় জাতীর উদ্দেশে ভাষণ দেন নরেন্দ্র মোদি। আগামী বছর লোকসভার নির্বাচনের আগে এটাই ছিল মোদির শেষ ভাষণ। আর এই মঞ্চ থেকেই গত চার বছরে কেন্দ্রের বিজেপি সরকারের সাফল্যের খতিয়ান তুলে ধরে তিনি বলেন, ‘আকাশ, সমুদ্র, সরকারি কার্যালয় ও দেশ একই আছে। অথচ গত ৪ বছরে দেশ নতুন উদ্যমে এগিয়ে চলছে। এর ফলে দ্বিগুণ সড়ক নির্মাণ, রেকর্ড ফসল উৎপাদন ও মোবাইল ফোন উৎপাদনের সংখ্যাও বেড়ে গেছে।’

ভাষণে দুর্নীতি, নারী সুরক্ষা, সন্ত্রাসবাদ, কাশ্মীর ইস্যু, সার্জিক্যাল স্ট্রাইক, তিন তালাক, ব্যবসা, শিক্ষা, মহাকাশ অভিযানসহ একাধিক ইস্যু নিয়ে মুখ খোলেন প্রধানমন্ত্রী। তিন তালাক নিয়ে মোদি বলেন ‘মুসলিম বোন ও নারীদের অধিকার যাতে সুরক্ষিত থাকে তা নিশ্চিত করতে চাই। তাদের নিরাপত্তা দিতে সরকার কোন উদ্যোগ বাকি রাখবে না। তাই সংসদে তিন তালাক বিরোধী বিল আনা হয়েছে। কিন্তু কিছু মানুষ এই বিলটি পাশ করাতে চায় না। যদিও সরকার এই বিল আইনে পরিণত করতে বদ্ধপরিকর।’ 

জম্মু-কাশ্মীর সমস্যা সমাধানে সাবেক প্রধানমন্ত্রী অটল বিহারী বাজপেয়ীর দেখানো পথেই পদক্ষেপ নেওয়া হবে বলে জানান মোদি। অটলজি ইনশানিয়ত (মানবতা), কাশ্মীরিয়ত (যৌথ ধর্মনিরপেক্ষতা ও কাশ্মীরি সংস্কৃতি) ও জামুরিয়ত (গণতন্ত্র)-এর কথা বলেছিলেন। ওই পথই সঠিক। ওই পথেই আমরা চলতে চাই। আমরা গুলি ও দোষারোপের পথে চলতে চাই না, কাশ্মীরের মানুষের সাথে গলা মিলিয়ে সামনের দিকে অগ্রসর হতে চাই।’ 

দিল্লি ছাড়াও দেশিটির প্রতিটি অঙ্গরাজ্য ও কেন্দ্র শাসিত রাজ্যগুলিতেও মর্যাদার সাথে পালিত হয় এই দিনটি। এদিন সকালে কলকাতার রেডরোডে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। দিল্লিতে কংগ্রেসের সদর কার্যালয়ে দেশটির তিরঙ্গা পতাকা উত্তোলন করেন দলের সভাপতি রাহুল গান্ধী। 

এদিকে ভারত বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক সীমান্তের পেট্রাপোল স্থলবন্দরে স্বাধীনতা দিবস পালন করে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ)। সেখানে উপস্থিত ছিল বাংলাদেশ বর্ডার গার্ড (বিজিবি)’এর কর্মকর্তারাও। দুই দেশের যাত্রী ও সাধারণ মানুষও ওই অনুষ্ঠান উপভোগ করেন। এ উপলক্ষে বিজিবি’র হাতে মিষ্টি ও ফুল তুলে দেয় বিএসএফ। ফুলবাড়িতে বিএসএফ’এর সীমান্ত চৌকিতেও স্বাধীনতা দিবস পালনের পর বিজিবি’এর হাতে মিষ্টি তুলে দেওয়া হয়। 

স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে ভারত-পাক সীমান্তেও ছিল সৌহার্দ্যরে ছবি। আত্তারি-ওয়াঘা সীমান্তে পাকিস্তানি রেঞ্জারস এবং বিএসএফ-এর মধ্যে মিষ্টি বিনিময় হয়।


বিডি প্রতিদিন/১৫ আগষ্ট ২০১৮/হিমেল

আপনার মন্তব্য

এই পাতার আরো খবর
up-arrow