Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : ২১ জানুয়ারি, ২০১৯ ১১:০৭ অনলাইন ভার্সন
আপডেট : ২১ জানুয়ারি, ২০১৯ ১৩:৪৪
টোকাই থেকে মেয়র!
অনলাইন ডেস্ক
টোকাই থেকে মেয়র!
রাজেশ কালিয়া। ছবি: সংগৃহীত

সাধারণ কর্মী থেকে শিল্পপতি, ড্রপ আউট থেকে দুনিয়াখ্যাত কোম্পানির মালিক হয়েছেন অনেকেই। তবে রাজেশ কালিয়ার সাফল্য তাদের থেকে কোনও অংশে কম নয়। এমনকি চা বিক্রেতা থেকে প্রধানমন্ত্রী হওয়া নরেন্দ্র মোদীকেও তার সঙ্গে তুলনা করা যেতে পারে।

ভারতের চণ্ডীগড়ের মেয়র নির্বাচিত হলেন ৪৬ বছরের রাজেশ কালিয়া। এক সময় রাস্তায় রাস্তায় কাগজ কুড়াতেন তিনি। মোট ২৭টি ভোটের মধ্যে ১৬টি ভোট পেয়েছেন বিজেপির নেতা রাজেশ। একেবারে রাস্তা থেকে উঠে আসা রাজেশ মুহূর্তেই হয়ে গেলেন মেয়র।

বাল্মিকী সম্প্রদায়ের মানুষ রাজেশ। বাবা কুন্দন লাল কালিয়া ছিলেন ঝাড়ুদার। ভাই এখনও ঝাড়ুদার হিসেবেই কাজ করেন। কাজেশ কালিয়া নিজেই তার ফেলে আসা দিনের কথা স্মরণ করলেন সংবাদমাধ্যমের কাছে।

তিনি জানান, স্কুল থেকে ফিরে রাস্তায় রাস্তায় কাগজ কুড়াতাম। ভাইয়ের সঙ্গে গিয়ে আবর্জনার স্তূপ থেকেও কাগজ সংগ্রহ করতাম। পরিবারের অভাব দূর করার জন্য বহুদিন এটাই করে গেছি।

হরিয়ানার সোনিপতের মানুষ রাজেশ চণ্ডীগড় চলে আসেন ১৯৭৭ সালে। তারপর থেকেই বাস্তব জীবনের সঙ্গে লড়াই শুরু। শহরে আসার পর থেকেই কাগজ কুড়াতে শুরু করেন তিনি।

জি নিউজকে দেওয়া সাক্ষাতকারে রাজেশ বলেন, জীবনে এই জায়গায় যেতে পারবো তা কখনও ভাবতে পারিনি। তবে যুবক বয়স থেকেই রাজনীতিতে ঝোঁক ছিল। সেই ঝোঁক থেকেই ১৯৮৪ সালে আরএসএস ও বিজেপিতে যোগ দিই।

তিনি বলেন, বর্তমানে আমি যা তা করেছে বিজেপি। স্বীকার করতে কোনও কুন্ঠা নেই আমার।

রাজেশ বলেন, বিজেপিই একমাত্র দল যে একজন চা বিক্রেতাকে প্রধানমন্ত্রী করতে পারে। একজন কাগজ কুড়ানিকে মেয়র করতে পারে।

রাম মন্দির আন্দোলেন যোগ দিয়ে একবার ১৫ দিন জেলও খেটেছেন রাজেশ। বিজেপির তফসিলি মোর্চার সভাপতি ছিলেন বহুদিন। তবে ২০১১ সালে তিনি প্রথম পৌরসভার নির্বাচনে লড়াই করেন। সেবার তিনি হেরে যান। ২০১৬ সালে ফের লড়াইয়ে নামেন ও জয়লাভ করেন।

বিডি প্রতিদিন/কালাম

আপনার মন্তব্য

up-arrow