Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : ২০ অক্টোবর, ২০১৮ ০২:৩২ অনলাইন ভার্সন
আপডেট : ২০ অক্টোবর, ২০১৮ ০৯:৪৭
জন্মহার বাড়াতে দ. কোরিয়ার বিশেষ উদ্যোগ
অনলাইন ডেস্ক
জন্মহার বাড়াতে দ. কোরিয়ার বিশেষ উদ্যোগ

জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার নিয়ে চরম উদ্বিগ্ন দক্ষিণ কোরিয়া। কারণ স্বামী-স্ত্রীর বেশিরভাগ সময় কর্মস্থলে কেটে যাওয়ার কারণে তাদের স্বাভাবিক মেলামেশা বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। আর সেটাই বাধা হয়ে দাঁড়াচ্ছে সন্তান উৎপাদনে। সেজন্য জনসংখ্যা বৃদ্ধির ক্রমহ্রাসমান হারের সমস্যার সমাধান হিসাবে কর্মঘণ্টা কমানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে দেশটি।

সরকার বলছে, অফিসে কাজের সময় কমানোর ফলে পরিবারের সঙ্গে বেশি সময় কাটানোর সুযোগ পাবেন পুরুষ ও নারীরা। ফলে জন্মহার বাড়বে বলে ধারণা করছেন দেশের নীতি-নির্ধারকরা।

দেশটির বর্তমান জনসংখ্যা ৫ কোটি ১১ লাখ ৬৪ হাজার ৪৩৫ জন। গত বছরের তুলনায় জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার মাত্র ০.৩৬ শতাংশ। অর্থাৎ জনসংখ্যা বেড়েছে পৌনে দুই লাখের সামান্য বেশি। 

জনঘনত্বের হিসাবে দেখা গেছে, প্রতি বর্গ কিলোমিটারে মাত্র দু'জন বৃদ্ধি পেয়েছে। জন্মহার কমার জন্য সরকারের একটি কমিটি দীর্ঘ কাজের সময়কেই দায়ী করেছে। 

দেশটির নীতি নির্ধারকরা বলছেন, যেহেতু দায়িত্বশীল মা-বাবা হিসাবে তারা সন্তানকে ঠিকভাবে সময় দিতে পারবেন না, তাই তারা পরিবার বাড়াতে আগ্রহী নন। তারা সন্তানদের প্রতি অবিচার করতে চান না। জনসংখ্যা বৃদ্ধির ক্রমহ্রাসমান হারের সমস্যার সমাধান হিসাবে অফিসের কর্মীরা সাপ্তাহিক কাজের সময় ৬৮ ঘণ্টার বদলে এখন থেকে ৫২ ঘণ্টা কাজ করবেন। 

স্বাস্থ্যের প্রতি দৃষ্টি দেওয়া, অবসাদ কাটানো এবং জন্মহার বৃদ্ধির জন্য এই নিয়ম জারি করেছে সরকার। ব্যবসায়ী মহল এ বিলের বিরোধিতা করলেও আইনসভা তাতে আমল না দিয়ে বিলটি পাস করেছে।

বিডি প্রতিদিন/২০ অক্টোবর ২০১৮/আরাফাত

আপনার মন্তব্য

এই পাতার আরো খবর
up-arrow